kalerkantho

বুধবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৭। ৫ আগস্ট  ২০২০। ১৪ জিলহজ ১৪৪১

মোদির কাছে বিচার চাইলেন সুশান্তের বোন

অনলাইন ডেস্ক   

২ আগস্ট, ২০২০ ১৫:১৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মোদির কাছে বিচার চাইলেন সুশান্তের বোন

ভাইয়ের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনার তদন্তে যেন স্বচ্ছতা থাকে, যেন কোনো প্রমাণ নষ্ট না হয়-এমন আবেদন জানিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে টুইট করলেন সুশান্ত সিংহ রাজপুতের বড় বোন শ্বেতা সিংহ কীর্তি।

১৪ জুন বান্দ্রায় অভিনেতার ফ্ল্যাট থেকে তাঁর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করে তদন্তে নামে মুম্বাই পুলিশ। সুশান্তের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়-বন্ধুরা অভিযোগ করেছিলেন, বলিউডে স্বজনপোষণের ফলে ঠিকমতো কাজ পাচ্ছিলেন না সুশান্ত। যা থেকে তাঁর অবসাদ ক্রমে বেড়েছিল। এবং যার পরিণতি আত্মহত্যা। 

দেড় মাস ধরে তদন্ত চালাচ্ছে মুম্বাই পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ করেছে করণ জোহর, মহেশ ভাট, সঞ্জয় লীলা বানসালিসহ অন্তত ৪০ জনকে। কিন্তু এ মামলায় নতুন মোড় আসে ঠিক এক সপ্তাহ আগে। গত ২৫ জুলাই পাটনার একটি থানায় সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী এব‌ং আরো ছয়জনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় মদদ দেওয়ার অভিযোগ এনে এফআইআর করেন সুশান্তের বাবা কে কে সিংহ। সেই অভিযোগের পর মুম্বাই এসে তদন্ত শুরু করে বিহার পুলিশের একটি টিম। এবং শুরু হয়ে যায় এ মৃত্যু ঘিরে বিহার বনাম মহারাষ্ট্রের দ্বন্দ্ব।

শনিবার (১ আগস্ট) বিকেলে সাংবাদিকদের নিয়ে বৈঠক করেন বিহার পুলিশের ডিজি গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে জানান, সুশান্তের সাবেক প্রেমিকা অঙ্কিতা লোখণ্ডেসহ ছয়জনের বয়ান রেকর্ড করেছেন তাঁরা। কিন্তু যার বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ, সেই রিয়া চক্রবর্তীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। শুক্রবারই অবশ্য একটি বেসরকারি চ্যানেলকে পাঠানো ভিডিও বার্তায় রিয়া বলেছিলেন, তার বিরুদ্ধে নানা মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। তদন্তের প্রথম দিন থেকে মুম্বাই পুলিশের সঙ্গে সহযোগিতা করছেন তিনি।

এর মধ্যেই শনিবারও আবার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিহার পুলিশের কর্মীদের ধাক্কা দিয়ে ভ্যানে উঠিয়ে দিচ্ছেন মুম্বাই পুলিশের কয়েক জনকর্মী। বিহার পুলিশ তখন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। মুম্বাই পুলিশের অবশ্য দাবি, ভিড়ের হাত থেকে রক্ষা করার জন্যই বিহারের পুলিশকর্মীদের গাড়িতে তুলে দিচ্ছিল তারা। ডিজি গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে জানিয়েছেন, তারা কোনো হেনস্তার মুখে পড়েননি। 

প্রথম থেকেই সুশান্তের পরিবার ও তাদের দাবি অনুযায়ী আলাদা তদন্তের দাবিকে সমর্থন করে এসেছে নীতীশ কুমার সরকার। আজ বিহারের এক মন্ত্রী, নীতীশ-ঘনিষ্ঠ সঞ্জয় কুমার ঝা জানিয়েছেন, সুশান্তের পরিবার যদি সিবিআই তদন্ত চায়, তা হলে সে নিয়ে অবশ্যই তা করবেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। সঞ্জয়ের কথায়, মুম্বাই পুলিশ যেটা করছে, তা তো তদন্ত নয়, বলিউডের তারকাদের সঙ্গে নিজস্বী তোলার উছিলা মাত্র।

এই টানাপড়েনের মধ্যেই শনিবার টুইটারে একটি পোস্ট দেন সুশান্তের বোন শ্বেতা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে ট্যাগ করে তিনি লিখেছেন, আমি সুশান্ত সিংহ রাজপুতের বোন। আমি অনুরোধ করব, এ ঘটনার স্বচ্ছ তদন্ত হোক। দেশের আইনি প্রক্রিয়ার ওপর আমার ভরসা আছে। তাই আমার ভাইয়ের মৃত্যুর সঠিক বিচার আশা করি।

এখানেই থামেননি শ্বেতা। প্রধানমন্ত্রীকে সরাসরি লিখেছেন, কেন জানি না, আমার মনে হচ্ছে, আপনি সত্যের সঙ্গে ও পক্ষে থাকবেন। আমরা খুবই সাধারণ পরিবারের মানুষ। আমার ভাই সুশান্ত যখন বলিউডে কেরিয়ার শুরু করে, তখন ওর কোনো গডফাদার ছিল না। আর আমাদের এখনও নেই। আপনি দয়া করে নজর রাখুন, এ ঘটনার তদন্তে যেন স্বচ্ছতা বজায় থাকে। কোনও প্রমাণ যেন নষ্ট করা না-হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা