kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

ইউরোপে দ্রুত রপ্তানিতে আরেকটি নতুন রুট

সরাসরি পণ্য যাবে নেদারল্যান্ডসে

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

১৩ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



সরাসরি পণ্য যাবে নেদারল্যান্ডসে

ইউরোপে পণ্য পরিবহনের হাব হচ্ছে নেদারল্যান্ডসের রটারডাম বন্দর। এবার চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ইউরোপের সেই ব্যস্ততম বন্দরে সরাসরি কনটেইনার জাহাজ সার্ভিস চালু হচ্ছে। ১৫ মে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে প্রথম জাহাজটি রটারডামের উদ্দেশে রওনা দেবে; ২০-২১ দিনে সেই বন্দরে পৌঁছবে। এরপর জাহাজটি যাবে ইংল্যান্ডের আরেক ব্যস্ততম বন্দর লিভারপুরে।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রাম বন্দর থেকে প্রথমবার ইতালিতে সরাসরি কনটেইনার জাহাজ সার্ভিস চালু হয় ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। সেই পণ্য পরিবহনের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় নতুন এই সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নিয়েছে লন্ডনভিত্তিক ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার কম্পানি ‘অলসিস গ্লোবাল লজিস্টিকস’। প্রাথমিকভাবে কম্পানিটি তিনটি জাহাজ দিয়ে পণ্য পরিবহন শুরু করবে। পরবর্তী সময়ে আরো দুটি জাহাজ এই সার্ভিসে যোগ হবে। আর প্রতি ১০ দিন পর একটি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে লিভারপুল বন্দরের উদ্দেশে রওনা দেবে।

নতুন সার্ভিসের স্থানীয় শিপিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে ফনিক্স শিপিং লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন সৈয়দ সোহেল হাসনাত কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা তিনটি জাহাজ দিয়ে নতুন সার্ভিসটি চালু করছি। এরই মধ্যে বন্দরের অনুমতি পেয়েছি। প্রতি ১০ দিন পর একটি করে জাহাজ চট্টগ্রাম ছাড়বে। চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি রটারডাম পৌঁছতে সময় লাগবে ২০-২২ দিন। রটারডাম থেকে লিভারপুর বন্দরে পৌঁছতে লাগবে আরো এক দিন। ’

তিনি আরো বলেন, “প্রথম জাহাজ ‘এমভি এমো’তে ৬০০ থেকে ৭০০ একক রপ্তানি কনটেইনার বুকিং আছে। যেগুলোর বেশির ভাগই নামবে রটারডাম বন্দর। আপনি জানেন রটারডাম থেকে ইউরোপের দেশ জার্মানি, সুইডেনসহ বেশির ভাগ দেশে সড়কপথে দ্রুত পণ্য পরিবহন সম্ভব। ’

জানা গেছে, বর্তমানে চট্টগ্রাম-ইতালি রুটে তিনটি কনটেইনার জাহাজ সরাসরি রপ্তানি পণ্য পরিবহন করছে ইতালির ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার প্রতিষ্ঠান রিফ লাইন ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান ক্যালিপসো কম্পানিয়া ডি নেভিগেশন। বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্য ইতালি নেমে সেই বন্দর থেকে সড়কপথে ইউরোপের অন্য দেশে নেওয়া হচ্ছে। তবে নতুন এই সার্ভিসটি আরো বেশি কার্যকর হবে বলে মনে করছে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান।

তাদের মতে, চট্টগ্রাম-রটারডাম-লিভারপুল রুটে তিনটি জাহাজই বড় আকারের, অর্থাৎ এক হাজার ৫০০ থেকে এক হাজার ৮০০ একক ধারণক্ষমতার কনটেইনার। বড় জাহাজ হওয়ায় কনটেইনার পরিবহনে একসঙ্গে বেশি করা যাবে। আর প্রতি ১০ দিন পর জাহাজ চট্টগ্রাম ছাড়ায় রপ্তানি পণ্য অনেক সময়ে জাহাজীকরণ করা সম্ভব হবে। আবার আগামী প্রতিকূল আবহাওয়ায় সাগর যখন উত্তাল থাকে তখনো এই আকারের জাহাজটি তুলনামূলক নিরাপদ থাকবে।

কত দিন এই সার্ভিস চলবে জানতে চাইলে ক্যাপ্টেন হাসনাত বলেন, এখন বৈশ্বিক শিপিং লাইনগুলোর যা অবস্থা, তাতে বাংলাদেশের পণ্য বেশি ভাড়া দিয়েও জাহাজে স্থান পাচ্ছে না। নতুন সার্ভিসে সেই ঝামেলা তো নেই। আর আমাদের আগামী তিনটি জাহাজের পণ্যের বুকিং ক্রমাগত বাড়ছে। ফলে সার্ভিসটি স্থায়ী হতে পারে যদি পণ্যের এমন চাহিদার ধারাবাহিকতা থাকে।

এদিকে স্পেনের বার্সেলোনা এবং নেদারল্যান্ডসের রটারডাম বন্দরে আরো একটি সরাসরি জাহাজ সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নিয়েছে সুইজারল্যান্ডের সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ‘কমোডিটি সাপ্লাইজ এজি’। কম্পানিটি তিনটি কনটেইনার জাহাজ দিয়ে আগামী ২২ মের শেষে সার্ভিস শুরু করবে। প্রতি ১৫-১৭ দিন পর একটি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়বে।

জানতে চাইলে স্থানীয় এজেন্ট রিলায়েন্স শিপিং অ্যান্ড লজিস্টিকসের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ রাশেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, এখন ফ্রেইট ফরোয়ার্ডাররা নিজেরা জাহাজ ভাড়া করে, নিজেদের কনটেইনার নিয়ে নিজেদের উদ্যোগে পরিবহন করছে। নতুন এই ধারণায় পণ্য ইউরোপে পৌঁছতে সময় সাশ্রয়, ভাড়া কম, নির্দিষ্ট সময়ে পণ্য ক্রেতার কাছে পৌঁছা এবং বিশ্বের বড় জাহাজ পরিচালনাকারীদের ওপর নির্ভরশীলতা কমেছে। এতে করে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশের মোট পণ্য রপ্তানির ৪৫ শতাংশই রপ্তানি হয় ইউরোপের ২৭টি দেশে। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে এসব দেশে এক হাজার ৭৪৬ কোটি ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি হয়েছিল। চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে রপ্তানি হওয়া মোট সাত লাখ ২৯ হাজার একক কনটেইনারের মধ্যে তিন লাখ কনটেইনারই নেওয়া হয়েছে ইউরোপে। আর রপ্তানি হওয়া পণ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জার্মানিতে গেছে ১৫ শতাংশের বেশি। ইংল্যান্ডে গেছে প্রায় ১০ শতাংশ। স্পেনে গেছে ৬ শতাংশ। নেদারল্যান্ডসে গেছে  সাড়ে ৩ শতাংশ। ইতালিতে গেছে  ৩.৩৭ শতাংশ। এসব সরাসরি জাহাজ সার্ভিস চালু হওয়ায় বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যাবে এবং রপ্তানি পণ্যের অর্ডার বেশি পরিমাণ বাংলাদেশে আসবে।  

বিজিএমইএর সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং এশিয়ান অ্যাপারেলসের এমডি এম এ সালাম বলছেন, ‘আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ থাকে সঠিক সময়ে পণ্য তৈরি এবং জাহাজীকরণ। এখন বিশ্বজুড়ে জাহাজ ভাড়া বেড়ে যাওয়া, ট্রান্সশিপমেন্ট বন্দরগুলোর জট, জাহাজের স্থান সংকট মিলিয়ে আমরা একটা চাপের মধ্যে আছি। ইউরোপ সার্ভিস চালুর খবর এটা অবশ্যই আমাদের জন্য বড় স্বস্তির। ’

 



সাতদিনের সেরা