kalerkantho

সোমবার  । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ৩ আগস্ট  ২০২০। ১২ জিলহজ ১৪৪১

পাওনা টাকা চাওয়ায়

স্ত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, স্বামী বাঁধা ছিলেন গাছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

১১ জুলাই, ২০২০ ১৮:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্ত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, স্বামী বাঁধা ছিলেন গাছে

ঢাকার অদূরে সাভারে পাওনা টাকা চাওয়ায় ইটভাটার এক শ্রমিককে গাছের সঙ্গে বেঁধে তার স্ত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ  গেছে। এ ঘটনায় মো. আলাউদ্দিন (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃত আলাউদ্দিনকে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সাভার মডেল থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ। এর আগে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার ভাকুর্তা ইউনিয়নের মোগরাকান্দা এলাকার মাহবুবের বাড়ির পাশের একটি বাগানে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় উদ্ধার পায় ওই গৃহবধূ। এরপর তার স্বামী বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে শনিবার সাভার মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, মামলার বাদী ভাকুর্তা ইউনিয়নের মোগরাকান্দা এলাকার এবিসি ইটভাটায় লেবার সরদার আলাউদ্দিনের সাথে সাড়ে সাত হাজার টাকার কাজ করেন। শুক্রবার সকালে সেই পাওনা টাকা দেওয়ার কথা বলে বাদীকে স্থানীয় মাহবুরের বাড়ির সামনে ডেকে নেয় আলাউদ্দিন। এ সময় আলাউদ্দিনের নির্দেশে তার দুই সহযোগী ওয়াহিদ ও শহিদ বাদীকে পাশের একটি বাগানে নিয়ে হাত-পা বেঁধে মারধর করে। একই সময় জুয়েল নামে অপর সহযোগী বাদীর বাড়িতে গিয়ে তার স্ত্রীকে কৌশলে ঘটনাস্থলে নিয়ে আসে। পরে ওয়াহিদ ও জুয়েল মিলে ওই গৃহবধূকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে। 

এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে চারজনকে আসামি করে শনিবার সকালে সাভার মডেল থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে এবং লেবার সর্দার আলাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়। 

মামলার আসামিরা হলো ভাকুর্তা ইউনিয়নের মোগরাকান্দা এলাকার মৃত মজিবুর রহমানের ছেলে ওয়াহিদ (৩০), লালমনিরহাট জেলা সদরের উমাপতি হরনারায়ন গ্রামের মমিনুল হকের ছেলে জুয়েল (২০), কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী থানার মইদাম গ্রামের জহুর উদ্দিনের ছেলে আলাউদ্দিন (৪০) ও সহিদুর রহমান (৪০)।

সাভার মডেল থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ জানান, দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পরে মোগরাকান্দা এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আলাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে শনিবার দুপুরে আলাউদ্দিনকে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানোর পাশাপাশি ভুক্তভোগী ওই নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা