kalerkantho

রবিবার। ৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ২ সফর ১৪৪২

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট

ফেরি চলছে সীমিত, ঘাটে ৫০০ যান

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০২০ ২১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফেরি চলছে সীমিত, ঘাটে ৫০০ যান

শনিবার বেলা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে দেশের গুরুত্বপূর্ণ শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট হয়ে রাজধানীমুখী যাত্রীদের ভিড় শুরু হয়। তবে পদ্মা নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে এ রুটে ধারণক্ষমতার কম যানবাহন নিয়ে ফেরি চলছে সীমিত। ফেরিগুলো বিকল্প চ্যানেল দিয়ে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার ভাটি ঘুরে আসায় পারাপারেও বেশি সময় ব্যয় হচ্ছে। ফেরি অচলাবস্থার কারণে ঘাট এলাকায় পারাপারের অপেক্ষায় পাঁচ শতাধিক যানবাহন আটকে পড়ে যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

যাত্রী চাপ সামাল দিতে ঘাট এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করছে।

কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্রে জানা যায়, ঈদ শেষ হলেও শনিবার শিমুলীয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট হয়ে ঢাকাগামী দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের ভিড় শুরু হয়। কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোট ছিল যাত্রীতে পরিপূর্ণ। এদিকে পদ্মায় তীব্র স্রোতের কারণে বেশ কিছুদিন ধরেই এই রুটে ফেরি চলাচলে অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে। ডাম্ব ফেরিগুলো রয়েছে বন্ধ। আর প্রতিদিন দিনের বেলা সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করলেও সন্ধ্যার পর বন্ধ রাখা হচ্ছে ফেরি। শনিবার সকাল থেকে এ রুটে রো রো ও কে টাইপসহ ৮টি ফেরি চলাচল করছে।

বিআইডাব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ী ঘাট পরিদর্শক আক্তার হোসেন বলেন, আজ সকাল থেকেই কর্মস্থলমুখী যাত্রীর চাপ রয়েছে। লঞ্চগুলোতে ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে  প্রশাসনও কাজ করছে।

বিআইডাব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ী ঘাটের সহকারী ম্যানেজার ভজন কুমার সাহা বলেন, নদীতে তীব্র স্রোত ও ডুবোচর রয়েছে। ডাম্প ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। রোরো ও কে টাইপ ৮টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। আমরা অ্যাম্বুল্যান্স, কাঁচামালবাহী ট্রাক, জরুরি যানবাহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছি। খোলা যাত্রী ফেরিতে বেশি পরিমাণে পারাপার হওয়ায় কিছু যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। যাত্রীদের চাপ অনেক বেশি কিন্তু ফেরি চলাচল করছে কম তাই স্বাস্থ্যবিধি শতভাগ নিশ্চিতে আমরা নিরুপায়। তবে চেষ্টা করছি। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা