kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

রেকর্ড গড়ে নজর কাড়লেন রুয়েল

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচ। সেখানকার ১৮ বছর বয়সী এক পেসারের দিকে কারই বা আলাদা নজর ছিল! কিন্তু প্রতিযোগিতার শেষ রাউন্ডের প্রথম দিনে সব আলো নিজের দিকে টেনে নিলেন সিলেটের রুয়েল মিয়া। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের কোনো পেসারের হয়ে গড়লেন সেরা বোলিংয়ের কীর্তি।

বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে চিটাগংয়ের বিপক্ষে ম্যাচে মাত্র ২৬ রানে ৮ উইকেট নিয়েছেন রুয়েল। পেস বোলারদের সেরা বোলিংয়ে ছাড়িয়ে গেলেন ২০১২ সালে ঢাকা মেট্রোর জার্সিতে রংপুরের বিপক্ষে তালহা জুবায়েরের ৩৫ রানে ৮ উইকেটের অর্জন। সব মিলিয়ে শীর্ষে অবশ্য উঠতে পারেননি। ইনিংসে ৯ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব আছে সানজামুল ইসলাম, সাকলায়েন সজীব, আবদুর রাজ্জাক ও মোশাররফ হোসেনের। চারজনই বাঁহাতি স্পিনার।

এত বড় কীর্তি অথচ বয়স মাত্র ১৮ বছর; আর এটি রুয়েলের মাত্র তৃতীয় প্রথম শ্রেণির ম্যাচ। তাতে প্রথম স্পেলে দুই উইকেটের পর দ্বিতীয় স্পেলে ছয় শিকার। তাঁর বিস্ফোরক বোলিংয়ে মাত্র ১০৬ রানে অল আউট চিটাগং। দিনশেষে ৫ উইকেটে ১৮৬ রান তুলে এরই মধ্যে ৮১ রানের লিড নিয়েছে সিলেট।

জাতীয় লিগের শিরোপা নির্ধারণী দ্বৈরথ শুরু হয়েছে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে। পয়েন্ট টেবিলে সবার ওপরে এই দুটি দল। খুলনার পয়েন্ট ২৯.৯৬, ঢাকার ২৪.১। শেষ রাউন্ডের এ ম্যাচে টস জেতে খুলনা। এরপর মাঠের খেলায় দুই দলই সমানে সমান। তাইবুর রহমানের সেঞ্চুরি এবং আবদুল মজিদ, শুভাগত হোমদের ফিফটিতে ২৭৩ রান করায় ঢাকায় সন্তুষ্টির সুযোগ রয়েছে। আর প্রতিপক্ষের ৭ উইকেট তুলে নেওয়ায় খুব অখুশি থাকার কথা নয় খুলনারও। পেসার আবদুল হালিম নিয়েছেন ৫ উইকেট।

প্রথম স্তরের অন্য ম্যাচটির প্রথম দিনও এগিয়েছে প্রায় অভিন্ন চিত্রনাট্যে। সোহরাওয়ার্দী শুভর সেঞ্চুরি ও আরিফুল হকের হাফসেঞ্চুরিতে ৮ উইকেটে ২৬৩ রান করে রংপুর। রাজশাহীর দেলোয়ার হোসেন চারটি ও মোহর শেখ নেন তিন উইকেট।

দ্বিতীয় স্তরের বরিশাল-ঢাকা ম্যাচের প্রথম দিনেই রানবন্যা। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের উইকেটে আগের রাউন্ডে পেসাররা রাজত্ব করলেও শেষ রাউন্ডের প্রথম দিনটি ব্যাটসম্যানদের। ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে ৬ উইকেটে ৩৩৮ রান তুলেছে বরিশাল। ফজলে মাহমুদ একাই করেন ১৪১ রান। সঙ্গে ওপেনার শাহরিয়ার নাফীসের ৪৪ এবং সাত নম্বরে নামা সালমান হোসেনের অপরাজিত ৬৯ রানে বিশাল সংগ্রহের পথে ছুটছিল বরিশাল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

প্রথম দিন শেষে

ঢাকা-খুলনা : ঢাকা ৯০ ওভারে ২৭৩/৭ (তাইবুর ১১০, মজিদ ৬৬, শুভাগত ৫৬; হালিম ৫/২৭, জিয়াউর ২/২০)।

রংপুর-রাজশাহী : রংপুর  রংপুর ৮৫ ওভারে ২৬৩/৮ (সোহরাওয়ার্দী ১০৫, আরিফুল ৫৭; দেলোয়ার ৪/৫৫, মোহর ৩/৫৩)।

বরিশাল-ঢাকা মেট্রো : বরিশাল ৯০ ওভারে ৩৩৮/৬ (ফজলে ১৪১, সালমান ৬৯*, নাফীস ৪৪; তাসকিন ২/৪০, আসিফ ২/৭৪)।

চিটাগং-সিলেট : চিটাগং ৩৫.১ ওভারে ১০৬ (তাসামুল ২১; রুয়েল ৮/২৬)। সিলেট : ৪৮ ওভারে ১৮৬/৫ (অমিত ৫৫, কাপালি ৪১; ইরফান ৪/৭৬)।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা