kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

চেক বাউন্সের অভিযোগ বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী ও কোয়েনা মিত্রের বিরুদ্ধে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ জুলাই, ২০১৯ ১৫:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চেক বাউন্সের অভিযোগ বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী ও কোয়েনা মিত্রের বিরুদ্ধে

চেক বাউন্সের অভিযোগ পাওয়া গেছে সিনেমা জগতের দুই অভিনেতার বিরুদ্ধে। যে অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় কলকাতার ছোট ও বড়পর্দার পরিচিত মুখ বিশ্বজিৎ চক্রবর্তীকে শুক্রবার ৬ মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিলেন আলিপুরের মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট শুভদীপ চৌধুরি। একই কারণে ছ’মাসের কারাদণ্ডের শাস্তি পেলেন বলিউডের বাঙালি অভিনেত্রী কোয়েনা মিত্র।

ম্যাজিস্ট্রেট শুভদীপ চৌধুরি নির্দেশ দেন, যে টাকা বিশ্বজিৎবাবু যে অর্থ ধার নিয়েছিলেন, তা ফেরত দেওয়ার পাশাপাশি প্রাপককে অতিরিক্ত ৩০ শতাংশ টাকাও দিতে হবে। গোটা ঘটনা নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি অভিনেতা। শুধু বলেন, তাঁর আইনজীবীই যা বলার বলবেন। অভিনেতার আইনজীবী সৈকত দত্ত মজুমদারের কথায়, আইন অনুযায়ী কোনও অপরাধে কারও দু’বছর বা তার কম শাস্তি হলে আদালত সঙ্গে সঙ্গেই জামিনে মুক্তি দেয়। এক্ষেত্রেও জামিন পেয়েছেন বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী। আগামী একমাসের মধ্যে রায়ের বিরুদ্ধে আবেদন জানাবেন তাঁর আইনজীবী।

সৈকত দত্ত, ধর্মতলার একটি সংস্থার কাছ থেকে ২০১৫ সালে বিশ্বজিৎ ব্যক্তিগত কারণে দশ লক্ষ টাকা ধার নিয়েছিলেন। সংস্থার কর্তার অভিযোগ, ধার শোধ করতে গিয়ে অভিনেতা তাঁকে যে চেকগুলি দেন, সেগুলো ব্যাংকে জমা দেওয়ার পর বাউন্স করে। এরপরই অভিনেতার বিরুদ্ধে আলিপুর আদালতে মামলা দায়ের করেন সংস্থার কর্তা। দু’বছর ধরে মামলাটি চলার পরে সম্প্রতি শুনানি শেষ হয়। শেষে শুক্রবার কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন বিচারক।

এদিকে, বছর ছয়েক আগে মডেল পুনম শেঠী কোয়েনার বিরুদ্ধে চেক বাউন্সের অভিযোগ করেছিলেন। কোয়েনা ২২ লক্ষ টাকা ধার নিয়ে তিন লক্ষের চেক দিয়েছিলেন বলে জানান ওই মডেল। সেই চেকটিও বাউন্স করে। অর্থাৎ তাঁর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত অর্থ ছিল না। যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেন অভেনেত্রী। কিন্তু চলতি মাসেই আন্ধেরি নগরদায়রা আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট কেতরী চৌভান কোয়েনার যুক্তি খারিজ করে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে পুনরায় আবেদন করবে বলে জানিয়েছেন কোয়েনা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা