kalerkantho

সোমবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩০ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

ট্রেনে চড়ে পালাচ্ছিল চোর, বিমানে এসে ধরল পুলিশ

অনলাইন ডেস্ক   

২০ অক্টোবর, ২০২০ ০৯:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ট্রেনে চড়ে পালাচ্ছিল চোর, বিমানে এসে ধরল পুলিশ

এ যেন সিনেমার গল্প। ভারতের বেঙ্গালুরু থেকে ট্রেনে গয়না ভর্তি সিন্দুক নিয়ে পালাচ্ছিল চোর। তাকে ধরতে বিমানে কলকাতা এসে হাওড়া স্টেশনে দাঁড়িয়ে ছিল পুলিশ। 

তারপর হাতেনাতে ধরা। সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটিয়েছে বেঙ্গালুরু পুলিশ। জানা গেছে, স্টেশনের সিসিটিভি ফুটেজের সহযোগিতায় শেষ পর্যন্ত সেই চোরকে ধরতে পেরেছেন তদন্তকারীরা। গৃহ পরিচারক হিসেবে বেঙ্গালুরুতে কাজ করা বর্ধমানের কৈলাশ দাশ আপাতত বেঙ্গালুরু পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন।

বর্ধমানের বাসিন্দা কৈলাশ দাস প্রায় ছয় বছর ধরে বেঙ্গালুরুর জে পি নগরের রাজেশের বাড়িতে কাজ করছিলেন। থাকতেন বাড়িরই চিলোকোঠার ঘরে। 

কয়েকদিন আগে বাড়ির এক সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন এবং তাকে নিয়েই ব্যস্ত হয়ে পড়েন অন্য সদস্যরা। হাসপাতালে সেই রোগীকে ভর্তি করার ফলে দিনের বেশিরভাগ সময় বাড়ি পাহারার দায়িত্বে একাই থাকতেন দাস। 

গত ৯ অক্টোবর রোগীকে নিয়ে পুরো পরিবার খুবই ব্যস্ত হয়ে পড়েছিল। সেই সুযোগে বাড়ির ইলেকট্রনিক সিন্দুকে থাকা গয়না হাতানোর জন্য গোটা সিন্দুকটিই তুলে নেন কৈলাশ দাস। সেখানে প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের সোনা ও হীরার গয়না রয়েছে।

সেসব নিয়ে মাইসুরু পালিয়ে যান কৈলাশ দাশ। এরপরই পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়। তদন্ত শুরু করে পুলিশ। সিন্দুক খুলতে গিয়ে ঘটে বিপত্তি। কৈলাশ একটি স্ক্রু ড্রাইভার দিয়ে সিন্দুক খুলতে গিয়ে সেটি আটকে যায় লকের জায়গায়। 

তারপর তিনি ঠিক করেন, বর্ধমানে ফিরে যাবেন। সে অনুসারে দুদিন আগেই হাওড়াগামী যশবন্তপুর এক্সপ্রেসে উঠে পড়েন। সেখানেই স্টেশনের সিসিটিভি দেখে পুলিশ খোঁজ পেয়ে যায় তার।

হাতেনাতে হাওড়া স্টেশনে তাকে ধরার জন্য পুলিশ বিমানে কলকাতা পৌঁছে যায়। পুলিশের পরিকল্পনাও সফল হয়। ট্রেন থেকে নেমে স্টেশন থেকে বের হওয়ার সময় তাকে ধরে ফেলে পুলিশ। উদ্ধার হয়েছে সমস্ত গয়না।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা