kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে থেমে থেমে যানজট (ভিডিও)

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

১ আগস্ট, ২০২১ ১৬:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে থেমে থেমে যানজট (ভিডিও)

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই শিল্পাঞ্চল এলাকায় থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। ফোরলেনের গাড়ি গোড়াই এলাকায় এসে একলেনে চলাচল করায় এই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে বলে গোড়াই হাইওয়ে পুলিশ জানিয়েছে। 

পুলিশ জানায়, সরকার আজ রবিবার থেকে দেশের সকল কারখানা চালু করার ঘোষণা দেন। কারখানা চালু হওয়ার ঘোষণা হওয়ার পর শনিবার সকাল থেকে শ্রমিকরা যে যেভাবে পারে কর্মস্থলে পৌছানোর চেষ্টা করে। মালভর্তি ট্রাক, খালি ট্রাক, পিকআপ, লেগুনা, সিএনজি, ব্যাটারী চালিত রিক্সা, ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল ও অ্যাম্বুলেন্সে হাজারো শ্রমিক কর্মস্থলে যাওয়ার চেষ্টা করেন এতে তাদের কয়েকগুন বেশি ভাড়া দিয়ে যেতে হয়। 

সন্ধার পর এই মহাসড়কে বাস চলাচল শুরু হয়। তবে যাত্রীবাহী বাস না চললেও কারখানার শ্রমিকবাহী বাস চলাচল বৃদ্ধি পায়। রাতে একাধিকবার মহাসড়কের গোড়াই এলাকায় থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হয়। মহাসড়কের গোড়াই এলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। এজন্য দুইপাশ দিয়ে একলেনে যানবাহন চলাচল করতে হয়। আজ রবিবার সকাল থেকে মির্জাপুরে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া সকাল থেকে মহাসড়কে যানবাহ চলাচল বৃদ্ধি পায়। বেলা এগারোটার দিকে মহাসড়কের গোড়াই এলাকায় উভয়পাশে প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। ওই এলাকায় একলেনে যান চলাচল করায় থেমে থেমে চলছে যানবাহন। 
 
পুরাতন ইপিজেডে কর্মরত শ্রমিক চায়না বেগম জামালপুর থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত ২৫০ টাকা ভাড়া দিয়ে এসছেন। এলেঙ্গা থেকে ২০জন যাত্রী ১৫০ টাকা করে ভাড়া দিয়ে পিকআপে চন্দ্রা যাচ্ছেন। অথচ প্রকৃত ভাড়া মাত্র ৭০ টাকা। তিনি বলেন, সরকার করোনা ভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচাতে লকডাউন দিয়েছেন। আবার বাস বন্ধ রেখে কারখানা খুলে দিলেন। আমারা যারা কারখানায় কাজ করি তারা কিভাবে কর্মস্থলে যাবো। সে চিন্তা সরকার না করেই কারখানা খুলে দিলেন। আমরা যে অবস্থায় বিভিন্ন পরিবারের লোকজনের সঙ্গে গাদাগাদি করে উন্মুক্তভাবে যাচ্ছি এতে মনে হয় করোনার বংশ বিস্তার হবে।  

সিরাজগঞ্জের চৌহালী থেকে আসা কোনাবাড়ি এলাকার ইস্টান্ডার্ড কারখানায় চাকরি করেন। একই পিকআপের যাত্রী তষোকা কারখার শমিক রুবেল মিয়া। তারা জানান, ২৮ জন শ্রমিক চন্দ্রা পর্যন্ত ৮ হাজার টাকা ভাড়ায় পিকআপটি নিয়েছেন। সরকার করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রনে লকডাউন দিচ্ছে। আর শ্রমিকদের মরার জন্য বাস বন্ধ রেখে কারখানা চালুর ঘোষণা দিয়েছেন। চাকরি বাঁচাতে ঝুকি নিয়েই কর্মস্থলে যেতে হচ্ছে। পিকআপের চালক ফরিদ মিয়া জানান, এলেঙ্গা থেকে ৩ হাজার টাকা ভাড়ায় যাত্রী নিয়ে চন্দ্রা যাচ্ছেন। 

গোড়াই হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আদম আলী জানান, গতকাল শনিবার সন্ধার পর থেকে শ্রমিকবাহী বাসসহ সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে। গোড়াই এলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণকাজ চলায় যানবাহন উভয়পাশে একলেনে চলাচল করছে। এ কারণে ওই এলাকায় থেমে থেমে  ধীর গতিতে চলছে যানবাহন।



সাতদিনের সেরা