kalerkantho

শনিবার । ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ব্যাংকার্স ক্রিকেট...

বসুন্ধরা ব্যাংকার্স চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফির জমকালো উন্মোচন

২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বসুন্ধরা ব্যাংকার্স চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফির জমকালো উন্মোচন

তাঁদের পেশা টাকাকড়ির হিসাব রাখা। তবে জটিল সে হিসাবের বেড়াজাল থেকে ক্ষণিকের মুক্তির পথ পেয়েছেন দেশের বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তারা। তাঁদের নিয়েই যে প্রথমবারের মতো মাঠে গড়িয়েছে ব্যাংকার্স চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০২০। দেশের মোট ১৬টি ব্যাংকের অংশগ্রহণে গতকাল এ টুর্নামেন্টের জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সায়েম সোবহান আনভীর, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. ফজলে কবিরসহ বিভিন্ন বেসরকারি ব্যাংকের নির্বাহী প্রধানরা। ছবি : সৌজন্য

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ব্যাংকে টাকাকড়ির হিসাব রাখাই তাঁদের কাজ। দিনের পর দিন এমন জটিল কাজ করে যাওয়া ব্যাংকারদেরও টানে ক্রিকেট। এ জন্য ব্যাংকারদের নিয়েই হচ্ছে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টের পৃষ্ঠপোষকতা করছে বসুন্ধরা গ্রুপ। গতকাল ব্যাংকার্স চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফির জমকালো উদ্বোধন করেন দেশের শীর্ষ শিল্প উদ্যোক্তা পরিবার বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক  সায়েম সোবহান আনভীর। রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এক বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে এই টুর্নামেন্টের জার্সি ও ট্রফির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। ১৬টি ব্যাংক অংশ নিচ্ছে এই টুর্নামেন্টে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।  বিশেষ অতিথি ছিলেন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান। আরো ছিলেন টুর্নামেন্টের আয়োজক প্রতিষ্ঠান  এইস-এর প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও ইশতিয়াক সাদেক। সাবেক তারকা ক্রিকেটার মোহাম্মদ রফিককে আজীবন সম্মাননা জানানো হয় এই অনুষ্ঠানে। রফিককে উত্তরীয় পরিয়ে দেন গভর্নর ফজলে কবির।            

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির কৃতজ্ঞতা জানান বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ ব্যাংকার্স চ্যাম্পিয়ন ট্রফির আয়োজন অসাধারণ উদ্যোগ। আমি অংশগ্রহণকারীদের শুভ কামনা জানাচ্ছি। আশা করছি এই টুর্নামেন্ট দারুণভাবে উপভোগ করবে সবাই। স্পন্সর হওয়ার জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’ গভর্নর আরো বলেন, ‘ভিন্নধর্মী এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজনকারী প্রতিষ্ঠানকে ধন্যবাদ। মানুষের দৈনন্দিন  জীবনে  বিনোদন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পর্যাপ্ত বিনোদনের অভাব উৎপাদনশীলতা কমিয়ে দেয়। আশা করছি এই আয়োজনের মাধ্যমে ব্যাংক এবং ক্রীড়া জগতের মধ্যে একটি চমৎকার বন্ধন তৈরি হবে।’

বিশেষ অতিথি অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান ও ইস্টার্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী রেজা ইফতেখার বলেন, ‘এ ধরনের টুর্নামেন্ট আয়োজন অত্যন্ত ইতিবাচক ও সময়োপযোগী। এই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী ক্রিকেটার এবং ব্যাংকারদের মধ্যে একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠবে। একই সঙ্গে ব্যাংকারদের খেলাধুলার জগতে সম্পৃক্ত হওয়ার সুযোগ তৈরি হলো।’

টুর্নামেন্ট আয়োজক প্রতিষ্ঠান এইস-এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইশতিয়াক সাদেক নিজের সন্তুষ্টি জানালেন এই টুর্নামেন্ট নিয়ে, ‘দেশের ব্যাংকারদের জন্য এমন একটি আয়োজন করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। দেশের দুই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গন ব্যাংক ও ক্রীড়া জগতের মধ্যে একটি মজবুত বন্ধন তৈরি করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমাদের দেশের গর্ব ক্রিকেট খেলোয়াড়রা খেলা থেকে অবসরে যাওয়ার পরে তাঁদের জীবনের বাকি সময়টুকু ব্যাংকিং খাতে ব্যয় করে দেশের অর্থনীতিতে যাতে অবদান রাখার সুযোগ পান এটাই আমাদের প্রত্যাশা। সে লক্ষ্যে ভবিষ্যতে এ ধরনের আয়োজন করার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা