kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩ ডিসেম্বর ২০২০। ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

অষ্টম শ্রেণি ► বিজ্ঞান

সুনির্মল চন্দ্র বসু সহকারী অধ্যাপক সরকারি মুজিব কলেজ সখীপুর, টাঙ্গাইল

২৩ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দ্বিতীয় অধ্যায়

জীবের বৃদ্ধি ও বংশগতি

 

জ্ঞানমূলক প্রশ্ন

১।        কোষ কী?

            উত্তর : জীবদেহের গঠন ও কাজের একককে কোষ বলে।

২।        কোষ বিভাজন কাকে বলে?

            উত্তর : যে প্রক্রিয়ায় জীবকোষের বিভক্তির মাধ্যমে একটি থেকে দুটি বা চারটি কোষের সৃষ্টি হয় তাকে কোষ বিভাজন বলে।

 

৩।        মাইটোসিস কী?

            উত্তর : যে প্রক্রিয়ায় মাতৃকোষের নিউক্লিয়াস একবার বিভাজিত হয়ে সম-আকৃতির, সমগুণসম্পন্ন ও সমসংখ্যক ক্রোমোজোম বিশিষ্ট দুটি অপত্য কোষ সৃষ্টি করে তাকে মাইটোসিস বলে।

৪।        মিয়োসিস কী?

            উত্তর : যে কোষ বিভাজনে মাতৃকোষের নিউক্লিয়াসটি পরপর দুইবার বিভাজিত হলেও ক্রোমোজোমের বিভাজন ঘটে মাত্র একবার। ফলে অপত্য কোষে ক্রোমোজোমের সংখ্যা অর্ধেক হয়ে যায় তাকে মিয়োসিস বলে।

৫।        ক্যারিওকাইনেসিস কী?

            উত্তর : নিউক্লিয়াসের বিভাজনকে ক্যারিওকাইনেসিস বলে।

৬।       সাইটোকাইনেসিস কী?

            উত্তর : সাইটোপ্লাজমের বিভাজনকে সাইটোকাইনেসিস বলে।

 

৭।        ইন্টারফেজ কী?

            উত্তর : ক্যারিওকাইনেসিস ও সাইটোকাইনেসিস শুরু হওয়ার আগে কোষটির নিউক্লিয়াসকে কিছু প্রস্তুতিমূলক কাজ করতে হয়। কোষটির এ অবস্থাকে ইন্টারফেজ বলে।

৮।        জাইগোট কাকে বলে?

            উত্তর : পুং ও স্ত্রী জননকোষের মিলনের ফলে সৃষ্ট প্রথম কোষকে জাইগোট বলে।

৯।        ক্রোমোজোম কী?

            উত্তর : নিউক্লিয়াসে অবস্থিত নির্দিষ্টসংখ্যক সুতার মতো যে অংশ জীবের বংশগত বৈশিষ্ট্য বহন করে তাদের ক্রোমোজোম বলে।

১০। ক্রোমাটিড কী?

            উত্তর : প্রতিটি ক্রোমোজোম লম্বালম্বিভাবে বিভক্ত হওয়ার পর যে দুটি সমান আকৃতির সুতার মতো অংশ গঠন করে তাদের প্রত্যেকটিকে ক্রোমাটিড বলে।

১১। সেন্ট্রোমিয়ার কী?

            উত্তর : ক্রোমাটিড দুটি যে নির্দিষ্ট স্থানে পরস্পর যুক্ত থাকে তাকে সেন্ট্রোমিয়ার বলে।

১২। হ্যাপ্লয়েড কী?

            উত্তর : এক প্রস্থ ক্রোমোজোমকে হ্যাপ্লয়েড (n) বলে।

১৩। ডিপ্লয়েড কী?

            উত্তর : দুই প্রস্থ ক্রোমোজোমকে ডিপ্লয়েড (2n) বলে।

১৪। বংশগতি কী?

            উত্তর : মাতা-পিতার বৈশিষ্ট্য যে প্রক্রিয়ায় সন্তান-সন্ততিতে সঞ্চারিত হয় তাকে বংশগতি বলে।

১৫। বংশগত বৈশিষ্ট্য কী?

            উত্তর : সন্তানরা পিতা-মাতার যেসব বৈশিষ্ট্য পায়, সেগুলো বংশগত বৈশিষ্ট্য।

মন্তব্য