kalerkantho

মঙ্গলবার । ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৪ নভেম্বর ২০২০। ৮ রবিউস সানি ১৪৪২

বাংলাদেশি টিকার পরীক্ষায় আগ্রহী নেপাল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশি টিকার পরীক্ষায় আগ্রহী নেপাল

এবার দেশের বাইরেও নজর কেড়েছে বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেকের করোনার সম্ভাব্য টিকা ‘ব্যানকভিড’। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্ভাবন প্রার্থীর তালিকায় গ্লোব বায়োটেকের এই সম্ভাব্য টিকাসহ তিনটি টিকার নাম রয়েছে। ব্যানকভিডের ব্যাপারে শুরুতেই এগিয়ে এসেছে নেপাল। সে দেশে এই টিকা পরীক্ষার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে নেপাল সরকার। সেই সঙ্গে দেশটি গ্লোব বায়োটেকের কাছ থেকে ২০ লাখ ডোজ টিকা নেওয়ার কথাও জানিয়েছে।

এরই মধ্যে নেপাল সরকারের সঙ্গে এসংক্রান্ত প্রাথমিক একটি সমঝোতা চুক্তি করেছে গ্লোব বায়োটেক। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় গ্লোব কার্যালয়ে নেপালের রাষ্ট্রদূত ডা. বংশীধর মিশ্র ও গ্লোবের চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদের মধ্যে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে।

অনুষ্ঠানে নেপালের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বাংলাদেশ আর নেপালের প্রকৃতি-পরিবেশ ও মানুষের শারীরিক পরিস্থিতিতে অনেক মিল রয়েছে। ফলে আমরা গ্লোবের এই টিকার প্রতি আগ্রহী হয়েছি। এ টিকা সফল হলে তা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া হবে। বাংলাদেশের জন্য তো বড় অর্জন হবেই।’

গ্লোবের চেয়ারম্যান বলেন, ‘নেপালের আনমল নামের একটি প্রতিষ্ঠান আমাদের কাছ থেকে ২০ লাখ ডোজ টিকা নিতে এখনই আগ্রহ দেখিয়েছে। এ ছাড়া নেপাল সরকার সেখানে আমাদের টিকার ট্রায়াল (পরীক্ষা) করবে। এটা আমাদের আরেক দফা অর্জন।’ একই সঙ্গে আরো একাধিক দেশ এর মধ্যেই টিকা নেওয়ার জন্য আগাম বুকিং দিতে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে বলে জানান তিনি।

গ্লোব বায়োটেক সূত্র জানায়, তারা গত ৮ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসের টিকা তৈরির কাজ শুরু করে। পর্যায়ক্রমে তারা প্রাণীর দেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে ভালো সাফল্য পেয়েছে। এর ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক উদরাময় রোগ গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) মানবদেহে এই টিকার পরীক্ষা চালাতে গ্লোবের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়। আইসিডিডিআরবিই এখন প্রয়োজনীয় অন্যান্য বিষয় ঠিক করে সরকারের কাছে আবেদন জানাবে।

এদিকে দেশে ফ্রান্সভিত্তিক সানোফি পাস্তর কম্পানির উদ্ভাবিত টিকার পরীক্ষা চালাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)। এ বিষয়ে উভয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে চুক্তির প্রক্রিয়া এগিয়ে চলছে বলে বিএসএমএমইউ সূত্র জানায়। এ ছাড়া ভারতের বায়োটেক কম্পানির একটি টিকার পরীক্ষা বাংলাদেশে করার প্রক্রিয়াটি অনেক দিন ধরেই ঝুলে আছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা