kalerkantho

সোমবার । ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১১ রবিউস সানি ১৪৪১     

সারা দেশে লবণের দাম বৃদ্ধি নিয়ে গুজব

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৮ | পড়া যাবে ৪৪ মিনিটে



সারা দেশে লবণের দাম বৃদ্ধি নিয়ে গুজব

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির ধকল কাটতে না কাটতেই দেশের বিভিন্ন স্থানে চলছে লবণের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির চেষ্টা। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাই লবণ কিনতে মানুষের ভিড় বেড়েছে। আর এতে তৈরি হচ্ছে নানা বিশৃঙ্খলা।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর মহাখালীতেও লবণ কেনার ধুম পড়েছে। কারওয়ানবাজারে চলছে হুলুস্থুল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া আরো দুই একটা বাজারে একই পরিস্থিতি চলছে বলে জানা গেছে।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে লবণ নিয়ে এই লঙ্কাকাণ্ডের খবর থাকছে কালের কণ্ঠের পাঠকদের জন্য।

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার)

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ৩৭৫ কেজি লবণ জব্দ করেছেন ইউএনও। জেলার শমশেরনগর, আদমপুর, মাধবপুর, মুন্সসিবাজারসহ বিভিন্ন বাজারে লবণ দাম বৃদ্ধির গুজবে রাতেই নিমিষেই ভোগ্যপণ্যের দোকান হতে হাজার হাজার কেজি লবণ বিক্রি হয়ে যায়। আর এ সুযোগ কাজে লাগাতে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী লবণ স্টক করতে চেষ্টা করেন। সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় ৩৭৫ কেজি লবণ জব্দ করেন এবং ব্যবসায়ীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন তিনি।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ পরিদর্শক আরিফুর রহমান বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়াচ্ছে কিছু সুবিধাবাদী মানুষ। এই গুজব থেকে সাধারণ মানুষকে সচেতন থাকতে হবে। যারাই গুজব রাটাবে, পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশেকুল হক ৩৭৫ কেজি লবণ জব্দ ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) 

পেঁয়াজের ঝাঁজ কমতেই বগুড়ার নন্দীগ্রামে লবণের দাম বেড়ে যাচ্ছে গুজব ছড়িয়ে পড়ে উপজেলাজুড়ে। এমন খবরে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েন খুচরা ও পাইকারি দোকানগুলোতে।

এদিকে লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবে দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. শারমিন আখতার বিভিন্ন দোকানে অভিযান চালান। ব্যবসায়ীদের সর্তক করা হয়। জনগণকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি জানান, লবণের দাম বাড়েনি। এটা একটা গুজব। যারা এ গুজব রটাবে বা কৃত্রিম সংকট তৈরির জন্য মজুত রাখবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শওকত কবির বলেন, এগুলো গুজব। কেউ গুজব সৃষ্টি করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিয়ানীবাজার (সিলেট)

লবণের দাম বেড়ে যাচ্ছে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে সিলেটজুড়ে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা থেকে এমন খবরে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েন বিয়ানীবাজার উপজলার ভোগ্যপণ্যের দোকানগুলোতে। বাড়তি চাপে নিমিষেই ফুরিয়ে যায় বিয়ানীবাজার পৌরশহরের বিভিন্ন দোকানের লবণের স্টক। আবার অনেক ব্যবসায়ী বেশি দামে বিক্রির জন্য লবণ মজুদ করে রাখেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবণী শংকর কর বলেন, খবর পেয়ে পৌরশহরের কলেজ রোডে এসেছি। লবণের এজেন্ট জিয়াউর রহমান বলেছেন লবণের দাম বাড়েনি। আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে মাঠে নেমেছি।

বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী মাহবুব বলেন, উপজেলার কোথাও কোনো ব্যবসায়ী বেশি দামে লবণ বিক্রি করছেন এমন তথ্য পেলে আমরা আইনি ব্যবস্থা নেব। বেশি দামে লবণ কিনলে দোকানের রশিদ সংগ্রহে রাখার আহ্বান করেন তিনি।

টাঙ্গাইল (ভূঞাপুর)

এদিকে, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে পেঁয়াজের বাজারের আগুন থামতে না থামতেই এবার লবণের বাজারে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার সকালে বাজারে 'গুজব' ছড়িয়ে পড়ে ঢাকাতে প্রতিপ্যাকেট লবণ ১০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর এ গুজব দ্রুত পাড়া-মহল্লার মুদি দোকানেও ছড়িয়ে পড়ে। এতে বড় থেকে ছোট দোকানের সকল লবণ ফুরিয়ে যায়। নারী-পুরুষরা লাইনে দাঁড়িয়ে ৩৫ টাকার লবণ ৬০ টাকা কিনছে। কেউ ৫ প্যাকেট কেউ ১০ প্যাকেট পর্যন্ত লবণ নিচ্ছে।

ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোসা. নাসরীন পারভীন বলেন, লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব শুনে বাজারে গিয়ে দোকানিদের সতর্ক করেছি কেউ যেন বেশি দামে এবং কাউকে বেশি পরিমাণে লবণ না দেয়। আর বণিক সমিতি ও ইউপি চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে তারা যেন মাইকিং করেন যাতে জনগণ লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবে কান না দেন।

ঠাকুরগাঁও
 
ওদিকে, ঠাকুরগাঁওয়ে লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ও অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অপরাধে দুই ব্যবসায়ীকে আটক এবং এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিমের নেতৃত্বে শহরের বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালানো হয়।
 
এ সময় ক্রেতাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড বাজার থেকে লবণ ব্যবসায়ী আপন স্টোরের মালিক রফিকুল ইসলাম (৩৪) ও কালিবাড়ি বাজার থেকে মসুদ স্টোরের মালিক লবণ ব্যবসায়ী মো. মাসুদ (২৮) কে হাতেনাতে আটক করে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত রোডকাচাঁবাজার, বড়খোচাবাড়ি ও ভুল্লি বাজারে অভিযান চালায় এবং ব্যবসায়ীদের তাদের দোকানে বিক্রয়মূল্য ও মজুদ পণ্যের তালিকা টাঙানোর নির্দেশ দেন। এ ছাড়াও কেউ অতিরিক্ত দামে লবণ বা অন্য কোনো পণ্য বিক্রিয় করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন জেলা প্রশাসক।
 
জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, নির্ধারিত মূল্য ৩৫ টাকার পরিবর্তে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা দরে প্রতিকেজি লবণ বিক্রি করছিলেন ওই দুই ব্যবসায়ী। তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়েছে এবং সতর্ক করে দিয়ে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।
 
দিনাজপুর

দিনাজপুরে গুজব ছড়িয়ে লবণ ১২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। সাধারণ মানুষ দোনাকে দোকানে লবণ ক্রয়ের জন্য ভিড় জমাচ্ছে। অপরদিকে এক শ্রেণির মুনাফালোভী ব্যবসায়ী দোকান থেকে লবণ সরিয়ে ফেলেছে। এ কারণে টাকা দিয়েও লবণ পাচ্ছে না অনেকে। বেশি দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে শহরের বাহাদুর বাজারে দুটি দোকানে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফিরুজুল ইসলাম জানান, বাজার পরিদর্শনে বের হয়ে বাহাদুর বাজারে বেশি দামে লবণ বিক্রি করার অভিযোগে দুটি দোকানকে মোট ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি বলেন, যদি কেউ এ ধরনের গুজব ছড়ানোর অপচেষ্টা করে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। প্রতিটি উপজেলায় ম্যাজিস্ট্রেটরা বাজার মনিটরিংয়ে বেরিয়েছেন। লবণ নিয়ে গুজবে কাউকে জড়িত পেলে আটক করা হবে।

ঘাটাইল

লবণের দাম বাড়বে এমন গুজবে ঘাটাইল উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই হঠাৎ করেই সারা উপজেলায় লবণের দাম বাড়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ে। বাজার থেকে অনেককেই লবণের বস্তা কিনতে দেখা গেছে। এ সুযোগে অনেক খুচরা ও পাইকারি বিক্রেতাকে দাম বাড়িয়ে ৩০ টাকা কেজির প্যাকেটজাত লবণ ৫০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। পাইকারি বিক্রেতাকেও বস্তাপ্রতি এক শ টাকা বেশি বিক্রি করতে দেখা গেছে।

তবে এ ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কাউকে বাজার মনিটরিং করতে দেখা যায়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোসা. নুর নাহার বেগম বলেন, বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে লবণের সরবরাহ আছে। লবণের দাম বাড়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব। কেউ এ ধরনের গুজব সৃষ্টি করলে ও বেশি দামে লবণ বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ধামইরহাট

নওগাঁর ধামইরহাটে হটাৎ গুজব ওঠায় লবণের দোকানে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় দেখা দিয়েছে। জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার দুপুর থেকে উপজেলার সর্বত্র লবণ সংকট এবং দাম বৃদ্ধি পাবে এই মর্মে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তথ্যটি সঠিক কি-না তা না জেনে মানুষ মুঠোফোনসহ বিভিন্নভাবে বিভিন্ন জনের কাছে বার্তা পাঠায়। দুপুর ২টার পর থেকে মানুষ দলবেঁধে পাইকারি ও খুচরা লবণের দোকানে ভিড় জমায়। যার সারা মাসের জন্য প্রয়োজন ১ কেজি সে গুজবে পড়ে কিনেছে ৩-৪ কেজি। বেলা বাড়ার সাথে সাথে গ্রাম থেকে মানুষ ছুটে আসে লবণ কেনার জন্য। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গণপতি রায় বলেন, দেশে লবণের কোনো ঘাটতি নেই। পর্যাপ্ত লবণ মজুদ রয়েছে। তারপরও একটি মহল গুজব রটিয়ে মানুষকে বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলতে চায়। এ গুজব কান না দেওয়ার জন্য তিনি এলাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

এ ছাড়া উপজেলা প্রশাসন পুলিশকে নিয়ে বিভিন্ন দোকানপাট পরিদর্শন করে। কেউ বেশি দামে লবণ বিক্রি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ডামুড্যা

'লবণের দাম বাড়বে, হবে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা'- ডামুড্যা বাজারে এমন গুজবে লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। ডামুড্যা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বাজারে প্রায় সব দোকানে পাইকারি ও খুচরা দোকানে লাইন দিয়ে খুচরা বিক্রেতা ও ক্রেতাদের লবণ ক্রয় করতে দেখা গেছে। দাম নিয়ন্ত্রণে ও কৃত্রিম সংকট যাতে না তৈরি হয় এ জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাজার মনিটরিংয়ে নামানো হচ্ছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

জানা যায়, গতকাল সোমবার দিবাগত রাত থেকে লবণের কেজি ২০০ টাকা হবে এমন 'গুজব' ছড়িয়ে পড়ে। এ গুজবের কারণে মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে ডামুড্যা বাজারের লবণের ডিলার, পাইকারি বিক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতাদের দোকানে লবণ ক্রয়ের জন্য ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েতে দেখা যায়। বেলা ৩টার মধ্যে ডিলার ও অনেক পাইকারির ব্যবসায়ীর গোডাউন লবণশূন্য হয়ে যায়। খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য মাঠে নামে। হঠাৎ করে এভাবে লবণ ক্রয়ের কারণে অনেক ডিলার বা পাইকারি ব্যবসায়ীরাও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মর্তুজা আল মাইদ বলেন, আমাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত বাজারগুলোতে কাজ করছে।

বামনা

বরগুনার বামনায় লবণ ক্রয়ের হিড়িক পড়েছে। লবণের মূল্যবৃদ্ধি পাবে এই গুজবে উপজেলার প্রতিটি হাটে লবণ ক্রয়ের জন্য ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ করা গেছে। এদিকে উপজেলার প্রতিটি বাজারে অসাধু ব্যবসায়ীরা এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে লবণের মূল্যবৃদ্ধি করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

আজ মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে এই গুজবের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে। বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা বিষয়টি অবগত হওয়ার পরে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার ডৌয়াতলা বাজারের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীকে অধিকমূল্যে লবণ বিক্রির অভিযোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছে। 

বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা বলেন, দেশের কোথাও কোনো লবণের মূল্য বৃদ্ধি পায়নি। এ গুজবকে কাজে লাগিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীরা বেশি মূল্যে লবণ বিক্রির অভিযোগ পেয়েছি। আমি এর মধ্যে বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করে কয়েকজন ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করেছি।

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) 

কুড়িগ্রামের উলিপুরে পেঁয়াজের পর লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। এ সুযোগে উপজেলায় সর্বত্র লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মঙ্গলবার দুপুর থেকে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে লবণ কেনার জন্য দোকানে ভিড় করতে থাকে। এ পরিস্থিতিতে এ ধরনের মুনাফালোভী ব্যবসায়ী দোকান থেকে লবণ সরিয়ে ফেলে সংকট তৈরি করেন। প্রশাসনের নীরবতা নিয়ে নাগরিক সমাজের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে উলিপুর বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম মন্ডল বলেন, লবণের দাম বৃদ্ধির ধোয়াতুলে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা ফায়দা লুঠছে। গুজবে কান না দেওয়ার জন্য মাইকিং করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদের বলেন, আমরা প্রশাসনের পক্ষে থেকে মাইকিং করে জনসাধারণকে সচেতন করে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করব।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহের বাজারে পর্যাপ্ত লবণ থাকলেও গুজব দেখা দিয়েছে নাগরিকদের মাঝে। অনেকে লবণ কিনতে বাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। অথচ বাজারে লবণের কোনো সংকট নেই।

মঙ্গলবার বিকেলে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ হফিজুর রহমান ছোট বাজারে গিয়ে লবণ ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন। তিনি ব্যবসায়ীদের লবণ নিয়ে কোনো কারসাজি না করার আহ্বান জানান।

আমতলী (বরগুনা)

পেঁয়াজের দাম কমতে না কমতেই বরগুনার আমতলীতে লবণের দাম বেড়ে যাওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ছে আমতলী পৌরশহরে। এমন খবরে ক্রেতা পুরুষ মহিলারা লবণ কিনতে খুচরা ও পাইকারী দোকানগুলোতে ভিড় করছেন।

মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে লবণের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ে পৌর শহরসহ উপজেলার সর্বত্র। এ সুযোগে ব্যবসায়ীরা মহিলা ক্রেতাদের কাছ থেকে ৭০-৮০ টাকা কেজি দরে লবণ বিক্রি করছে বলে জানান অনেক মহিলা ক্রেতা। 

আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার বলেন, লবণের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলে যারা গুজব ছড়াবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন জনগণকে বিভ্রান্ত না জন্য তিনি আহ্বান জানান। তিনি ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা লবণের সংকট তৈরি করবেন না। কেউ যদি গুজব রটায় বা কৃত্রিম সংকট তৈরি করার চেষ্টা করেন তার বিরুদ্ধে কঠিন থেকে কঠিনতর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বেতাগী (বরগুনা)

বরগুনার বেতাগীতে ৩০ মিনিটের ব্যবধানে লবণের কেজি ২৫ টাকা থেকে এক লাফে ১৫০ টাকা হয়েছে। বেতাগী পৌর শহরসহ উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের প্রত্যেকটি বাজারে হঠাৎ এমন লবণের মূল্যবৃদ্ধির খবর পাওয়া গেছে। যার ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সাহেলা বেগম নামক এক ক্রেতা বলেন, সময় মতো পেঁয়াজ কিনে না রেখে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে তাই এই ভুল আর করতে চাই না। ২৫ টাকার লবণ ১৫০ টাকা হলেও কিনে রাখবো।

অনেক ক্রেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, পৌর শহর ও উপজেলার একাধিক মুদি দোকানদার লবণ দোকানে থাকা সত্ত্বেও লবণ নেই বলে এমন তথ্য দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাজীব আহসান কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একটি কুচক্রিমহল এমন গুজব ছড়াচ্ছে। এটি সম্পূর্ণই একটি গুজব। ইতোমধ্যে প্রতিটি বাজারে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গলাচিপা (পটুয়াখালী)

লবণ সংকটের গুজবে বেচা-কেনার হিড়িক পড়েছে গলাচিপার খুচরা বাজারে। গৃহিণী থেকে শুরু করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ঢল নেমেছে লবণের দোনগুলোতে। মঙ্গলবার বিকেল তিনটা থেকে উপজেলার পৌর এলাকাসহ গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন দোকানগুলোতে এ দৃশ্য দেখা যায়।

এদিকে অতিরিক্ত দামে লবণ কিক্রির অভিযোগে স্থানীয় গৌতম পাল নামের এক ব্যবসায়ীর ১৬ বস্তা লবণ আটক করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. রফিকুল ইসলাম জানান, এটি নিছক গুজব।

এ প্রসঙ্গে গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, এটি একটি গুজব। এক শ্রেণির প্রতারক ব্যবসায়ীরা গুজব ছড়িয়ে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি করার চেষ্টা করছে। দেশে লবণের কোনো ঘাটতি নাই। আমরা জনগণকে আশ্বস্ত করার জন্য মাইকিং করাচ্ছি। যদি কেউ অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির চেষ্টা করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বদলগাছী-মহাদেবপুর (নওগাঁ)

নওগাঁর বদলগাছীতে খোলাবাজারে লবণের দাম দ্বিগুণ বৃদ্ধিতে ক্রেতাদের মধ্যে কাড়াকাড়ি শুরু হয়েছে। একপর্যায়ে বাজারে লবণ সংকট দেখা দেয়। আজ মঙ্গলবার বিভিন্ন হাটে বাজারে দুপুরের পর হঠাৎ করে লবণের দাম বেড়ে যায়। ৭০/৮০ টাকা ধারা লবণ বিক্রি করতে করতে ১৫০/২০০ টাকা ধারা লবণ বিক্রি শুরু হয়।

এ সময় ক্রেতাদের মধ্যে লবণের দাম আরো বেড়ে যাওয়ার আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ২/১ দিনের মধ্যেই লবণ ৪০০ টাকা ধারা বাজার দর বৃদ্ধি পাবে। এই আশঙ্কায় ক্রেতারা ৫ কেজি ১০ কেজি করে লবণ কিনতে শুরু করে। নিমিষেই বেড়ে যায় লবণের দাম।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহা. আবু তাহির বদলগাছী সদর হাটে বাজার মনিটরিং করেন এবং সাধারণ জনতাকে বেশি দামে লবণ কিনতে নিষেধ করেন। কোনো দোকানদার বেশি দরে লবণ বিক্রি করলে সঙ্গে সঙ্গে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

রাণীনগর (নওগাঁ)

নওগাঁর রাণীনগরে পেঁয়াজের ঝাঁজ কমা শুরু করলেও হঠাৎ মঙ্গলবার সকাল ১১দিকে গুজব ছড়িয়ে পড়ে লবণ সংকটের খবর। এই গুজবে উপজেলা, ইউনিয়ন ও গ্রাম পর্যায়ের বিভিন্ন হাটবাজারে ১৫ টাকা কেজি খোলা লবন ৩০ টাকা এবং বিভিন্ন কম্পানির প্যাকেটজাত লবণ ৩০ টাকা থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে হুমড়ি খেয়ে সাধারণ মানুষ দোকানে গিয়ে কিনছে।

রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল-মামুন জানান, একটি গ্রুপ লবণ সংকটের গুজব ছড়িয়েছে। বর্তমানে বাজারে লবণের সংকট নেই। এই ধরণের গুজবের প্রতি কান না দেওয়ার জন্য এলাকার সর্বসাধারণকে অভিহিত করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে আমরা বাজার মনিটরিংয়ের জন্য মাঠে নেমেছি। বাজারের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দরে কেনা এবং বিক্রির অসংগতি পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।     

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা)

নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় বেশি দামে লবণ বিক্রিসহ বিভিন্ন অপরাধে আটজন ব্যবসায়ীকে পৌনে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার ভ্রাম্যমাণ আদালত উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারে দিনভর অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ওই ব্যবসায়ীদের এ জরিমানা করেন।

পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে বেশি দামে লবণ বিক্রিসহ বাজারে লবনের দাম বৃদ্ধির গুজব-সংক্রান্ত অভিযোগ ওঠে। এরইপ্রেক্ষিতে নির্বাহী হাকিম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল-ইমরান রুহুল ইসলামের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত মঙ্গলবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উপজেলা সদরের কেন্দুয়া বাজার এবং রামপুর ও বেখৈরহাটি বাজারে অভিযান চালান।

এর সত্যতা নিশ্চিত করে নির্বাহী হাকিম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল-ইমরান রুহুল ইসলাম জানান, বাজারে লবণের কোনো ঘাটতি নেই। তাছাড়া দামও বাড়েনি। এরপরও এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে লবণ বিক্রি করে আসছিল। এতে বাজারে লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবও ওঠে। এরই প্রেক্ষিতে বেশি দামে লবণ বিক্রি করাসহ বিভিন্ন অপরাধে অভিযুক্ত ব্যবসায়ীদের এ জরিমানা করা হয়েছে। জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ)

পেঁয়াজের পর লবণের দাম বেড়ে যাচ্ছে। আগামীকাল থেকে লবণ পাওয়া যাবে না- এমন গুজবে তিন ঘণ্টায় লবণের দাম বেড়ে তিনগুণ হয়েছে ময়মনসিংহের ত্রিশালে। সবকাজ ফেলে রেখে সাধারণ মানুষ লবণ কেনায় ব্যস্ত থাকায় অসাধু ব্যবসায়ীরা লুফে নিচ্ছে এ সুযোগ।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত বাজার পরিদর্শনে বের হলে মানুষের মাঝে স্বস্তি নেমে আসে। এ সময় এক অসাধু ব্যবসায়ীকে দশ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকির ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এরশাদ উদ্দিনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত বিকেল চারটার পৌর শহরের মোদক পট্রি এলাকায় অভিযান চালায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকির বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের গুজবের কারণে অসাধু ব্যবসায়ীরা হুট করেই ক্রেতাদের কাছে বেশী দামে লবণ বিক্রি করছে। লবণ পাওয়া যাবে না এমন গুজবে মানুষ লবণ কিনতে ব্যস্ত। আমরা অভিযান পরিচালনা করেছি। এখন আর ব্যবসায়ীরা বেশী দাম নিতে পারছে না। 

লোহাগড়া (নড়াইল)

নড়াইলের লোহাগড়ায় গুজব ছড়িয়ে পড়ায় লবণ নিয়ে শুরু হয়েছে লঙ্কাকাণ্ড। উচ্চ মূল্যে বিক্রি হচ্ছে লবণ। মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) বিকেলে বেশি দামে লবণ বিক্রি করায় ভ্রাম্যমাণ আদালত সুজন কুমার সরকার (৩১) নামে লোহাগড়া বাজারের এক দোকানদারকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করে। এ ছাড়া ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে লক্ষীপাশা ব্রিজের উপর দিয়ে ভ্যানে নিয়ে যাবার সময়ে ২৪০ কেজি লবণ উদ্ধার করেছে।

লোহাগড়া থানার এসআই মিল্টন কুমার দেবদাস জানান, জয়পুর গ্রামের বিনয় কৃষ্ণ সরকারের ছেলে  লোহাগড়া বাজারের মুদি ব্যবসায়ী সুজন স্টোরের মালিক সুজন কুমার সরকার বাজারে ক্রেতাদের কাছে ৪০ টাকা কেজি দরে লবণ বিক্রি করছিলেন। এ সময় ক্রেতা গোপীনাথপুর গ্রামের মনছুর মিয়ার স্ত্রী তানিয়া বেগমের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুকুল কুমার মৈত্র ওই ব্যবসায়ীকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, অনেক ব্যবসায়ী লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে পড়ায় উচ্চ মূল্যে বিক্রি করবার আসায় দোকান বন্ধ করে সটকে পড়েছেন। রাজুপুর গ্রামের বৃদ্ধ শাহা ৪/৫ কেজি লবণ কিনে বাড়ি যাচ্ছেন। চাকুরীজীবী শামীম ৫০ টাকা কেজি দরে ২০ কেজি কিনেছেন। এরকমের অন্তত শতাধীক ক্রেতাকে লবণসহ চোখে পড়লো।

সবাই বললেন, দাম বেড়েছে শুনে বেশি পরিমাণ লবণ কিনে রাখলাম। এদের কেউ কিনেছেন উচ্চ মূলে, কেউ কিনেছেন সঠিক মূল্যে। আবার অনেক ক্রেতা কোনো দোকানে লবণ না পেয়ে খালিহাতে বাড়ি ফিরেছেন।

ঝালকাঠি 

লবণের দাম বাড়ার খবর শুনে ঝালকাঠিতে মঙ্গলবার দুপুর থেকে নারী-পুরুষ লবণ কেনার জন্য রাস্তায় নেমেছেন। লবণ কিনতে বাজার, পাড়া মহল্লা ও সড়কে ভিড় করেন তারা। শহরে লবণের মূল্য ঠিক থাকলেও গ্রামের কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা তা বাড়িয়েছেন। এতে বিপাকে পড়ে গ্রামের মানুষও লবণ কিনতে ছুটছেন শহরের দোকানে। অনেকে ৫ থেকে ১০ প্যাকেট কিনে বাড়ি যাচ্ছেন।

এদিকে লবণের দাম বেড়েছে, এমন গুজব ঠেকাতে প্রেস ব্রিফিং করেছেন জেলা প্রশাসক। মাইকিং করেছে জেলা প্রশাসন ও তথ্য অফিস। এতো কিছুর পরও থামছে না লবণ নিয়ে মানুষের মধ্যে আতংক।

ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী বলেন, লবণ নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। এসব গুজবে কেউ কান দেবেন না। লবণের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। এখানে ৯টি লবণের কারখানা রয়েছে। সবগুলো কারখানার মালিকদের সঙ্গে জেলা প্রশাসনের কথা হয়েছে। এখানে কেউ মূল্য বৃদ্ধি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতোমধ্যে আমাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের দুটি টিম মাঠে কাজ করছে। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে গুজব ছড়িয়ে অতিরিক্ত মূল্যে লবণ কিনতে গিয়ে আটক হয়েছে ১৩ ক্রেতা। তাদের আজ মঙ্গলবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও শিবগঞ্জ হতে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ হতে বিপুল পরিমাণ লবণ জব্দ করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার টি এম মোজাহিদুল ইসলাম জানান, একটি চক্র লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে হঠাৎ করেই বাজারে অসন্তস সৃষ্টি করে হৈ চৈ ফেলে দেয়। সঙ্গে সঙ্গে ভোক্তা অধিকার, প্রশাসনের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে মাঠে নামে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশ। অভিযানে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুরাতন বাজার হতে ১২ জন এবং শিবগঞ্জ বাজার হতে ১ জনকে আটক করা হয়।  তাদের পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। পরবর্তিতে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারের সভাপতি এরফান আলী জানান, লবণের বিষয়ে গুজবে কান না দিতে জেলাজুড়ে মাইকিং করা হচ্ছে এবং কোনো ব্যবসায়ী যদি লবণের অতিরিক্ত মূল্য রাখে তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে দিতে অনুরোধ করেন।

চাঁদপুর

চাঁদপুরে গুজব ছড়িয়ে লবণের মূল্যবৃদ্ধি করার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এই নিয়ে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জরুরিসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ব্যবসায়ী, প্রশাসন, পুলিশর ও গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ এবং সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খানের সভাপতিত্বে জরুরি সভায় জানানো হয়, গুজব ছড়িয়ে বাজার অস্থিতিশীল করা এবং এই বিষয় সুনির্দিষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হবে।

এ সময় জেলা প্রশাসক জানান, তিনি নিজেও চাঁদপুর শহরের কয়েকটি বাজার পরিদর্শন করেছেন। আর এই সময় তার চোখেই ধরা পড়েছে অনেকেই একাধিক প্যাকেজ লবণ ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন। তবে বাড়তি লবণ বাড়িতে নিয়ে যাবার কারণ কোনো ক্রেতাই তাকে জানাতে পারেননি।

জেলা প্রশাসনের জরুরি এই সভায় বাজার পরিস্থিতি নিয়ে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার যুগ্ম পরিচালক আজিজুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শওকত ওসমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জামাল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম দুলাল, জেলা মার্কেটিং অফিসার রেজাউল ইসলাম, মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল আজাদ, চাঁদপুর চেম্বারের সহসভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায়, সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরী, ফারুক আহম্মদ, ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর, সোহেল রুশদী, কেএম মাসুদ, তালহা জুবায়ের প্রমূখ।

ডোমার (নীলফামারী)

নীলফামারীর ডোমারে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে পাচঁ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে ডোমার থানা পুলিশ। সেখানে গুজবে কান না দিতে মাইকিং চলছে।

এ ব্যাপারে ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোস্তাফিজার রহমান জানান, লবণ অতিরিক্ত দামে বিক্রির অভিযোগে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। মোবাইল কোর্টে বিচারের প্রক্রিয়া চলছে।

এ ব্যাপারে ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা জানান, গুজবে কান না দেওয়ার জন্য সারা উপজেলায় মাইকিং চলছে।

যশোর

‘লবণের কেজি দেড় শ টাকা হয়ে গেছে’। আজ মঙ্গলবার যশোরে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে। ‘লবণ সংকটের কারণে দাম বেড়েছে। দাম আরো বাড়বে।’ এমন গুজবে ক্রেতাদের মধ্যে লবণ কেনার হিড়িক পড়ে যায়। তবে যশোরের একাধিক এলাকার বাজার ঘুরেও কোথাও দেড় শ টাকা কেজি দরে লবণ বিক্রি হতে দেখা যায়নি।

মঙ্গলবার দুপুর থেকে এ গুজব চরম মাত্রা পায়। দুপুরের পর থেকে গুজবে বিভ্রান্ত মানুষ যশোরের বড় বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ও মুদি দোকানে লবণ কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে। এ সুযোগে কিছু খুচরা বিক্রেতা লবণের দাম বেশি নিলেও পাইকারী ব্যবসায়ীরা লবণ সংকটের কোনো কারণ নেই বলে জানিয়েছেন।

শাজাহানপুর (বগুড়া)

হঠাৎ লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজবে মরিয়া হয়ে উঠেছে ক্রেতা সাধারণ। প্রয়োজনের অতিরিক্ত লবণ মজুদ করে রাখতে বগুড়ার শাজাহানপুরের বিভিন্ন হাট-বাজার ও বন্দরের দোকান গুলিতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে ক্রেতারা।

অপরদিকে হঠাৎ চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় বেশী মুনাফা লাভের আশায় কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছেন এক শ্রেণি অসাধু ব্যবসায়ীরা।

মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার দুবলাগাড়ী হাটে সরেজমিনে দেখা গেছে, হাটের ৪-৫টি লবণের দোকানে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে ক্রেতারা। ক্রমেই লবণের দাম বৃদ্ধি পেতে পারে এই আশংকায় প্রয়োজনের অতিরিক্ত লবণ ক্রয় করছেন ক্রেতারা। এই সুযোগে বিক্রেতারাও বাজার দরের বেশী দামে লবণ বিক্রি করছেন।

খবর পেয়ে থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ ফোর্সসহ দুবলাগাড়ি হাটে পৌঁছলে পুলিশের উপস্থিতি দেখে বাজার দর স্বাভাবিক হয়।

পুলিশ ইন্সপেক্টর (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, খবর পেয়ে ফোর্সসহ দুবলাগাড়ি হাটে গিয়ে ব্যবসায়ীদের বাজার দরের বেশী বিক্রি করতে নিষেধ করা হয়েছে। এরপর স্বাভাবিক বাজার দরেই ক্রয় বিক্রয় হয়েছে।

নাটোর

নাটোরের সিংড়ায় লবণ নিয়ে গুজব ছড়িয়ে বেশি দামে লবণ বিক্রির দায়ে দুই জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার মাহাতো বিভিন্ন বাজারে অভিয়ান চালিয়ে দুই ব্যবসায়ীকে মোট ৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এ সময় সবাইকে গুজবে কান না দেওয়ার জন্য বিভিন্ন বাজারে পথসভা করেন ইউএনও। অপরদিকে সিংড়ার গুজব নাটোর জেরা শহরে প্রভাব পড়ে। অনেককে লাইন ধরে লবণ কিনতে দেখা যায়। তবে নাটোরে লবণের দাম স্বাভাবিক রয়েছে।

কাশিয়ানী (গোপালগঞ্জ)

লবণের গুজব, পেঁয়াজের পর গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী এবার ‘লবণ’ এর মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়লে লবণ কেনার হিড়িক পড়ে যায় হাট-বাজারে। মঙ্গলবার সকাল থেকে মানুষ লবণ কেনার জন্য হাট-বাজারে দোকানে গিয়ে ভিড় করেন। এই সুযোগে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বেশি দামে লবণ বিক্রি করে।

এ খবর ছড়িয়ে পড়ার পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির আহমেদ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিন্টু বিশ্বাস এবং অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আজিজুর রহমান থানার সকল দারোগা ও সহকারী দারোগা বিভিন্ন হাট-বাজারে গিয়ে বিষয়টি গুজব বলে সকলকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। কয়েকটি দোকানে তালা দেয় উপজেলা প্রশাসন। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লবণের কারণে কাউকে জেল জরিমানা করা হয়নি বলে জানা গেছে।

কাশিয়ানী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির আহমেদ বলেন, একটি চক্র গুজব ছড়িয়ে বেশি দামে লবণ বিক্রি করার পাঁয়তারা করছে। বিষয়টি জানার পর পরই সকলকে সাথে নিয়ে বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করায় তাদের সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে গেছে। বাজারে যথেষ্ট লবণ রয়েছে। তবে কেউ গুজব ছড়ালে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ)

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে লবণের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বাজারকে অস্থিতিশীল করার লক্ষে এক শ্রেণির অসাদু ব্যবসায়ী মূল্য বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে দেন। এতে সাধারণ মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে লবণ ক্রয়ের জন্য দোকান পাটে ভিড় জমান। এ সময় অনেক দোকানে ৩৫ টাকা প্যাকেটের লবণ ৮০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা যায় এবং লবণ ক্রয়ের হিড়িক পড়ে যায়।

আজ মঙ্গলবার উপজেলার সর্বত্র লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে পরে। এতে বিভ্রান্ত হয়ে গ্রাম-গঞ্জের ক্ষুদ্র মুদি ব্যবসায়ীরা গফরগাঁও বাজার থেকে চাহিদার অতিরিক্ত লবণ ক্রয় করে রিকসা-ভ্যান গাড়ি বোঝাই করে নিয়ে যেতে থাকেন। বিকাল ৫ টার দিকে রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় ভ্যান গাড়ি বোঝাই করে লবণ নিয়ে যাওয়ার সময় সাধারণ মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে লবণ বোঝাই দুটি ভ্যান গাড়িসহ চারজনকে আটক করে গফরগাঁও থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন।

সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মাহবুব উর রহমান গফরগাঁও বাজার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন। তিনি বলেন, দেশে লবণের কোনো সংকট নেই। কিন্তু লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে কৃত্রিম সংকট তৈরি ও বাজারকে অস্থিতিশীল করতে চাইছে। বাজার পরিদর্শন করে ব্যবসায়ীদের সাবধান করা হয়েছে।

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট)

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন বাজারে লবণের দাম বেড়েছে এমন গুজবে উঠেছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা থেকে লবণের দাম পেঁয়াজের মতো বেড়ে যাচ্ছে এমন গুজব চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে ক্রেতারা লবণ কিনতে ভিড় করেন পাটগ্রামের বিভিন্ন হাট-বাজারের দোকানগুলোতে।

খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য বাজার মনিটরিং করার জন্য মাঠে নামে। এ ব্যাপারে পাটগ্রাম উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) দীপক কুমার দেব শর্মা বলেন, লবণের মূল্যবৃদ্ধির গুজবের কারণে বিভিন্ন দোকানে ক্রেতাদের হিড়িক পড়েছে। খবর পেয়ে আমরা দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য পাটগ্রামের বিভিন্ন বাজারে গিয়েছি। এই মুহূর্তে লবণের কোনো সংকট নেই। এ কারণে দাম বৃদ্ধির সম্ভাবনাও নেই। তারপরেও যদি কোনো ব্যবসায়ী বা ডিলার গুজব ছড়িয়ে বাজার মূল্যের চেয়ে বেশি দামে লবণ বিক্রি করে তা হলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শরণখোলা (বাগেরহাট)

দাম বাড়ার গুজবে বাগেরহাটের শরণখোলায় লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। মঙ্গলবার বিকেল থেকে বস্তায় বস্তায় লবণ কিনতে শুরু করেছে সাধারণ ক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতারা। এই সুযোগে পাইকারি দোকানদারেরা দামও বাড়িয়ে দিয়েছে কেজিতে পাঁচ থেকে দশ টাকা। সন্ধ্যার মধ্যেই লবণ শূন্য হয়ে পড়ে উপজেলার হাট-বাজার।

এদিকে, হঠাৎ করে লবণের মূল্য বৃদ্ধির খবর শুনে আজ সন্ধ্যার পর থেকে উপজেলা প্রশাসন বাজার তদারকিতে নেমেছে। শরণখোলা থানা পুলিশের পক্ষ হতে মাইকিং করে গণসচেতনতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। লবণ গুজবে কান না দেওয়ার জন্য সবাইকে শতর্ক থাকতে বলা হচ্ছে। 

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস কে আব্দুল্লাহ আল সাইদ বলেন, গুজবে কান না দেওয়ার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়েছে। বাজার মনিটরিংয়ে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে পুলিশের টিম রয়েছে। ব্যবসায়ীদের এক-দুই প্যাকেটের বেশি লবণ বিক্রি করতে নিষেধ করা হয়েছে।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সরদার মোস্তফা শাহিন বলেন, লবণ গুজবের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাজার মনিটরিংয়ে নামা হয়েছে। হাতেনাতে ধরতে না পারলেও কিছু অনিয়মের কথা শোনা গেছে। বর্তমানে বাজার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আপাতত পাইকারি বিক্রি কন্ধ করতে বলা হয়েছে ব্যবসায়ীদের। বিভ্রান্ত হওয়ার কোনো কারণ নেই, দেশে পর্যাপ্ত লবণ মজুদ রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ

লবণের দাম বেড়ে যাবে এমন গুজবে নারায়ণগঞ্জের পাইকারী বাজারসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দোকানে দোকানে লবণ বিক্রির হিড়িক পড়েছে। মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) দুপুর থেকে লোকজন দোকানে ভিড় করতে থাকে।

তবে বিক্রেতারা জানান, দাম বাড়ানোর বিষয়টি তাদের জানা নাই। আগের দামেই বিক্রি করছে। এদিকে নিতাইগঞ্জে ফেসবুকে দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আব্দুল করিম (২২) নামের এক যুবককে আটক করেছে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.আসাদুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অন্যদিকে লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ লবণ মিল মালিক সমিতি। এ ব্যাপারে জনগণকে সচেতন করতে তারা লিফলেট বিতরণ ও ব্যানার টাঙিয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) আসাদুজ্জামান জানান, নিতাইগঞ্জে দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে দাম বেড়ে যাবে প্রচারণার পাশাপাশি ফেসবুকেও স্ট্যাটাস দেওয়ায় এক যুবককে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

লবণের সংকট ও দাম বৃদ্ধি বিষয়টি গুজব দাবি করে নারায়ণগঞ্জ লবণ মালিক গ্রুপ সভাপতি পরিতোষ কান্তি সাহা জানান, এ বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব। সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এক শ্রেণির প্রোপাগান্ডা প্রজাতির লোক এ ধরণের গুজব ছড়াচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

‘আমি আজকে আগের দামে পাঁচ শ বস্তা লবণ কিনেছি। কে বা কারা মোবাইল ফোনে গুজব ছড়াইছে লবণের দাম বাড়ছে। কিন্তু আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি লবণের দাম বাড়ে নাই। গুজবের কারণে মানুষ পাগল হইয়া লবণ কিনচে।’

প্রশাসনের অভিযান চলাকালে মঙ্গলবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার আউলিয়া বাজারে দাঁড়িয়ে হাত মাইকে কথাগুলো বলছিলেন ব্যবসায়ী মো. রহিদ মিয়া। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহের নিগার মাইক হাতে নিয়ে গুজবে কান না দেওয়ার আহবান জানান।

শুধু বিজয়নগর উপজেলাতেই নয় বেশি দামে লবণ বিক্রির গুজব ছড়িয়ে পড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায়। তবে প্রশাসনের তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসে। জেলায় পর্যাপ্ত লবণ মজুদ আছে বলেও নিশ্চিত করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, চারটি কম্পানির প্যাকেট জাত প্রায় ১৮ মেট্রিক টন, খোলা লবণ প্রায় ৩০ টন মজুদ আছে। এ ছাড়া আরো ১১০ টন লবণ বাজারে আসার পথে রয়েছে। যে কারণে লবণ সংকটের কোনো ধরণের কারণ নেই।

ডোমার (নীলফামারী)

নীলফামারীর ডোমারে মঙ্গলবার বিকেলে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে তিন ব্যবসায়ীকে আটক করেছে ডোমার থানা পুলিশ।

এ ব্যাপারে ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোস্তাফিজার রহমান জানান, লবণ অতিরিক্ত দামে বিক্রির অভিযোগে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। মোবাইল কোর্টে বিচারের প্রক্রিয়া চলছে

গাইবান্ধা

গাইবান্ধায় লবণের দাম বাড়ার গুজবে জেলা শহরসহ হাট-বাজারগুলোতে লবণ কেনাবেচার হিড়িক পড়েছে। তিতাস, পঁচা ও ফ্রেস লবণের ডিলার জেলা শহরের ভিএইড রোডের মেসার্স সবুর অ্যান্ড ব্রাদার্সের দোকান এবং গুদামে মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকেই লবণ কেনার হিড়িক পড়ে যায়। আবার কোথাও কোথাও লাইন ধরে খুচরা ও পাইকারীভাবে লবণ ক্রেতারা কিনছেন বলেও জানা গেছে।

জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল মতিন ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রসুন চক্রবর্তীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এ ধরণের গুজবের কোনো ভিত্তি নেই এবং লবণের কোনো সংকট বা মূল্য বৃদ্ধিরও কোনো কারণে নেই। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন চলছিল।

ধুনট (বগুড়া)

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় লবণের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগ ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিভিন্ন বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনাকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নির্দেশে পুলিশ তাদের আটক করে। এ ছাড়া অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রয়ের অভিযোগে মচিরতলা গ্রামের আব্দুল মান্নান নামে এক ব্যবসায়ীর ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা জানান, লবণের দাম বাড়েনি। এটা একটা গুজব। যারা এ গুজব রটাবে বা কৃত্রিম সংকট তৈরির জন্য মজুত রাখবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতি মধ্যেই ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। জনগণকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানান তিনি।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইসমাইল হোসেন বলেন, এটা একটি গুজব। এই গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট)

বাজারে লবণের সংকট দেখা দিতে পারে এমন গুজবে বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের সকল বাজার ঘাটে লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। মঙ্গলবার বিকেল ৪টা থেকে মোরেলগঞ্জ সদর বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে লবণের জন্য ছুটোছুটি শুরু হয়ে যায়।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রঞ্জণ চন্দ্র দে, থানার ওসি কে এম আজিজুল ইসলাম সদর বাজারে অভিযান চালান।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রয়োজন হলে ভ্রাম্যমাণ আদালত ২৪ ঘণ্টা দায়িত্ব পালন করবে।

এদিকে গুজবে কান না দেওয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসন, উপজেল ছাত্রলীগ ও বাজার ব্যবসায়ী সমিতির তরফ থেকে মাইকিং করে সকলকে সতর্ক করা হচ্ছে। মাইকে বলা হয়েছে, মোটা লবণ ২০ টাকা ও চিকন লবণ সর্বোচ্চ ৩০ টাকা দরে ক্রয় বিক্রয় চলবে।

বাঘারপাড়া (যশোর) 

পেঁয়াজের চড়া ঝাঁজের সাথে তাল মিলিয়ে লবণেও চড়া দাম হাকাচ্ছেন যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার কয়েকটি বাজারের ব্যবসায়ীরা। লবণের মূল্য বৃদ্ধির খবরে হিরিক পড়েছে বেচাকেনায়। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ লবণের দাম বৃদ্ধির খবরে বাজারে ছুটছেন লবণ কিনতে। খুচরা লবণ কেজি প্রতি ১০ থেকে ৩৫ টাকা বেশীতে বিক্রি হচ্ছে স্থানীয় বাজারগুলোতে। তবে প্যাকেটজাত লবণ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২ থেকে ৫ টাকা বৃদ্ধিতে।

বাঘারপাড়া উপজেলার চাড়াভিটা বাজার, নারিকেলবাড়িয়া বাজার, ছাতিয়ানতলা বাজারসহ বেশ কয়েকটি স্থানেও অস্বাভাবিক দামে লবণ বিক্রির খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে রাত ৭ টার দিকে খাজুরা বাজারের স্বরূপ দত্তের গোডাউন থেকে ৫০ কেজির ৫ বস্তা লবণ পাচারের উদ্দেশ্যে বের করা হয়। এ সময় পুলিশ দেখে লবণের বস্তা ফেলে পালিয়ে যায় তারা। 

এ ব্যাপারে খাজুরা পুলিশ ফাঁড়ির টুআইসি সুবেন্দ্র কুমার পাল লবণ জব্দের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, স্বরূপ দত্তের গোডাউন থেকে প্রতিদিন ৪০/৫০ বস্তা লবণ বিক্রি হয়। হয়তো প্রতিদিনের বেচাকেনার অংশ হিসেবে ওই লবণ কিনতে এসেছিল কেউ। দিনের বেলা কয়েকজন ব্যবসায়ী একটু বেশী দামে লবণ বিক্রি করেছে। তবে সন্ধ্যার পর থেকে স্থানীয় বাজারে টহল দেওয়া হচ্ছে। কেউ বেশী দামে বিক্রি করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এ ব্যাপারে জানতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানিয়া আফরোজের সাথে সেলফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ

গুজবে এক কেজি লবণ আশি টাকায় বিক্রি করায় ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌরসভার চন্ডীপাশা নতুন বাজারের আঞ্জু মিয়া নামে এক ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যামাণ আদালত ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর বাজার মনিটরিং করতে গিয়ে ইউএনও আব্দুর রহিম সুজন এ জরিমানা ধার্য্য করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওসি মনসুর আহাম্মেদ। এ ছাড়া আরো তিন বাজারে তিনজনকে মোট ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। 

অন্যদিকে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় দুই বাজারে বেশী দামে লবণ বিক্রি করা ও মজুদ রাখার অপরাধে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে রুমানা তুয়া উপজেলার জাটিয়া বাজারে গিয়ে দুই ব্যবসায়ীর দোকানে বেশী দামে লবণ বিক্রি ছাড়াও গুদামে লবণ মজুদ করে রাখেন। সত্যতা পাওয়ার পর ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে হযরত আলীকে ৪০ হাজার ও এনামুল হাসানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য করেন। এ ঘটনার পর সর্বত্রই এক ধরনের স্থিতিশীল অবস্থা বিরাজ করে।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির ধকল কাটতে না কাটতেই বিভিন্নস্থানে চলছে লবণের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির চেষ্টা। একরাতেই হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে সাধারণ ক্রেতাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। ১২০ টাকা কেজিতেও অনেক জায়গায় লবন বিক্রি হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই কৃত্রিম সংকট ঠেকাতে সোমবার রাত থেকেই বাজারে বাজারে অভিযানে নেমেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত চলে এ সকল অভিযান। এ সময় অতিরিক্ত মূল্যে লবণ বিক্রির অপরাধে বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে বিপুল পরিমাণ জরিমানা করা হয়। বিভিন্ন স্থান থেকে জব্দ করা হয় লবণ।

হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসা. শাহীনা আক্তার জানান, উপজেলার সবকটি বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় কয়েকজন ব্যবসায়ীর নিকট থেকে ৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। পাশাপাশি লবণ ক্রেতাদের নিকট থেকে নেওয়া অতিরিক্ত মূল্য ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তৌহিদ বিন হাসান জানান, কোথাও ১২০ টাকা করে লবণ বিক্রি হয়েছে বলে খবর এসেছে। উপজেলা প্রশাসন আভিযানে নেমেছে। লবণ মজুদ অথবা অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রির প্রমাণ পেলেই কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

চুনারুঘাট উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুসরাত ফাতিমা শশী বলেন, এ ব্যাপারে আমরা সতর্ক রয়েছি। বিভিন্ন স্থানে মাইকিংও করা হয়েছে। মুজদের চেষ্টাকালে পিকআপ ও টমটম ভর্তি প্রায় ৫০০ কেজি লবণ জব্দ করেছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ। তবে অভিযানকালে মজুদদাররা পালিয়ে যায়।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ)

হবিগঞ্জের মাধবপুরের বিভিন্ন হাট বাজারে লবণের দামবৃদ্ধির গুজব ও অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে ৮ ব্যবসায়ীকে ৫১ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে মূল্য তালিকা টানানোরও নির্দেশ প্রদান করা হয়।

বিকেলে মাধবপুর উপজেলা কর্মকর্তা তাসনূভা নাশতারাণ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়েশা আক্তার লবণের দামবৃদ্ধির গুজবে উপজেলা সদরসহ ধর্মঘর, চৌমুহনী, মনতলা, হরষপুর, নয়াপাড়া, জগদীশপুর, ছাতিয়াইন ও কালিকাপুর বাজারে বিভিন্ন মুদি দোকানে অভিযান পরিচালনা করেন।

তিনি জানান, কেউ যদি গুজব ছড়িয়ে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করার অপচেষ্টা করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরের সিংড়ায় লবণ নিয়ে গুজব ছড়িয়ে বেশি দামে বিক্রির দায়ে দুই জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার মাহাতো বিভিন্ন বাজারে অভিয়ান চালিয়ে দুই ব্যবসায়ীকে মোট ৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন। 

লবনের কেজি ২০০ টাকা হবে- এমন গুজব হঠাৎ করেই ছড়িয়ে পড়ে নাটোরের সিংড়ার বিভিন্ন হাটে-বাজারে। এ সময় লবণ কিনতে ভিড় করে সাধারণ মানুষ। মুহুর্তের মধ্যে ৩০ টাকা কেজির লবণ  ১০০ টাকায় বিক্রি শুরু করে ব্যবসায়ীররা। লোকজন লাইন ধরে লবন কিনতে শুরু করে।

নাটোর সদর আসনের এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুলের পক্ষ থেকে গুজবে কান না দিয়ে অতিরিক্ত  দামে লবণ ক্রয় না করতে নাটোর শহরে মাইকিং করেন।

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

গুজব ছড়িয়ে পড়ায় পঞ্চগড়ে হঠাৎ লবণ বিক্রির ধুম পড়েছে। শহর থেকে গ্রাম সর্বত্রই চলছে লবণ বেচাকেনা। মুদি দোকানগুলোতে সারাদিন বিরামহীনভাবে বস্তায় বস্তায় লবণ বিক্রি হয়েছে। বেশি বিক্রি হয়েছে খোলা লবণ। তবে গুজবকে কাজে লাগিয়ে কেউ কেউ বেশি দামে লবণ বিক্রি করে মুনাফা লুফে নিয়েছেন। গত মাসে যে লবণ বিক্রি হয়নি তা একদিনেই বিক্রি হয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিকেলের দিকে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে।

এদিকে পেঁয়াজের মতো লবণেরও দাম বেড়ে যাবে এমন গুজব ঠেকাতে মাইকিং ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাচ্ছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। প্রত্যেক উপজেলাতেই মাইকিং বের করা হয়েছে। মাইকিংয়ে গুজবে কান না দেয়ার জন্য অনুরোধ হয়। এদিকে লবণের গুজব ছড়িয়ে পড়ায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জরুরি সভা ডেকেছে জেলা প্রশাসক।

পঞ্চগড় বিসিক শিল্প সহায়ক কেন্দ্রের উপ-ব্যবস্থাপক মাহামুদুল হাসান জানান, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে চাষিরা লবণ উৎপাদন শুরু করেছেন। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে উৎপাদিত লবণের প্রায় সাড়ে ৬ লক্ষ মেট্রিক টন মজুদ রয়েছে। চাহিদার চেয়ে বেশি লবণ মজুদ রয়েছে।

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন জানান, গুজব ঠেকাতে মাঠ পর্যায়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন কাজ করছে। ইতোমধ্যে লবণের প্রচুর মজুদ রয়েছে জানিয়ে এলাকায় এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। গুজবে কান না দিতে তিনি পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

বামনা (বরগুনা)

মঙ্গলবার দুপুর থেকে বরগুনার বামনা উপজেলায় লবণের মূল্য বৃদ্ধি পাবে এই গুজবে বিভিন্ন হাট-বাজারে লবণ বিক্রেতার দোকানে ক্রেতাদের হিড়িক পড়েছে। এ সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী লবণের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অধিক মূল্যে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। 

সদ্য যোগদানকৃত বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা দুপুরেই বিভিন্ন বাজার পরিদর্শনে গিয়ে চারজন ব্যবসায়ীকে অধিক মূল্যে লবণ বিক্রির অভিযোগে মোট ৫৬ হাজার টাকা অর্থদণ্ড  করেন। 

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে উপজেলার সকল মসজিদে মাইকিং করে সকলকে অবহিত করা হয় এটা একটি গুজব। দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ লবণ মজুদ আছে। একটি মহল সারা দেশব্যাপী এই গুজব ছড়াচ্ছে। তাই সকলকে লবণ সংকটের গুজবে কান না দেওয়ার জন্য মসজিদের মাইকথেকে অনুরোধ করা হয়।

মাদারীপুর প্রতিনিধি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মূল্যবৃদ্ধির গুজব আতঙ্কে মাদারীপুরের বিভিন্ন বাজারে অগ্রিম লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। খুব দ্রুতই লবণশূন্য হয়ে গেছে স্থানীয় দোকানগুলোতে। 

এদিকে বাজার মূল্যের বেশি দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে কালকিনির ফাসিয়াতলা বাজারের দাস স্টোরের মালিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেল থেকে জেলার বেশ কয়েকটি বাজারের দোকানগুলোতে লাইন দিয়ে এ লবণ কেনার চিত্র দেখা গেছে। এ সময় ক্রেতারা ১০০ টাকা দরে কেজিতে লবণ কিনেছেন।

মাদারীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুদ্দিন গিয়াস বলেন, আমরা বাজার মনিটরিং করছি। বাজারে লবণের কোনো সংকট নেই। সব গুজব। অতিরিক্ত দামে কেউ লবণ বিক্রি করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দেওয়া হবে।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি জরুরি। তদন্ত করে ব্যবস্থ্য নেওয়া হচ্ছে। এক দোকানীকে জরিমানাও করা হয়েছে। বিভিন্ন বাজারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত রয়েছে বাজার মনিটিরিংয়ের জন্য।

মান্দা (নওগাঁ)

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ হঠাৎ গুজবে নওগাঁর মান্দায় অস্থির হয়ে উঠেছে লবণের বাজার। মঙ্গলবার বিকেল থেকে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে কয়েকগুণ বেশি দামে লবণ বিক্রি শুরু হওয়ায় ভোক্তারা বিচলিত হয়ে পড়েন। এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীদের এ কারসাজি বন্ধে বিকেল থেকে অভিযানে নেমেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

এ ঘটনার পর সন্ধ্যায় প্রসাদপুর বাজার বণিক সমবায় সমিতির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন ইউএনও আব্দুল হালিম। পরে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে প্রসাদপুর বাজার, সতিহাটসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে মাইকিং শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন। তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে অসাধু ব্যবসায়ীদের এ কারসাজি। 

ইউএনও আব্দুল হালিম জানান, মান্দায় লবণের কোনো ঘাটতি নেই। প্রত্যেকটি গুদাম ও ব্যবসায়ীদের নিকট পর্যাপ্ত লবণের মজুদ রয়েছে। আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। এখনও বেশি দামে লবণ বিক্রির পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি।

তানোর (রাজশাহী)

তানোরে বিভিন্ন বাজারে লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার বিকাল থেকে তানোর গোল্লাপাড়া বাজারসহ বিভিন্ন বাজারের দোকানে ক্রেতারা ভিড় জামায়। তানোর গোল্লাপাড়া বাজারে বিকেল থেকে দোকানে লবণ পাওয়া যাচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে তানোর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা বিকালে গোল্লাপাড়া বাজারে মনিটরিং করেন। কিন্তু দুই একটি দোকান ছাড়া অধিকাংশ দোকানে লবণ পাওয়া যায়নি। লবণের দাম বৃদ্ধি করার কারণে নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে গোল্লাপাড়া বাজারের চিমান্তর লবণের দোকানে ১ হাজার টাকা এবং মুন্ডুমালা বাজারের রাকিব স্টোরে ২ হাজার টাকা জমিনা করেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর উপজেলা প্রসাশনের পক্ষ থেকে উপজেলার বাজারগুলোর মসজিদে মসজিদে মাইকিং করা হয়। এতে বলা হয় লবণের দাম অতিরিক্ত না নেবার জন্য দোকানদারদের সর্তক করা হয়। বিকাল থেকে তানোর গোল্লাপাড়া বাজারে পুলিশ টহল দিচ্ছেন।

তানোর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নাসরিন বানু বলেন, লবণের কোনো সঙ্কট নাই। গুজব সৃষ্টি করে কেউ লবণের বাড়তি দাম নিলেই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাজারে প্রচুর পরিমাণ লবণ মজুদ আছে। কাজেই এটি সঙ্কটের কোনো সুযোগ নাই। 

তানোর থানা অফিসার ইনচার্জ ওসি (তদন্ত) রাকিবুল হাসান বলেন, লবণের ঘটনাটি একটি গুজব। তারপর কেউ অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি করলে সঙ্গে সঙ্গে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাজারে আমাদের পুলিশ পায়ে হেটে টহল দিচ্ছে।

চাটমোহর (পাবনা)

পাবনার চাটমোহরে নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্যে লবণ বিক্রির অভিযোগে লুৎফর রহমান নামের এক মুদি দোকানদারকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে উপজেলার রেলবাজারে বিভিন্ন দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইকতেখারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, আসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় জনগণকে জিম্মি করে এবং লবণ সংকট সৃষ্টি করে বেশি দামে বিক্রি করছিল। এ বিষয়ে অবহিত হয়ে বাজার মনিটরিংয়ে বের হয়ে ঘটনার সত্যতা পাই এবং এর সাথে জড়িত এক মুদি দোকানদারকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও আরো তিন দোকানীকে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা জড়িমানা আদায় করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে লবণ কেলেঙ্কারীতে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ মঙ্গলবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করে। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থেকে ১২, গোমস্তাপুরে ১ এবং শিবগঞ্জে অপর ১ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার মোজাহিদুল ইসলাম জানান, বাজারে লবণ সংকট এ ধরণের অসত্য তথ্যে ছাড়িয়ে দেওয়া হয়। দুপুরের পর থেকে ২৮ টাকার আয়োডিন যুক্ত লবণের বাজার বাড়তে থাকে। আতংকিত মানুষ লবণ ক্রয়ে ভিড় জমায় দোকানে ও পাইকারী মুদিখানায়। বর্তমানে অধিকাংশ মুদি দোকানে লবণ নেই।

এমন পরিস্থিতি বিবেচনায় জেলা প্রশাসন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ভ্রাম্যমাণ আদালতসহ আইন-শৃংখলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা শুরু করে। এ সময় লবণ কেলেঙ্কারীতে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয় ১৪ জনকে।

এদিকে, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স লবণ গুজবে কান না দেওয়ার আহবান জানিয়ে জেলা শহরে মাইকিং করে বলে জানান চেম্বার সভাপতি এরফান আলী। 

কালকিনি (মাদারীপুর)

হঠাৎ করে ১৩০ টাকা হবে লবণের কেজি এমন গুজবে মাদারীপুরের কালকিনি পৌর এলাকার ভুরঘাটা, কালকিনি পরান ও নতুন বাজারে লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। এতে করে চরম লবণ সংকট দেখা দিয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কয়েকটি বাজারের দোকানগুলোতে লাইন দিয়ে এ লবণ কেনার চিত্র দেখা গেছে। তবে গুজব প্রতিরোধে ওই বাজারগুলো থানা পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

এ বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসলে তারা থানা পুলিশকে নিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক অভিযান শুরু করে। এ সময় অনেক দোকানিরা আটকের ভয়ে দোকান তালাবন্ধ করে পালিয়ে যান। গুজবে কান না দিতে এবং নির্ধারিত মূল্যে লবণ বিক্রি করতে উপজেলা বিভিন্ন মাইকিং করাছে প্রশাসন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, আমরা বাজার নিয়ন্ত্রণে জন্য অভিযান চালিয়েছি।

কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি)

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় লবণের দাম বাড়ছে এমন গুজবে বেশি দামে লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। লবণ সংক্রট নেই, পর্যাপ্ত লবণ আছে। গুজবে কান না দিতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে হঠাৎ উপজেলার বিভিন্ন বাজারের দোকানে লবণের জন্য ভিড় জমান ক্রেতারা। যে লবণ সোমবার ছিল ৩০ টাকা, সেই লবণ একদিনের ব্যবধানে ৮০-১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একজন ক্রেতা ৫-১০ কেজি পর্যন্ত লবণ ক্রয় করেন। লবণের দাম বাড়ছে এমন গুজব গ্রাম-গঞ্জে ছড়িয়ে পরে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দীন বলেন, লবণের দাম বৃদ্ধি এটি একটি গুজব। গুজবে কান না দেওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলার বাজার গুলোতে মাইকিং করা হচ্ছে। গুজবে কার না দেওয়ার জন্য সকলকে অনুরোধ করা হয়েছে।

ধামরাই (ঢাকা)

ঢাকার ধামরাইয়ে লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজবে অসাধু ব্যবসায়ীরা অতিরিক্ত মূল্যে লবণ বিক্রি করায় ৮ জন ব্যবসায়ীকে আটক করেছে থানা পুলিশ। তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা প্রদান করা হবে বলে জানান ঢাকা জেলার এসপি মারুফ সরদার।

জানা গেছে, উপজেলার কালামপুর, ধামরাই বাজার, কাওয়ালীপাড়া, নবগ্রাম বালিয়া, চৌহাট, সূয়াপুর, কুশুরা, ধানতারা, জয়পুরা, নওগা, বাথুলী, হাতকোড়া, বারবাড়িয়া, জলসীন, খড়ারচর বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে লবণ সংকটের গুজব ছড়িয়ে দেয় অসাধু ব্যবসায়ীরা। ফলে গ্রামাঞ্চলের সাধারণ মানুষের মাঝে লবণ ক্রয়ের হিড়িক পড়ে যায়।

ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ সরদার জানান, ধামরাই উপজেলায় ৮ জন অসাধু লবণ ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে। তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জেল জরিমানা প্রদান করা হবে।

এদিকে গুজবে কান না দেওয়ার জন্য পৌর মেয়র গোলাম কবিরের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল হক বলেন, লবণ সংকট ও লবণের দাম বৃদ্ধি নিছক গুজব ছাড়া কিছুই না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা