kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

গেইম

গেইমে রাজনীতি

সামীউর রহমান   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গেইমে রাজনীতি

দেশজুড়ে বইছে ভোটের হাওয়া। আগামী সংসদ নির্বাচন ছাড়া জমছে না কোনো আলোচনাই। গেইমের জগত্টাও এর বাইরে থাকে কী করে? রাজনীতির দুনিয়ার সঙ্গে গেইমের একটা অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক আছে। বেশির ভাগ গেইমারই পছন্দ করেন যুদ্ধভিত্তিক অ্যাকশন গেইম।

বিজ্ঞাপন

কল অব ডিউটি, মেডেল অব অনার অনেক গেইমই তো তৈরি করা হয়েছে বিশ্বযুদ্ধ, স্নায়ুযুদ্ধসহ নানা রাজনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে।

কম্পিউটার গেইমের শুরুর দিক থেকেই রাজনৈতিক সিমুলেশন গেইমগুলো বেশ জনপ্রিয়। শুধু সময় কাটানোর জন্য শখের গেইমাররাই নন, রাজনীতিসংশ্লিষ্ট নানা ব্যক্তিও দক্ষতা বাড়াতে শরণ নিতেন এসব গেইমের। স্নায়ুযুদ্ধের সময়ের প্রেক্ষাপট নিয়ে ‘ব্যালান্স অব পাওয়ার’ কিংবা তারও আগে আটারির ৮ বিটের কম্পিউটারে ইস্টার্ন ফ্রন্ট ১৯৪১,  সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন নিয়ে ‘ক্রাইসিস ইন ক্রেমলিন’সহ অনেক গেইমই প্রকাশিত হয়েছে নানা সময়ে। কম্পিউটারে নগর পত্তন ও ব্যবস্থাপনাবিষয়ক গেইমগুলো (সিম সিটি, স্কাই লাইনস) বেশ জনপ্রিয় বটে, তবে রাজনীতির পাঠের চেয়ে সেসবে অর্থনীতি আর ব্যবস্থাপনার যোগসূত্র বেশি।

রাজনৈতিক গেইমগুলোতে সংকট সমাধান এবং বৈদেশিক যোগাযোগ—এসব বিষয়েই গুরুত্ব দেওয়া হয় বেশি। এসব গেইমের মাধ্যমে প্রচার করা হয় রাজনৈতিক দর্শনও।

১৯৯১ সালে সোভিয়েত সংকট নিয়ে বানানো ক্রাইসিস ইন ক্রেমলিন গেইমে গেইমারের প্রধান কাজ ছিল অখণ্ড সোভিয়েত ইউনিয়ন টিকিয়ে রাখা। ২০১৭ সালে গেইমটি পুনঃ প্রকাশ করেছে নির্মাতা ক্রেমলিন গেইমস, আরো উন্নত করে। তবে এত দিনে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে হয়ে গেছে অতীত, বিদায় নিয়েছে কাস্তে-হাতুড়ি। তাই নতুন গেইমে কাজ হয়ে উঠেছে সোভিয়েতের পুনরুত্থান নিশ্চিত করা আর কমিউনিস্ট আদর্শ আরো ছড়িয়ে দেওয়া।

এ রকমই আরেকটি রাজনৈতিক গেইম ‘মাস্টার্স অব দ্য ওয়ার্ল্ড’। জিও-পলিটিক্যাল সিমুলেটর নামেও পরিচিত এই গেইমে বিশ্বের ১৭৫টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের ভেতর থেকে বেছে নেওয়া যাবে নিজের ভূমিকা। তারপর চালাতে হবে সেই দেশ। রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে নিতে হবে সামাজিক, অর্থনৈতিক, সামরিক সব ধরনের সিদ্ধান্ত। গেইমটি বেশ কয়েকটি ভাষায় পাওয়া যায়। আছে কয়েকটি সংস্করণও। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে আছে ‘কমান্ডার ইন চিফ’, ‘প্রেসিডেন্ট ফর এভার’সহ বেশ কয়েকটি গেইম।

পলিটিক্যাল সিমুলেটরগুলোর মধ্যে ‘রুলারস অব নেশনস’ গেইমের চরিত্রগুলো নির্মাণ করা হয়েছে বাস্তবের ওপর ভিত্তি করে। পোপ চতুর্দশ বেনেডিক্ট, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, চীনা প্রেসিডেন্ট হু জিনতাও, জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলসহ অনেক পরিচিত রাজনৈতিক নেতার আদলে গড়া চরিত্রদের নিয়েই খেলার স্বাধীনতা পাবেন গেইমার।

কিছুদিন আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ আক্ষেপ করেই বলেছিলেন, রাজনীতি কিভাবে মাঠের রাজনীতিবিদদের কাছ থেকে সরে চলে যাচ্ছে আমলা ও ব্যবসায়ীদের কর্তৃত্বে। এর অন্যতম কারণ সমাজের বিভিন্ন স্তরে রাজনৈতিক সচেতনতার অভাব। তাই নির্বাচনী মৌসুমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক ও সরকারব্যবস্থা সম্পর্কে খেলায় খেলায় জানার জন্য খেলা যেতেই পারে এসব সরকার চালানোর গেইমগুলো।



সাতদিনের সেরা