kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ আষাঢ় ১৪২৭। ৯ জুলাই ২০২০। ১৭ জিলকদ ১৪৪১

কবিতা-রঙিন দিন

নওশাদ জামিল   

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ৮ মিনিটে



কবিতা-রঙিন দিন

বইমেলার তৃতীয় দিনটি ছিল কবিতার, দেশ-বিদেশের কবিদের। বইমেলা আন্তর্জাতিক না হলেও, বিদেশের স্টল না থাকলেও গতকাল বুধবার যেন রূপ নিয়েছিল আন্তর্জাতিক বইমেলায়। অমর একুশে এবং বাংলা একাডেমির হীরক জয়ন্তী উদ্যাপন উপলক্ষে এদিন বাংলা একাডেমিতে স্লোভাকিয়া, মরক্কো, সুইডেন, তাইওয়ান, যুক্তরাজ্য, ভারত ও বাংলাদেশের কবিদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক কবিতা উৎসব। এ উৎসবে অংশ নিতেই ছুটে এসেছিলেন ভিনদেশের বরেণ্য কবিরা।

একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে সকাল ১০টায় উৎসবের প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলা কবিতার অতীত ও সাম্প্রতিক ধারা বিষয়ে প্রবন্ধ পাঠ করেন বাংলাদেশের কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা। জীবনানন্দ দাশের কবিতা অনুবাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন ব্রিটিশ কবি ও জীবনানন্দ গবেষক জো উইন্টার। এ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। সঞ্চালনা করেন কবি আসাদ চৌধুরী ও কবি-অনুবাদক কায়সার হক।

মুহম্মদ নূরুল হুদা তাঁর প্রবন্ধে বলেন, ‘বাংলাদেশের কবিতা চল্লিশের দশক থেকে সাম্প্রতিক শূন্য দশক পথ পেরিয়ে বিশ্বকবিতার ধারায় ক্রমেই সাবলীলভাবে যুক্ত হয়েছে।

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ এ দেশের কবিতার এক বড় প্রভাবক। নানা ধরনের নিরীক্ষাকে আলিঙ্গন করে আমাদের কবিতা মানুষের মুক্তির অঙ্গীকার ধারণপূর্বক নতুন দিকে ধাবিত হচ্ছে।’

জো উইন্টার তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বাঙালি কবি জীবনানন্দ দাশ মানুষের মনের ধূসর অঞ্চলে তাঁর কবিতার আলো ফেলেছেন, যা বাংলার সীমানা পেরিয়ে বিশ্বপাঠককে আকৃষ্ট করেছে।

এ অধিবেশনে কবিতা পাঠে অংশ নেন সুইডেনের কবি বেনৎ বার্গ, স্লোভাকিয়ার কবি মিলান রিচার, মরক্কোর কবি বেনাইসা বোমালা, নরওয়ের কবি এরলিং কিতেনসেন, তাইওয়ানের কবি লি কুই-শিন, লিন ফো-অর, লি রিও-ইয়াং, ড. ফাং ইয়া-চিন, তাই চিন-চো, চিন জিউ-জেন, নেপালের কবি বিধান আচার্য, চেট নাথ ক্যানেল প্রমুখ।

সৈয়দ শামসুল হক সভাপতির বক্তব্যে বলেন, ‘ভাষা আমাদের বিভক্ত করে আর কবিতা আমাদের একতাবদ্ধ করে। কবিতার শুদ্ধ শব্দে আমরা জীবন চলার আলো সঞ্চয় করি। চেক থেকে বাংলাদেশ— সব জায়গাতেই গণহত্যার মতো ভয়াবহ অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে কবিদের যেতে হয়েছে। এই দুঃস্বপ্নের রাত পেরিয়ে আলোকিত ভোরের ঠিকানা কবিরাই দিতে পারেন বিশ্বজুড়ে।’

বিকেল ৪টায় মেলার মূলমঞ্চে কবিতা উৎসবের দ্বিতীয় অধিবেশনে কবিতা পাঠে অংশ নেন সুইডেনের কবি লার্স হেগার, লত্তে সেদেরহোলম, ভারতের কবি রাসবিহারী দত্ত ও আনসার উল হক, বাংলাদেশের কবি রুবী রহমান, কবি আলতাফ হোসেন, হাবীবুল্লাহ সিরাজী, মুহাম্মদ সামাদ, আনোয়ারা সৈয়দ হক, অসীম সাহা, জাহিদুল হক, শিহাব সরকার প্রমুখ। এই অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন কবি সৈয়দ শামসুল হক। সভাপতিত্ব করেন কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী। অধিবেশন সঞ্চালনা করেন কবি মুহাম্মদ সামাদ।

সভাপতির বক্তব্যে কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, অমর একুশে এবং বাংলা একাডেমির হীরক জয়ন্তী উদ্যাপন উপলক্ষে আয়োজিত দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক কবিতা উৎসব আয়োজন করে বাংলা একাডেমি বিভিন্ন মহাদেশের কবিদের মেলবন্ধনের সুযোগ করে দিয়েছে।

কবিতা উৎসব শেষে সন্ধ্যার দিকে জাগৃতি প্রকাশনীর স্টলের সামনে যেতেই দেখা গেল বেশ ভিড়। সেখানে এসেছেন কিছুদিন আগে মৌলবাদীদের হামলায় নিহত প্রকাশক দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক। তাঁকে দেখামাত্র গণমাধ্যমকর্মীরা ঘিরে ধরেন। এ সময় তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘বাংলা একাডেমি বিদেশ থেকে এত লোক নিয়ে আসে, মূল মঞ্চে কত বুদ্ধিজীবী কত বক্তব্য দেন, অথচ তাঁদের কেউই দীপন-অভিজিৎ বা খুন হওয়া ছেলেদের সম্পর্কে কিছু বলেন না। মিথ্যার পতাকা হাতে নিয়ে সবাই। আমি সত্য বলতে এসেছি। সত্য প্রকাশের যন্ত্রণা আছে।’ দুঃখ করে তিনি বলেন, ‘আমার ছেলে মারা গেছে, এ নিয়ে আমার যন্ত্রণা আছে। আসলে সত্য প্রকাশের যন্ত্রণা আছে। বুদ্ধিজীবীরা যদি মারা যাওয়া এই সোনার ছেলেদের নাম উচ্চারণ না করেন তাহলে তাঁরা কিভাবে প্রগতিশীল হন?’

বাংলা একাডেমির তথ্যকেন্দ্র থেকে জানা যায়, গতকাল মেলায় নতুন বই এসেছে মোট ৬৩টি। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য চারটি বইয়ের তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

সেরা দশ গল্প : বইটির লেখক জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। তিনি আমাদের কথাসাহিত্যের উজ্জ্বলতম নাম। তাঁর অসংখ্য গল্পের মধ্য থেকে ১০টি গল্প বাছাই করে এ বই। প্রকাশ করেছে অন্যপ্রকাশ। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ।

গল্পকার হুমায়ূন আহমেদ তাঁর মুনিশয়ানায় বর্ণনা করেছেন বহুমাত্রিক জীবনের আখ্যান। ভিন্ন দ্যুতিতে উদ্ভাসিত এসব গল্পের মধ্যে রয়েছে—‘সৌরভ’, ‘উনিশ শ’ একাত্তর’, ‘জলিল সাহেবের পিটিশন’, ‘শিকার’, ‘অয়োময়’, ‘মন্ত্রীর হেলিকপ্টার’, ‘অচিন বৃক্ষ’, ‘পিশাচ’, ‘চোখ’ ও ‘ছায়াসঙ্গী’। প্রতিটি গল্পই তাঁর পাঠকের চেনা, পরিচিত। একমলাটে এসব গল্প পাঠকের জন্য হতে পারে আনন্দের খোরাক। ১১০ পৃষ্ঠার এ বইটির দাম ২২৫ টাকা।

লেখাজোখার কারখানাতে : সাহিত্য বিষয়ক প্রবন্ধ বইটির লেখক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। কথাসাহিত্য তাঁর ধ্যানজ্ঞান হলেও বিচিত্র বিষয় নিয়ে লিখেছেন দেদার। বিদেশি লেখক ও বিদেশের সাহিত্য নিয়েও লিখেছেন প্রচুর। বইটিতে পত্রস্থ হয়েছে বিদেশের সাহিত্য ও লেখক সম্পর্কে নানা প্রবন্ধ ও নিবন্ধ। ইউরোপ-আমেরিকা ও লাতিন সাহিত্য ছাড়াও পৃথিবীর নানা দেশের সাহিত্য নিয়ে তাঁর লেখা চিন্তায়-মননে যেমন সমৃদ্ধ, তেমনই আনন্দদায়ক। বইটি প্রকাশ করেছে বেঙ্গল পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন শিল্পী রফিকুন নবী।

সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বাংলাদেশের মননশীল ও সৃজনশীল সাহিত্যে যে বহুমাত্রিক ধারা সৃষ্টি করে চলেছেন, তা এ দেশের সাহিত্যকে বিশেষ বৈশিষ্ট্যে উজ্জ্বল করেছে। আশির দশকে বিশ্বসাহিত্যের নানা প্রতিবন্ধকতা নিয়ে তিনি পত্রিকায় বহু কলাম লিখেছেন। তা পাঠকের অভিজ্ঞতার দিগন্তকে প্রসার করেছে। এসব প্রবন্ধগুচ্ছ থেকে ২৬টি প্রবন্ধ নিয়ে এ বই। তাঁর পঠন-পাঠন অতলস্পর্শী। তাঁর মনন বৈদগ্ধ ও বিশ্লেষণ সাহিত্যের রুচি নির্মাণেও নবচেতনার সঞ্চার করেছে। ভিন্ন স্বাদের এ গ্রন্থের মূল্য ৩৫০ টাকা।

তেলবাজ : উপন্যাসটির লেখক কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল। পেশায় সাংবাদিক হলেও তাঁর প্রকৃত জায়গা সৃজনশীল লেখালেখির জগতে। গল্প-উপন্যাস, শিশুতোষ, রম্য রচনা, সায়েন্স ফিকশনসহ সাহিত্যের নানা শাখায় তাঁর অবাধ বিচরণ। লেখক ইতিমধ্যে রম্য উপন্যাস লিখে অর্জন করেছেন খ্যাতি এবং বিপুল পাঠকের ভালোবাসা। তাঁর এ বইটিও রম্য রচনা। প্রকাশ করেছে অনন্যা। বইটির প্রচ্ছদ আকর্ষণীয়, এঁকেছেন ধ্রুব এষ। মোস্তফা কামালের বর্ণনা অত্যন্ত সাবলীল ও আকর্ষণীয়। ঝরঝরে ও তরতাজা ভাষায় তিনি এ উপন্যাসে তুলে ধরেছেন রোমাঞ্চকর কাহিনী। তাতে দেখা যায়, দমফাটা হাসির মধ্যেও রয়েছে জীবনযাপনের নানা টানাপড়েন ও অন্য রকম এক আখ্যান। বইটির মূল চরিত্র তেলায়েত তরফদার। তার নামের সঙ্গে তেলের একটা সম্পর্ক জড়িয়ে। মানুষ হিসেবেও সে তেমন। ফলে মানুষ তাকে ডাকে তেলবাজ নামে। একজন মেধাহীন, অযোগ্য মানুষ কী করে উন্নতির শিখরে পৌঁছল তার অনুপম আখ্যান এ উপন্যাস। বইটির দাম ২২৫ টাকা।

প্রজেক্ট মাস্টোডন : সায়েন্স ফিকশন সংকলনটির অনুবাদক মুনির রানা। সাংবাদিকতার পাশাপাশি অনুবাদ, গবেষণা, প্রবন্ধ-নিবন্ধসহ শিল্প-সাহিত্যের নানা বিষয় নিয়ে তিনি কাজ করছেন দীর্ঘদিন ধরে। বইটি অনুবাদের। পৃথিবীর বিখ্যাত আটটি সায়েন্স ফিকশন নিয়ে চমৎকার এ বইটি প্রকাশ করেছে জনান্তিক। প্রচ্ছদ করেছেন শিবু কুমার শীল। বইটির মূল্য ১৮০ টাকা।

অন্যান্য নতুন বই : গতকাল মেলায় গল্প ১৩, উপন্যাস ১২, প্রবন্ধ ৪, কবিতা ১০, গবেষণা ২, ছড়া ২, শিশুসাহিত্য ৬, জীবনী ১, রচনাবলি ১, মুক্তিযুদ্ধ ২, ভ্রমণকাহিনী ১, ইতিহাস ১ ও অন্যান্য বিষয়ের ৮টি বই প্রকাশিত হয়েছে।

মেলায় আসা নতুন বইয়ের মধ্যে রয়েছে—অবসর থেকে প্রকাশিত হরিশংকর জলদাসের ‘চিত্তরঞ্জন অথবা যযাতির বৃত্তান্ত’, তাম্রলিপি থেকে গুলতেকিন খানের কবিতার বই ‘আজো, কেউ হাঁটে অবিরাম’, ঐতিহ্য থেকে দেওয়ান বারীন্দ্রনাথের ‘প্রাইভেট লাইফ অব ইয়াহিয়া খান’, আফসার ব্রাদার্স থেকে মুহম্মদ জাফর ইকবালের ‘যখনি জাগিবে তুমি’, চৈতন্য থেকে আসমা বীথির কবিতার বই ‘টুকরো হয়ে ছড়িয়ে পড়ি’, চারুলিপি থেকে ড. আশরাফ সিদ্দিকীর ‘বাংলাদেশের লোককাহিনী’, একই প্রকাশনা থেকে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘যখন সাংবাদিক ছিলাম’, অনুপম প্রকাশনী থেকে যতীন সরকারের ‘রচনাসমগ্র-৫’, দ্বিজেন শর্মার ‘সাহিত্যসমগ্র’, মুহম্মদ জাফর ইকবালের ভৌতিক কাহিনী ‘অন্য জীবন’, অনন্যা থেকে ইমদাদুল হক মিলনের ‘ছোট সবুজ মানুষ’, মুহম্মদ জাফর ইকবালের ‘কলামসমগ্র-৩’, মাওলা ব্রাদার্স থেকে মহাদেব সাহার ‘মধুর মুহূর্তগুলি চলে যায়’, বেঙ্গল পাবলিকেশন্স থেকে শাহনাজ মুন্নীর ‘থেমেছে শহর’ ইত্যাদি।

আজকের আয়োজন : আজ বিকেল ৪টায় শুরু হবে মূল মঞ্চের আয়োজন। এ সময় ‘বাংলা একাডেমির হীরক জয়ন্তী : গবেষণা কার্যক্রম, অতীত থেকে বর্তমান’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক আবুল আহসান চৌধুরী। আলোচনায় অংশ নেবেন অধ্যাপক মনসুর মুসা, ড. ভূঁইয়া ইকবাল ও ড. আমিনুর রহমান সুলতান। সভাপতিত্ব করবেন ড. মনিরুজ্জামান। এ ছাড়া সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা