kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিশ্বাসের মিনার

আল্লাহর দয়া ও অনুগ্রহ সর্বব্যাপী

মুফতি আতাউর রহমান   

২১ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আল্লাহর দয়া ও অনুগ্রহ সর্বব্যাপী

‘রহমত’ তথা দয়া ও অনুগ্রহ আল্লাহর সত্তাগত গুণ। পবিত্র কোরআনের একাধিক আয়াত ও হাদিস দ্বারা আল্লাহর এই গুণ প্রমাণিত। ইরশাদ হয়েছে, ‘সব প্রশংসা জগত্গুলোর প্রতিপালক মহান আল্লাহর জন্য। যিনি পরম করুণাময় দয়ালু।

বিজ্ঞাপন

(সুরা : ফাতিহা, আয়াত : ২-৩)

অন্যত্র ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমার প্রতিপালক ক্ষমাশীল ও দয়ালু। ’ (সুরা : কাহফ, আয়াত : ৫৮)

আল্লামা জাজ্জাজ (রহ.) বলেন, ‘রহমান ও রহিম আল্লাহর দুটি গুণবাচক নাম। তবে একটির তুলনায় অপরটিতে দয়ার অর্থ বেশি পাওয়া যায়। রহমান নামটি মহান আল্লাহর জন্য বিশেষায়িত। যা অন্য কারো জন্য ব্যবহার করা বৈধ নয়। কোনো কোনো মুফাসসির বলেন, আল্লাহর রহমান নামটি ব্যাপকার্থক, অর্থাৎ যিনি সমগ্র সৃষ্টির প্রতি অনুগ্রহ করেন। তা এভাবে যে তিনি তাদেরকে সৃষ্টি করেছেন এবং তাদের জীবিকার ব্যবস্থা করেছেন। অন্যদিকে আল্লাহর রহিম নামটি কেবল মুমিনদের জন্য বিশেষায়িত। এই হিসেবে যে তিনি তাদের ঈমানের পথ দেখিয়েছেন এবং পরকালে তাদের জন্য অন্তহীন পুরস্কার রেখেছেন। (তাফসিরু আসমায়িল্লাহিল হুসনা, পৃষ্ঠা-২৮)

আল্লামা সাদি বলেন, ‘রহমান ও রহিম আল্লাহর দুটি গুণবাচক নাম, যা আল্লাহর সর্বব্যাপী অনুগ্রহকে বোঝায়। যা সকল জীবকে অন্তর্ভুক্ত করে। আল্লাহ তাঁর অনুগ্রহকে প্রধানত নবী-রাসুলদের অনুসারী আল্লাহভীরুদের জন্য নির্ধারণ করেছেন। তবে তাঁরা ছাড়া অন্যদেরও আল্লাহর অনুগ্রহে সামান্য অংশ আছে। ’ (তাফসিরে সাদি, পৃষ্ঠা ৩৯)

আল্লাহর গুণ দয়া ও অনুগ্রহের সঙ্গে মানুষ বা অন্য কোনো সৃষ্টির দয়া ও অনুগ্রহের তুলনা নিষিদ্ধ। আল্লাহর দয়াশীলতা তাঁর ভেতর কোনো দুর্বলতা তৈরি করে না, কিন্তু মানুষের দয়াশীলতা কখনো কখনো তার ভেতর দুর্বলতা সৃষ্টি করে, এমনকি তাকে ইনসাফের জায়গা থেকে সরিয়ে দেয়। তবে আল্লাহর দয়া ও অনুগ্রহ তাঁর ক্রোধের ওপর প্রবল। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যখন আল্লাহ তাআলা মাখলুক সৃষ্টি করলেন, তখন তিনি তাঁর কিতাবে লিপিবদ্ধ করলেন এবং তা তাঁর কাছে আরশের ওপরে আছে। (তিনি লিখেছেন) আমার গোসসার ওপর দয়া বিজয়ী থাকবে। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৬৮৬২)

আল-মাউসুয়াতুল আকাদিয়া



সাতদিনের সেরা