kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ কার্তিক ১৪২৮। ২৮ অক্টোবর ২০২১। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

কোরআনের অনুলিপি তৈরিতে দুই শ কেজি স্বর্ণ ব্যবহার

মুহাম্মাদ হেদায়াতুল্লাহ   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কোরআনের অনুলিপি তৈরিতে দুই শ কেজি স্বর্ণ ব্যবহার

দুই শ কেজি স্বর্ণ ও দুই হাজার কেজি অ্যালুমিনিয়াম ব্যবহারে তৈরি হয়েছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ কোরআনের অনুলিপি। পাকিস্তানি শিল্পী শহীদ রাসাম ও চার শ শিক্ষার্থীর একটি দল ঐতিহাসিক এই শৈল্পিক কাজ সম্পন্ন করেছেন। অ্যালুমিনিয়াম ও স্বর্ণের প্রলেপ দিয়ে ক্যানভাসে কোরআনের সর্ববৃহৎ কপি খোদাই করা হয়। সাধারণত কাগজ, কাপড় বা চামড়ার ওপর পবিত্র কোরআন খোদাই করা হয়। তাই ধারণা করা হচ্ছে, এই প্রথম অ্যালুমিনিয়ামের তৈরি ক্যানভাসে কোরআন খোদাই করা হলো। শিল্পী রাসাম জানান, ফ্রেম ছাড়া পবিত্র কোরআনের কপিটির দৈর্ঘ্য ৮.৫ ফুট এবং প্রস্থ ৬.৫ ফুট। এর মধ্যে ৮০ হাজার শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। প্রতি পৃষ্ঠায় ১৫০ শব্দ থাকবে। আর মোট ৫৫০ পৃষ্ঠা থাকবে। এতে দুই শ কেজি স্বর্ণ ও দুই হাজার কেজি অ্যালুমিনিয়ান ব্যবহৃত হয়।

শিল্পী রাসাম করাচির চারুকলা প্রতিষ্ঠান দ্য আর্টস কাউন্সিল ইনস্টিটিউট অব আর্টস অ্যান্ড ক্রাফটসের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সম্পূর্ণ নতুন এই শিল্পকর্মটি উপহার দেওয়ায় প্রশংসায় ভাসছেন এই শিল্পী। চার বছর আগে এ প্রকল্পটি তিনি শুরু করেন। ৫৫০ ক্যানভাসে পবিত্র কোরআন শেষ করার কাজটি এখনো চলমান। রাসামের আশা, প্রাকৃতিক মূল্যবান পাথর ও অ্যালুমিনিয়ামে স্বর্ণের প্রলেপ দেওয়া পবিত্র কোরআনের অনুলিপিটি কমপক্ষে এক হাজার বছর স্থায়ী হবে।

প্রথমদিকে রাসাম নিজেই এ বিশাল কাজ শুরু করেন। কিন্তু প্রকল্পের কাজ শেষ করতে আরো দুই শ শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দেন। প্রকল্পের একটি অংশ এবারের দুবাই এক্সপো ২০২০-এর প্রদর্শনীতে থাকবে। ২০২৫ সালের মধ্যে প্রকল্পটি শেষ করতে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। পবিত্র কোরআনের অনেক অধ্যায় শেষ হলেও এক্সপো ২০২০-এর সময়ে শুধু একটি অধ্যায় প্রদর্শনে থাকবে। পাঁচ পৃষ্ঠায় লেখা সুরা আর রহমান অধ্যায়টি প্রদর্শনীর পাকিস্তান প্যাভিলিয়ন কিংবা আলোচনাসাপেক্ষে অন্য কোনো সাইটে দেখা যাবে।

সূত্র : খালিজ টাইমস



সাতদিনের সেরা