kalerkantho

বুধবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

ঢাকা শহর হবে শান্তির জনপদ : ইশরাক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকা শহর হবে শান্তির জনপদ : ইশরাক

বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন কামরাঙ্গীর চর এলাকায় গণসংযোগ করেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ইশরাক হোসেন ক্লান্তিহীন প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় পুরান ঢাকার বেড়িবাঁধ এলাকার ঝাউচর বাজার থেকে গণসংযোগ কর্মসূচি শুরু করেন তিনি। পরে সেখান থেকে হাজারীবাগ বেড়িবাঁধ হয়ে ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইসলামবাগ ও চকবাজার হয়ে লালবাগ শাহি মসজিদে আসেন। এরপর ২৯, ৩০, ২৭ ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা ও গণসংযোগ করেন।

প্রচারণার ১৩তম দিনে পশ্চিম হাজারীবাগের ঝাউচর বাজার থেকে দিনের কর্মসূচি শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ইশরাক হোসেন বলেন, ‘ঢাকা শহর হবে শান্তির জনপদ। এখানে কোনো সন্ত্রাসীর স্থান হবে না। কোনো ধরনের মাদক কারবারি সামান্যতম ছাড় পাবে না। সে যেই হোক।’ এ সময় পুলিশ প্রশাসনকে জনগণের পক্ষ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে ইশরাক বলেন, ‘পুলিশের উপস্থিতিতে গতকাল (মঙ্গলবার) উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের প্রচারণায় ন্যক্কারজনকভাবে হামলা চালানো হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার বেশি পার হলেও এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার হতে দেখলাম না! পুলিশ প্রসাশনের প্রতি আহ্বান, আপনাদের ওপর জাতীয় গুরুদায়িত্ব রয়েছে, সেটা পালন করুন। নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকেও আপনাদের ওপর যে সাংবিধানিক দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সেটা নির্ভয়ে পালন করুন। জনগণের পক্ষ হয়ে কাজ করুন, জনগণ আপনাদের পাশে থাকবে।’

এর আগে সকাল থেকে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে কামরাঙ্গীর চরের ঝাউচর বাজারে সমবেত হতে থাকেন। বিএনপি নেতাকর্মীরা এ সময় খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান ও ধানের শীষে ভোট চান। গণসংযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ, দলের যুগ্ম মহাসচিব হাবীব উন নবী খান সোহেল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, মীর শরাফত আলী সফু, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুসহ স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের বিপুলসংখ্যক কর্মী-সমর্থক অংশ নেন।

এ সময় অধ্যাপক এমাজউদ্দীন বলেন, ‘আধুনিক বাংলাদেশ নির্মাণের জন্য তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। যার জন্য ইশরাক হোসেনের মতো লোক দরকার। আমরা বয়স্করা যা করতে পারিনি, তাঁর হাত ধরে বাংলাদেশে নতুন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সূত্রপাত হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা