kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

উয়ারী-বটেশ্বর

[পঞ্চম শ্রেণির আমার বাংলা বইয়ের ‘মাটির নিচে যে শহর’ প্রবন্ধে উয়ারী-বটেশ্বরের উল্লেখ আছে]

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উয়ারী-বটেশ্বর

নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলা থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নস্থল উয়ারী-বটেশ্বর।

উয়ারী ও বটেশ্বর গ্রাম দুটি ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রার প্রাপ্তিস্থান হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে পরিচিত। এ ছাড়া আবিষ্কৃত প্রত্নবস্তু বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, উয়ারী-বটেশ্বর ছিল একাধারে একটি নগর ও সমৃদ্ধ বাণিজ্যকেন্দ্র। এই স্থানে উচ্চ তাপমাত্রায় লোহা গলানোর প্রযুক্তির প্রচলন ও ব্যবহার ছিল।

বিজ্ঞাপন

ধারণা করা হয়, আড়াই থেকে তিন হাজার বছর আগে এখানে নগর গড়ে উঠেছিল।

১৯৩৩ সালে উয়ারী গ্রামে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংগ্রহের চেষ্টা করা হয়। শ্রমিকরা মাটি খনন করে একটি পাত্রে সঞ্চিত মুদ্রাভাণ্ডার পায়। স্থানীয় স্কুলশিক্ষক মোহাম্মদ হানিফ পাঠান সেখান থেকে ২০ থেকে ৩০টি মুদ্রা সংগ্রহ করেন।

১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে কৃষক জাড়ু মাটি খননকালে ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রার একটি ভাণ্ডার পান। ওই ভাণ্ডারে প্রায় চার হাজারের মতো মুদ্রা ছিল।

উয়ারী-বটেশ্বরে বিভিন্ন সময়ে প্রত্নতাত্ত্বিক খননে আবিষ্কৃত হয়েছে প্রাচীন দুর্গনগর, বন্দর, রাস্তা, পার্শ্ব রাস্তা, পোড়ামাটির ফলক, স্বল্পমূল্যবান পাথর ও কাচের পুঁতি। আরো পাওয়া গেছে চারটি মাটির দুর্গপ্রাচীর। দুর্গপ্রাচীরের পাঁচ থেকে সাত ফুট উঁচু ধ্বংসপ্রাপ্ত কিছু অংশ এখনো টিকে আছে। পূর্ব প্রান্তের পরিখার চিহ্ন এখনো দৃশ্যমান।

২০০০ সাল থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুফি মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে উয়ারী-বটেশ্বরে নিয়মিত প্রত্নতাত্ত্বিক খননের কাজ শুরু হয়। এর আগে গ্রাম দুটিতে কৃষকের জমি চাষ ও নালা কাটা, গৃহস্থের বর্জ্য-গর্ত তৈরি ও মাটি কেটে স্থানীয়দের ঘরবাড়ি নির্মাণের জন্যও গর্ত করে মাটি সংগ্রহের সময় অনেক প্রত্নবস্তু উন্মোচিত হয়েছে। আরো পাওয়া গেছে বিচিত্র স্বল্প মূল্যবান পাথর ও কাচের পুঁতি, রৌপ্যমুদ্রা। এই অঞ্চলের বিস্তৃত এলাকাজুড়ে উত্তর ভারতীয় কালো মসৃণ মৃৎপাত্র প্রাপ্তি মৌর্য সাম্রাজ্যের বিস্তৃতির সাক্ষ্য বহন করে।

প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা কেন্দ্র ‘ঐতিহ্য অন্বেষণ’-এর উদ্যোগে উয়ারী প্রত্নতাত্ত্বিক গ্রামে ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ‘উয়ারী-বটেশ্বর দুর্গ নগর উন্মুক্ত জাদুঘর’ উদ্বোধন করা হয়েছে।

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল

[আরো বিস্তারিত জানতে বাংলাপিডিয়া ও পত্রপত্রিকায় উয়ারী-বটেশ্বর সম্পর্কিত লেখাগুলো পড়তে পারো। ]



সাতদিনের সেরা