kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

অ ধ্যা য় ভি ত্তি ক প্র শ্ন

পঞ্চম শ্রেণি - বাংলা

মো. নূরুন্নবী বাবু, সহকারী শিক্ষক, শাহজাহানপুর রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা

৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পঞ্চম শ্রেণি - বাংলা

স্মরণীয় যারা চিরদিন

১।        শব্দার্থ লেখো :

            শত্রুমুক্ত, তীব্র, অবরুদ্ধ, আত্মদানকারী, সশস্ত্র, নির্বিচার, বরেণ্য, যশস্বী  

            উত্তর :

            শত্রুমুক্ত — শত্রুর কবল থেকে মুক্ত হওয়া

            তীব্র্র — প্রবল

            অবরুদ্ধ — যা অবরোধ করে রাখা হয়েছে

            আত্মদানকারী — যে প্রাণ দেয়

            সশস্ত্র — অস্ত্রসহ

            নির্বিচার — বিচার-বিবেচনা  ছাড়া যা

            বরেণ্য — মান্য

            যশস্বী — বিখ্যাত।

২।         গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ও উত্তর

(ক)                   আমরা কাদের নিকট কৃতজ্ঞ?

            উত্তর : বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য যারা যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছেন, যাঁদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনভাবে চলতে পারছি, আমরা সেই শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নিকট কৃতজ্ঞ।

(খ)       ‘স্মরণীয় যারা চিরদিন’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

            উত্তর : দীর্ঘ ৯ মাসে লাখ লাখ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত হয় আমাদের এই স্বাধীনতা। এসব শহীদ চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এই শহীদদেরই কবি বলেছেন স্মরণীয় যারা চিরদিন।

(গ) ১৬ই ডিসেম্বর কেন জাতীয় জীবনের গুরুত্বপূর্ণ দিন?

            উত্তর : পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সঙ্গে দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর শত্রুরা ১৬ই ডিসেম্বর আত্মসমর্পণ করলে বাঙালি চূড়ান্ত বিজয় লাভ করে। এ জন্যই দিনটি বাঙালির জাতীয় জীবনে গুরুত্বপূর্ণ।

(ঘ)       আমরা কিভাবে  স্বাধীন হয়েছি?

            উত্তর : পাকিস্তানিদের কাছে আমরা পরাধীন ছিলাম। স্বাধীনতার জন্য আমরা যুদ্ধ করেছি। বহু প্রাণের বিনিময়ে অর্জন করেছি স্বাধীনতা। এ দেশের সর্বস্তরের মানুষ বীরের মতো লড়াই করেছে। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আমাদের চূড়ান্ত স্বাধীনতা অর্জিত হয়। হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে আমরা স্বাধীন হয়েছি।

 

(ঙ)       আমাদের স্বাধীনতাকে রক্তে ভেজা বলা হয়েছে কেন?

            উত্তর : পাকিস্তানিদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে গিয়ে এ দেশের অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারায়, রক্তে ভিজে যায় এ দেশ। এ কারণেই অর্জিত স্বাধীনতাকে বলা হয় রক্তে ভেজা স্বাধীনতা।

 

৩।        ক্রিয়াপদের চলিতরূপ

            লেখো :

            আসিয়াছে, ডাকিল, হইয়াছে,  থাকিল, লিখিয়াছেন।

            উত্তর :

            আসিয়াছে — এসেছে

            ডাকিল — ডাকল

            হইয়াছে — হয়েছে

            থাকিল — থাকল

            লিখিয়াছেন — লিখেছেন

 

৪।        যুক্তবর্ণ ভেঙে লেখো ও প্রতিটি যুক্তবর্ণ দিয়ে  শব্দ তৈরি করো : 

      দ্ধ, ক্ত, ঙ্গ, ন্ত, ঞ্চ, ষ্ক, জ্ঞ, স্থ, স্ত, স্ম

            উত্তর :

            দ্ধ (দ্+ ধ) = বুদ্ধিজীবী

            ক্ত (ক্ + ত) = শক্তি

            ঙ্গ (ঙ্ + গ) = ব্যঙ্গ

            ন্ত (ন্ + ত) = অন্তর

            ঞ্চ (ঞ্ + চ) = পঞ্চম

            ষ্ক (ষ্+ক) = শুষ্ক

            জ্ঞ (জ্+ ঞ) = অভিজ্ঞ

            স্থ (স্+ থ) = স্থান

            স্ত (স্+ ত) = আস্তানা

            স্ম (স্+ ম) = স্মরণ।

 

৫।        নিচের অনুচ্ছেদটিতে যথাস্থানে উপযুক্ত বিরামচিহ্ন বসিয়ে উত্তরপত্রে লেখো :

            একুশে ফেব্রুয়ারিতে ভাষাশহীদদের স্মরণ করে আমরা ফুল দিতে যাই শহীদ মিনারে তখন আমাদের মনে আর মুখে বেজে ওঠে একটি গান আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি এ গানে সুর দেন আলতাফ মাহমুদ

            উত্তর :

            একুশে ফেব্রুয়ারিতে ভাষাশহীদদের স্মরণ করে আমরা ফুল দিতে যাই শহীদ মিনারে। তখন আমাদের মনে আর মুখে বেজে ওঠে একটি গান—‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি।’ এ গানে সুর দেন আলতাফ মাহমুদ।

 

৬।        বিপরীত শব্দ লেখো :

            ঘুমন্ত, স্বাধীন, সাধু, লোভী, সরল

            উত্তর :

            ঘুমন্ত — জাগ্রত

            স্বাধীন — পরাধীন

            সাধু — অসাধু

            লোভী — নির্লোভ

            সরল — গরল।

 

৭।        সমার্থক শব্দ লেখো : 

            রাত, পৃথিবী, শিক্ষক, মুক্ত, যুদ্ধ

            উত্তর :

            রাত — নিশি

            পৃথিবী — ধরণি

            শিক্ষক — গুরু

            মুক্ত — স্বাধীন

            যুদ্ধ — লড়াই।



সাতদিনের সেরা