kalerkantho

সোমবার । ৩ কার্তিক ১৪২৭। ১৯ অক্টোবর ২০২০। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

নবম-দশম শ্রেণি

বাংলা প্রথম পত্র

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সহপাঠ

কাকতাড়ুয়া

সেলিনা হোসেন

১৯৭১ সালের বাংলাদেশের কোনো একটি গ্রামের প্রেক্ষাপটে রচিত হয়েছে এই উপন্যাস। মূল চরিত্র বুধা নামের এক বালক। ছোটবেলায় মা-বাবা, ভাই-বোন হারিয়ে একলা হয়ে যায় সে। মহামারিতে পরিবারের সবাইকে হারালেও পুরো গ্রামের সবাই তাকে আপনজন হিসেবে মেনে নেয়। সবাই তাকে ভালো ছেলে মনে করে। খাবারদাবার নিয়ে তাই তার কোনো চিন্তা করতে হয় না। কারো বাড়িতে গেলে নুন-পান্তা খেতে দেয়, আবার কারো বাড়িতে গেলে চালের রুটি দেয় ঝোল দিয়ে, আবার বিয়ে বাড়িতে ভাত-মাংস খেতে পায়। পৃথিবীতে আপন বলতে তার চাচি তাকে দেখতে পারে না। একদিন তাই চাচার বাড়ি থেকে বের হয়ে চলে আসে। যদিও সম্পর্কের অধিকার নিয়ে পথ আগলে দাঁড়ায় ছোট চাচাতো বোন। তার পরও ওই বাড়ি ছেড়ে পথে নেমে পড়ে সে। দিনকাল ভালোই যাচ্ছিল তার। ছোটখাটো কাজ করে উপার্জন করাও শুরু করেছিল। একদিন গ্রামে মিলিটারি আসে। গ্রামের সাধারণ জীবন হয় বাধাগ্রস্ত। সে একদিন খেয়াল করে দেখল গ্রামের মানুষ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছে। এক দল যুদ্ধ করার চিন্তা করছে, আরেক দল পাকিস্তানি বাহিনীর পক্ষ নিয়েছে। সে গ্রামের প্রতিবাদী মানুষের পক্ষই সমর্থন করে। যোগ দেয় গ্রামের যুবক মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে। অংশগ্রহণ করে গেরিলা যুদ্ধে। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় রাজাকার কমান্ডার, শান্তিবাহিনীর কমান্ডারের ঘরবাড়ি। রাজাকারদের সন্দেহের তীর তার দিকেই যায়। মিলিটারি ক্যাম্পে তাই তার ওপর চলে অত্যাচার। তার পরও সে তার কাজ থেকে পিছু হটেনি। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের নির্দেশে তাই মিলিটারি ক্যাম্প রেকি করতে যায়। পাকিস্তানি বাহিনীর অত্যাচারে যখন পুরো গ্রামবাসী অতিষ্ঠ, তখন একদিন মা-বাবার কবর জিয়ারত করে এসে পুরোদমে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়। আরো একদিন মিলিটারি ক্যাম্পে যায় সে। বাংকার খোঁড়ার বাহানায় মাটির নিচে মাইন পুঁতে আসে। রাতের বেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের সঙ্গে নদীর ধারে বসে মাইনের আঘাতে ক্যাম্প উড়ে যাওয়া দেখে। দ্রুত নৌকায় উঠে তারা চলে যায় লোকচক্ষুর আড়ালে। দেশমাতৃকার টানে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়ে চলে যায় গ্রাম থেকে অনেক দূরে।

 

জ্ঞানমূলক প্রশ্ন  

১। ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের রচয়িতা কে?

উত্তর : সেলিনা হোসেন।

২। সেলিনা হোসেনের রচিত উপন্যাসের সংখ্যা কত?

উত্তর : তেত্রিশ।

৩। সেলিনা হোসেন কত সালে স্বাধীনতা পুরস্কার পান?

উত্তর : ২০১৮ সালে।

৪। ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের প্রধান চরিত্রের নাম কী?

উত্তর : বুধা।

৫। গেরস্ত বাড়িতে কাজ করলে ভাতের সঙ্গে বুধাকে কী খেতে দেয়?

উত্তর : অড়হর ডাল।

৬। বুধাকে মুড়ি ভাজা খেতে দেয় কে?

উত্তর : নোলক বুয়া।

৭। বুধার পরিবারের সবাই কোন রোগে মারা যায়?

উত্তর : কলেরা রোগে।

৮। বুধার কয় ভাই-বোন কলেরায় মারা যায়?

উত্তর : চার ভাই-বোন।

৯। বুধার সবচেয়ে ছোট বোনের নাম কী ছিল?

উত্তর : তিনু।

গ্রন্থনা : এম জাহিদুল ইসলাম

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা