kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পুষ্টি

শিশুর রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধে খাবার

১০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিশুর রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধে খাবার

কারো রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা এমনিতেই কম থাকতে পারে। শিশুদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে বাড়ন্ত্ত শিশুদের ক্ষেত্রে রক্তশূন্যতা বেশি দেখা যায়। রোগ থেকে সেরে ওঠার সময়ও আয়রনের বেশি প্রয়োজন হয়। এমন কিছু খাবার রয়েছে, যা খেলে দেহে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক থাকে। পরামর্শ দিয়েছেন ডায়েট প্লানেট বাংলাদেশের পুষ্টিবিদ মাহবুবা চৌধুরী

 

প্রাণিজ খাবার

আয়রনসমৃদ্ধ প্রাণিজ খাবারগুলো হলো : গরুর লাল মাংস, কলিজা, মুরগির কলিজা, ডিম, সামুদ্রিক মাছ, দই ইত্যাদি।

 

ভিটামিন ‘সি’

আয়রন শোষণে ভিটামিন ‘সি’র বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। ‘সি’ ভিটামিনের অভাবে হিমোগ্লোবিন কমে যেতে পারে। লেবু, কমলা, আমলকী, জলপাই, আঙুর, জাম্বুরা, পেয়ারা, আমড়া, বরই, স্ট্রবেরি ইত্যাদি ফলে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘সি’ থাকে, যা শিশুদের রক্ত বৃদ্ধিতে বেশ সহায়তা করে।

 

ফলিক এসিড

এটি ভিটামিন ‘বি-৯’ বা ফোলেট নামে মানবদেহে প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট। লাল রক্তকণিকা তৈরিতে এই ফলিক এসিডের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। সবুজ পাতাযুক্ত শাকসবজিতে প্রচুর পরিমাণ ফলিক এসিড রয়েছে। এ ছাড়া কাঁচকলা, ব্রুকলি, শিমের বিচি, ডুমুর, কলার মোচা, অঙ্কুরিত মুগডাল ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে।

 

বিট

আয়রনের একটি ভালো উৎস বিট। বিটের রসে প্রচুর পরিমাণ আয়রন, খাদ্য আঁশ, পটাসিয়াম, ফলিক এসিড ইত্যাদি থাকে, যা দেহে লাল রক্তকণিকা বাড়াতে বেশ সাহায্য করে।

 

আপেল

আয়রনের খুব ভালো আরেকটি উৎস হলো আপেল। খোসাসহ একটি আপেল খেয়ে প্রতিদিন রক্তের হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক রাখা সম্ভব। এ ছাড়া আপেল ও বিটের রস সমানুপাতে পান করতে পারলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

 

বেদানা

রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে এবং দেহে রক্ত চলাচল সচল রাখতে এই ফলটি বেশ ভালো কাজ করে। বেদানায় রয়েছে যথেষ্ট পরিমাণ আয়রন এবং ক্যালসিয়াম। এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন, শর্করা ও খাদ্য আঁশ রয়েছে এতে। যেসব শিশুর রক্তস্বল্পতা রয়েছে তাদের প্রতিদিন একটি করে বেদানা বা এর জুস খাওয়ালে সে সমস্যা অনেকাংশে দূর করা সম্ভব। তবে বেদানার সঙ্গে কমলা বা লেবুর রস মিশিয়ে খেলে এর আয়রন শোষণ হয় ভালোভাবে। তবে বেদানার বীজ শিশুদের খাওয়ানো ঠিক নয়। এতে কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিতে পারে।

 

কলা

কলায় যথেষ্ট পরিমাণ পটাসিয়াম ও বেশ কিছু কার্যকর উপাদান রয়েছে, যা মানবদেহে লোহিত রক্তকণিকা বৃদ্ধিতে এবং হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। শিশুদের কলা চটকে অথবা দুধের সঙ্গে ব্লেন্ড করে স্মুদি তৈরি করে খাওয়ালে ভালো উপকার পাওয়া যায়।

 

শুকনা ফল ও বাদাম

কিশমিশ, খেজুর, অ্যাপ্রিকট, আলুবোখারা এবং বিভিন্ন ধরনের বাদামে যথেষ্ট পরিমাণ খনিজ লবণ ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে। এই খাবারগুলো শরীরের আয়রনের ঘাটতি দূর করার পাশাপাশি শরীর ভালো রাখতে সাহায্য করে। শিশুরা খেজুর, কিশমিশ এবং বাদাম সরাসরি না খেতে চাইলে দুধের সঙ্গে ব্লেন্ড করে দেওয়া যেতে পারে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা