kalerkantho

সৈয়দপুর হাসপাতাল

পরীক্ষার সরঞ্জাম নেই বিপাকে রোগী

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গত এক সপ্তাহে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত চারজন রোগীকে নীলফামারীর সৈয়দপুর ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সর্বশেষ গত শুক্রবার সকালে তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে ভর্তি হওয়া রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এর আগে গত মঙ্গলবার মো. আসাদ আলী নামে এক ডেঙ্গু রোগীকে ভর্তির পর তাঁকেও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসাপতালে রেফার্ড করা হয়।

এ ছাড়া গতকাল শনিবার জ্বরাক্রান্ত হয়ে আরো দুই ব্যক্তি সৈয়দপুর ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাঁরা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে কি না সে জন্য তাঁদের রক্তসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। তবে সৈয়দপুর ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ডেঙ্গুর পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় বাইরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তা করা হচ্ছে। সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. আরিফুল হক সোহেল বলেন, ‘হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের জন্য সীমিত চিকিৎসা সরঞ্জাম এসেছে। আগামী দুই-দিন দিনের মধ্যে আরো চিকিৎসা সরঞ্জাম ও ওষুধপত্র আসবে। এ ছাড়া ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীদের পৃথকভাবে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

এদিকে গতকাল সৈয়দপুর পৌরসভার উদ্যোগে শহরে মশা নিধন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতায় সচেতনতা সৃষ্টিতে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা হয়েছে। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্টে প্রগ্রাম ও এসকেএস ফাউন্ডেশননের সহযোগিতায় ওই শোভাযাত্রা বের করা হয়। সকাল ১১টায় সৈয়দপুর পৌরসভা কার্যালয় চত্বর থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র অধ্যক্ষ মো. আমজাদ হোসেন সরকার। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে সৈয়দপুর পৌরসভার সব কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারী, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এসকেএস ফাউন্ডেশন ও ব্র্যাকের কর্মকর্তাসহ শহরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। এ সময় ফগার মেশিন দিয়ে মশক নিধন ওষুধ স্প্রে করা হয়। এ ছাড়া শোভাযাত্রা থেকে মশা নিধন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতায় সচেতনতা সৃষ্টিতে লিফলেট বিতরণ করা হয়। একই দিন সৈয়দপুর  উপজেলার লক্ষ্মণপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজে ডেঙ্গু প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের নিয়ে সচেতনতামূলক সভা করা হয়েছে। 

মন্তব্য