kalerkantho

শনিবার । ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

স্কুলের প্রার্থনায় পড়তে হবে সংবিধানের প্রস্তাবনা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ জানুয়ারি, ২০২০ ১৫:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্কুলের প্রার্থনায় পড়তে হবে সংবিধানের প্রস্তাবনা!

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে ভারত জুড়ে প্রতিবাদে চলছে। আর ঠিক এ সময়ই স্কুলে সংবিধানের প্রস্তাবনা পড়া বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করেছে দেশটির মহারাষ্ট্র সরকার।

মহারাষ্ট্র সরকারের নির্দেশ, ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবস থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলে প্রার্থনার সময় ছাত্রদের পাঠ করতে হবে সংবিধানের প্রস্তাবনা।

গতকাল মঙ্গলবার মহারাষ্ট্রের স্কুল শিক্ষামন্ত্রী বর্ষা গায়কোয়াড় নতুন এই নিয়মের কথা জানান। জনস্বার্থে 'সার্বভৌমত্ব সংবিধানচে' কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই নিয়ম কার্যকর করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। 

বর্ষা গায়কোয়াড় বলেন, ভারতীয় সংবিধানের গুরুত্ব, স্বাধীনতা, বিচারব্যবস্থা, সাম্য, ভাতৃত্ববোধ ও মূল্যবোধের সম্পর্কে সকলের অবগত হওয়া প্রয়োজন। সংবিধান সম্পর্ক সম্মক জ্ঞান জরুরি। সেই কারণে প্রতিদিন সকালে প্রার্থনার সময় ভারতীয় সংবিধানের প্রস্তাবনা পাঠ করতে হবে ছাত্র-ছাত্রীদের। এতে ছাত্ররা আরও বেশি দায়িত্ববান এবং উন্নত নাগরিক হয়ে উঠতে পারবে। 

তিনি বলেন, ২০১৩ সালে তৎকালীন কংগ্রেস-এনসিপি জোট সরকার এই নিয়ম বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। আমরা ২৬ জানুয়ারি থেকে তা কার্যকর করছি। রাজ্যের প্রতিটি স্কুলে এই নির্দেশিকা পালন করা হচ্ছে কি না, তা দেখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে শিক্ষা কমিশনারকে।

নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভের মধ্যে স্কুলে সংবিধানের প্রস্তাবনা পাঠের সিদ্ধান্তকে বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। কারণ ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্র সরকার বলেছে, সে রাজ্যে যাতে সিএএ, এনপিআর এবং এরআরসি থাবা বসাতে না পারে, সে ব্যবস্থা করা হবে। এবার  প্রস্তাবনা পাঠের মাধ্যমে বোঝানোর চেষ্টা হবে যে, নাগরিকত্ব আইনের ফলে ভারতের ধর্মনিরপেক্ষতা ও সার্বভৌমত্ব বিঘ্নিত হচ্ছে। অর্থাৎ এটি অসংবিধানিক।

শিব শিক্ষণ সংস্থার সভাপতি রাজেন্দ্র প্রধান নির্দেশিকাকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এটি ভালো উদ্যোগ। বর্তমানে কেউই সেভাবে সংবিধান পড়ে না। আমার সন্তানরা জাতীয় সংগীত গায়। সেভাবেই সংবিধান পড়লেও তারা উপকৃত হবে। এটা পড়তে মিনিট খানেকও সময় লাগবে না। কিন্তু অনেকখানি কাজে লাগবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা