kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

সোশ্যাল সাইটে প্রশ্ন

খালেদ মাহমুদের ওভাবে তেড়ে যাওয়াটা কি শোভন ছিল?

অনলাইন ডেস্ক   

১২ জুন, ২০২১ ১৫:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



খালেদ মাহমুদের ওভাবে তেড়ে যাওয়াটা কি শোভন ছিল?

খালেদ মাহমুদ সুজনকে এভাবেই আটকে রাখেন কয়েকজন। ছবি : সংগৃহীত

মাঠে ক্রিকেটের আইন বিরুদ্ধে ঘটনা ঘটিয়ে তখন মাঠ ছাড়ছিলেন বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার তথা মোহামেডানের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। গ্যালারিতে থাকা গুটিকয়েক আবাহনীর সমর্থক তখন তাকে উদ্দেশ্য করে গালি দিচ্ছিল। সাকিব আঙুল উঁচিয়ে তাদের শাসাতে থাকেন এবং পাল্টা গালিও দিতে থাকেন। এদিকে সাকিবের মাঠের কাণ্ড দেখে রাগে ফুঁসছিলেন ডাগ আউটে থাকা খালেদ মাহমুদ সুজন। ঘটনাক্রমে সাকিবের সঙ্গে তিনি ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। 

সাকিব যখন দর্শকদের দিকে আঙুল উঁচিয়ে ইঙ্গিত করছিলেন, ডাগ-আউটে থাকা আবাহনীর কোচ সুজন ভেবে বসেন, সাকিব তাকেই কিছু বলছেন! ব্যাস! সুজন সাকিবের দিকে তেড়ে যান। তখন তার দলের কয়েকজন ক্রিকেটার-স্টাফ সুজনকে আটকায়। সাকিব তখন সুজনকে বলেন, 'আমি তো আপনাকে কিছু বলিনি, দর্শকদের বলেছি।' মাঠের এই ঘটনার পর আবাহনীর ড্রেসিংরুমে গিয়ে সুজনের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন সাকিব। সুজনও তখন তাকে বুকে জড়িয়ে ধরেন। 

এদিকে সোশ্যাল সাইটে খালেদ মাহমুদের তেড়ে যাওয়ার ছবি ভাইরাল হয়ে গেছে। প্রশ্ন উঠেছে, একজন শীর্ষ বিসিবি কর্মকর্তা তথা একটি ক্লাবের কোচ কীভাবে সাকিবকে মারতে তেড়ে যান! সাব্বির আহমেদ নিবিড় লিখেছেন, 'সাকিব অখেলোয়াড়সুলভ আচরণ করেছে,যথেষ্ট পরিমাণ ক্ষোভ আর হতাশা থেকেই করলেও তা সমর্থন করি না। কিন্তু সাকিবকে মারতে খালেদ মাহমুদ সুজন কেন মাঠে নামবে?' আরমান হোসেন লিখেছেন, 'বিসিবি পরিচালক হয়ে খালেদ মাহমুদ সুজন কিভাবে আবহনী ক্লাবের কোচ হলেন! এছাড়া তিনি কোন অধিকারে সাকিবকে মারতে তেড়ে যান?' 

মাসুম বিল্লাহ রাহা মজা করে লিখেছেন, 'গতির দানব ও বিবিসির পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন সম্ভবত সাকিবের কাছে স্ট্যাম্প ভাঙ্গার দাম চাইতে গিয়েছে, তাতেই সাকিব চটে গেল।' আরিফুল ইসলাম লিখেছেন, 'আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন তার দিকে তেড়ে যান, সাকিবও আঙুল উঁচিয়ে এগিয়ে আসেন। খালেদ মাহমুদের মতো একজন সিনিয়র ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব, একজন বোর্ড পরিচালকের উচিত হয়নি এই আচরণ করা... এটাও দুঃখজনক...।' গাজী শরীফ লিখেছেন, 'সাত ম্যাচে আবাহনীর একটা ও এলবিডব্লিও আউট নাই। **** সুজন এত ভাল টেকনিক শিখান যে কেউ লেগবিফোর হয় না। এমন একটা কোচ ই জাতীয় দলে দরকার। তাহলে আমরাও আন্তর্জাতিক ম্যাচে লেগবিফোর হবো না।'



সাতদিনের সেরা