kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বিতর্কিত পোস্ট মুছে ফেললেন মিরাজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ১৫:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিতর্কিত পোস্ট মুছে ফেললেন মিরাজ

গতকাল রবিবার ভোলায় 'ধর্মানুভূতিতে আঘাত' ইস্যুতে তুলকালাম হয়ে গেছে। এক সংখ্যালঘু তরুণের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কুটক্তি করা হয়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন ৪ জন। এরপর রাত ৮টার দিকে নিজের ভেরিফায়েড অ্যাকাউন্টে একটি ভোলার ঘটনা নিয়ে একটি পোস্ট দেন জাতীয় দলের তারকা অল-রাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। যা নিয়ে সোশ্যাল সাইটে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে পোস্টটি মুছে দিতে বাধ্য হন এই ক্রিকেটার।

ভোলার ঘটনার পর স্থানীয় পুলিশ এমনকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্যন্ত বলেছিলেন, গুজব ছড়িয়ে অশান্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয়েছে দ্বীপ জেলাটিতে। ভোলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র সোহেল রানা শুক্রবার রাত ১০টা ৫৮ মিনিটে তাঁর ফেসবুক আইডির টাইমলাইনে দুটি স্ক্রিনশট শেয়ার করে এই গুজব ছড়ান। অন্যদিকে অভিযুক্ত বিপ্লব চন্দ্র শুভর ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়ার বিষয়টি রাতেই পুলিশ নিশ্চিত হয়। পরের দিন শনিবার এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কয়েকজনকে পুলিশ আটক করে। তারপরেও 'তৌহিদী জনতা' ব্যানার নিয়ে একদল মাদ্রাসার ছাত্র পুলিশের ওপর হামলে পড়ে। 

মিরাজ তার পোস্টে লিখেন, ' শতকরা প্রায় ৯০% ইসলাম ধর্মাবলম্বী কট্টর মুসলিম প্রধান দেশ সুজলা সুফলা সবুজের ছায়ামূর্তি ধারক আমাদের বাংলাদেশ। অথচ আমাদের দেশেই খ্রিষ্টীয় লেখক মাইকেল এইচ হার্টের করা বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ১০০ মণিষীর জীবনীতে প্রথম স্থানে থাকা রহমতের নবী 'হযরত মোহাম্মদ (সা.) কে গালি দিবে অন্য কোনো ধর্মাবলম্বী কেউ, সেটা মুসলিম হয়ে আমর সইবো কিভাবে? আমরা এগুলো সইতে পারি না, কারণ আমরা আল্লাহ, তার রাসূল এবং ইসলাম ধর্মকে ভালোবাসি। এমন শাস্তি হোক, যাতে অন্য কেউ এই ধরণের কাজ করার সাহসই না পায় ভবিষ্যতে।'

মিরাজের এই পোস্ট নিয়ে এক শ্রেণির সাম্প্রদায়িক শক্তি উস্কানি দেওয়ার সুযোগ পেয়ে যায়। ফেসবুকে হাজার হাজার বার মিরাজের পোস্ট শেয়ার করে উগ্রবাদীরা সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়ানোর চেষ্টা করে। অন্যদিকে দেশের শুভ বোধ সম্পন্ন মানুষ অবাক হয়ে যান এই ভেবে যে, জাতীয় দলের একজন ক্রিকেটার কীভাবে এমন পোস্ট দিতে পারেন! তারা মিরাজের সমালোচনায় সরব হন। শেষ পর্যন্ত রবিবার রাতেই পোস্টটি মুছে দেন মিরাজ। এই পোস্ট মিরাজ নিজে করেছেন নাকি তার পেইজ এডমিন করেছেন সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে মিরাজের কোনো বক্তব্যও পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা