kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

দারিদ্র্যের কারণে বিজ্ঞানের আবিস্কার স্থগিত থাকবে কেন : তসলিমা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ জুলাই, ২০১৯ ২১:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দারিদ্র্যের কারণে বিজ্ঞানের আবিস্কার স্থগিত থাকবে কেন : তসলিমা

ভারতের মহাকাশ বিজ্ঞানে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। গতকাল সোমবার চাঁদের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছে ভারতীয় মহাকাশ সংস্থার (ইসরো) মহাকাশ যান চন্দ্রযান-২। অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটা মহাকাশ স্টেশন থেকে সোমবার বেলা ২টা ৪৩ মিনিটে এটি সফলভাবে উৎক্ষেপ করা হয়। এর আগে গত ১৫ জুলাই উৎক্ষেপণের কথা থাকলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে নির্ধারিত সময়ের ৫৬ মিনিট আগে স্থগিত করা হয়। উৎক্ষেপণের কয়েক মিনিট পরেই এটি পৃথিবীর কক্ষপথে প্রবেশ করে।

এক হাজার কোটি রুপি বাজেটের এই মিশন নিয়ে ভারতে বেশ বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। ভারতের কিছু রাজ্যে তীব্র জল সংকট চলছে। তাই চন্দ্রযান-২ এর চাঁদের মাটিতে জলের অনুসন্ধান নিয়ে তৈরি করা হয়েছে ব্যাঙ্গাত্বক কার্টুন। কিছু রাজনৈতিক দল আবার বলছে, দেশের দারিদ্র্য দূর না করে রকেটের পেছনে হাজার কোটি রুপি ঢালার যৌক্তিকতা নেই। এসব বিষয় নিয়েই মুখ খুলেছেন প্রখ্যাত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন। সোশ্যাল সাইটে তিনি জানালেন, দারিদ্যের জন্য বিজ্ঞানকে থামিয়ে রাখা যৌক্তিক নয়। 

চন্দ্রযান-২ এর উৎক্ষেপণকে ব্যঙ্গ করে এমন কিছু কার্টুন আঁকা হচ্ছে ভারতে। ছবি : ইন্টারনেট

নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে তসলিমা লিখেন, 'আমি বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রাকে যত সমর্থন করি, তত আর অন্য কিছুকে নয়। ভারতের চন্দ্রযান-২ নিয়ে রকেট উড়েছে গতকাল। আমি উচ্ছসিত। যুক্তরাষ্ট্র, সোভিয়েত ইউনিয়ন আর চীনের পর ভারতই চাঁদ জয় করছে। চাঁদের মাটিতে কত কিছু পরীক্ষা করবে, জল আছে কিনা দেখবে।'

'উচ্ছাসের মধ্যেই নজরে পড়ল এই কার্টুন। খাবার জলের অভাব। ক্রোশ ক্রোশ দূরে যেতে হয় এক কলসি খাবার জল আনতে। এক লোক বলছে, আশা করছি চাঁদে নয়, জল ওরা এখানে পাবেন। এখানেও জল পাক, ওখানেও জল পাক। দারিদ্র আছে বলে বিজ্ঞানের আবিস্কার স্থগিত রাখতে হবে কেন। এখানেও দারিদ্র ঘুচুক, মানুষ ওখানেও যাক। ওই চাঁদে, ওই মঙ্গলগ্রহে, সম্ভব হলে আমাদের সৌরজগতের বাইরে অন্য কোনও সৌরজগতে। কেন নয়?'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা