kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

পিঠের ব্যথা কমাবে যে ব্যায়ামগুলো

অনলাইন ডেস্ক   

১১ আগস্ট, ২০২২ ১৮:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পিঠের ব্যথা কমাবে যে ব্যায়ামগুলো

‘ব্যাক পেইন’ বা পিঠের ব্যথায় ভোগেন না এমন কাউকে পাওয়া কঠিন। তবে এমন কিছু ব্যায়াম আছে যেগুলো নিয়মিত চর্চা করলে পিঠের ব্যথায় মিলবে উপশম। সিএনএন-এ প্রকাশিত এক গবেষণার খবরে জানা গেলো, এ ব্যায়ামগুলো যেকোনো ওষুধের চেয়েও কাজ করবে ভালো।

নড়াচড়া করতে হবে

সুস্থতার জন্য দরকার হাঁটাচলা।

বিজ্ঞাপন

আপনি যদি পেশীর দুর্বলতা, টিস্যু শক্ত হয়ে যাওয়া, জয়েন্টের ব্যথা এসব থেকে থাকে, তবে হাঁটাচলা বাড়িয়ে দিন। নড়াচড়া করলে শরীর থেকে এক ধরনের হরমোন বের হয়। যা মানসিক চাপের সঙ্গে ব্যথাও কমায়।
পিঠের ব্যথার প্রধান কারণগুলো হলো, ঠিকভাবে শ্বাস না নেওয়া, শোয়ার ভঙ্গি, নিতম্বের টান, শারীরিক আঘাত, বয়সের কারণে হাড়ক্ষয়, অতিরিক্ত ওজন, গর্ভাবস্থা ও মানসিক চাপ।

এগুলোর বেশিরভাগই পেশী সংক্রান্ত সমস্যাগুলোর সঙ্গে যুক্ত। হাঁটাচলা বা সঠিক ব্যায়ামের মাধ্যমে পেশীর সমস্যাগুলো দূর করা সম্ভব।
তবে ব্যায়াম করতে গিয়ে যদি দেখেন ব্যথা বেড়ে যাচ্ছে বা স্বস্তি বোধ করছেন না তবে সতর্ক হোন। বুঝে নিন আপনার শরীর ওই ব্যায়ামটার সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারছে না। শরীর সায় না দেওয়ার পরও যদি আপনি ভুল ব্যায়াম চালিয়ে যান, তবে তাতে আহত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। আবার যেকোনো ব্যায়াম শুরুর আগে ব্যথার উৎস ও প্রকৃতি জানতে পরামর্শ নিন ডাক্তারের।   

শ্বাসের ব্যায়াম

সঠিকভাবে শ্বাস-প্রশ্বাসের অভ্যাস পিঠের ব্যথা অনেকটা কমিয়ে দেয়। কারণ, যখন জোরে শ্বাস নেবেন, তা মেরুদণ্ড ও পাঁজরে চাপ দেয়। তাই সঠিকভাবে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করেও শরীরের বিভিন্ন অংশের ওপর চাপ কমাতে পারেন। এর জন্য গভীরভাবে শ্বাস নেওয়া ছাড়ার ব্যায়াম করতে হবে।

এ জন্য যে ব্যায়ামটি করতে পারেন তা হলো, চিৎ হয়ে শুয়ে দুই পা হাঁটু বরাবর ভাঁজ করুন। দুই হাঁটুর মাঝে সামান্য দূরত্ব রাখতে একটি তোয়ালে ভাঁজ করে রাখুন। দুই হাত রাখুন পাঁজরের নিচ বরাবর। প্রথমে পুরোপুরি শ্বাস ছেড়ে দিন। দেখবেন পাঁজরের দুপাশ একত্রিত হচ্ছে। এরপর শ্বাস না নিয়ে কোমরটাকে ৩-৪ ইঞ্চি উঁচুতে তুলে যতটা সম্ভব মেরুদণ্ডের গোড়া ও হাঁটুকে সমান্তরালে আনুন। এ অবস্থায় লম্বা করে অন্তত ৫ বার দম নিন আর ছাড়ুন।  

 হাঁটুর ব্যায়াম

সমান বিছানায় ডান পাশে কাত হয়ে শুয়ে পড়ুন। মাথার নিচে একটা পাতলা বালিশ রাখুন। তারপর ডান পায়ের ওপর বাম পা তুলে শরীরটাকে একদম বাংলা ‘দ’ অক্ষরটির মতো বানিয়ে নিন। কোমর থেকে হাঁটু ও হাঁটু থেকে পা পর্যন্ত যেন একেবারে ৯০ ডিগ্রি বাঁকানো থাকে।

এরপর ডান হাতের ওপর বাঁ হাত রেখে কাঁধ বরাবর হাত দুটো সামনে মেলে দিন। এরপর শ্বাস নিতে নিতে বাঁ হাতটাকে বাঁ দিকে সরাতে থাকুন ও শরীরের উপরের অংশটাকেও বাঁ পাশে নিয়ে যান। তবে কোমর থেকে নিচের অংশ যেন আগের মতোই থাকে। অর্থাৎ শরীরের পেছনের অংশটাকে মুচড়ে বাঁ পাশে নিতে হবে। তবে ‘লোয়ার ব্যাক’ তথা নিচের অংশ ঘুরবে না। এরপর ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। এভাবে পর পর চারবার শ্বাস নিন ও ছাড়ুন। তারপর একই কাজ করুন বাঁ দিকে কাত হয়ে।

সূত্র: সিএনএন।



সাতদিনের সেরা