kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৭ জুলাই ২০২১। ১৬ জিলহজ ১৪৪২

সড়কের কাজ ফেলে পালাল ঠিকাদার, ২ বছর ধরে ভোগান্তিতে ২০ গ্রামবাসী

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

১৭ জুন, ২০২১ ১৪:৩৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সড়কের কাজ ফেলে পালাল ঠিকাদার, ২ বছর ধরে ভোগান্তিতে ২০ গ্রামবাসী

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে গত দুই বছর ধরে চরম ভোগান্তির শিকার ২০ গ্রামের মানুষ। উপজেলার সফিপুর হয়ে মাজুখান লস্করচালা আঞ্চলিক সড়কের নওপাইকা এলাকায় প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কের সংস্কারকাজ গত দুই বছর ধরে ফেলে রাখার কারণে গ্রামবাসীদের ভোগান্তির শেষ নেই। সড়কের ওই আধা কিলোমিটার সংস্কার না হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, ওই সড়কে গত দুই বছর আগে কাজ পাওয়া ডলি কন্সট্রাকশন এন্টারপ্রাইজ দেউলিয়া হয়ে যাওয়ায় কাজ ফেলে পালিয়ে গেছেন ঠিকাদার। ফলে ওই সড়কের আধা কিলোমিটার সড়ক সংস্কারকাজের জন্য নতুন করে টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। 

এলাকাবাসী, পথচারী ও উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, কালিয়াকৈরের সফিপুর থেকে মাঝুখান-লস্করচালা বাজার পর্যন্ত সড়কের রতনপুর থেকে রায়েরচালা বাজার পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার সড়কের সংস্কারকাজ টেন্ডারের মাধ্যমে পায় ডলি কন্সস্ট্রাকশন এন্টারপ্রাইজ। টেন্ডারের পর সড়কের বেশিরভাগ অংশের কাজ শেষ করলেও মাঝখান পান্ডার মিল থেকে লস্করচালা বাজার এলাকা পর্যন্ত আধা কিলোমিটার সড়ক বাদ রেখেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ বন্ধ করে দেয়। ফলে গত দুই বছর ধরে ওই সড়কে চলাচলরত আশপাশের ২০ গ্রামের মানুষের চলাচলে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। শুধু তাই নয়, ওই এলাকার কৃষক তাদের উৎপাদিত পণ্য উপজেলা সদরসহ রাজধানীতে নিয়ে যেতে পারছেন না। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সড়কের ওই আধা কিলোমিটার অংশ নিচু থাকায় সংস্কারকাজে মাটি ভরাট করে সড়কটি উঁচু করে কার্পেটিং করার কথা  ছিল। কিন্তু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দুই পাশের নিচু জমি থেকে মাটি কেটে সিডিউল মোতাবেক উঁচু না করেই কাজ বন্ধ করে দেয়। কাজ না করার ফলে গত বর্ষায় সড়কের ওই অংশ পানির নিচে তলিয়ে যায়। এতে আরো চরম আকার ধারণ করে। বর্ষার পানি চলে যাওয়ায় সড়কের ওই স্থান এতই খারাপ হয় যে যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা, মানুষ পায়ে হেঁটেও চলাচল করতে পারছে না। আসন্ন বর্ষার আগে সড়কের ওই অংশ মেরামত করা না হলে শিল্পাঞ্চল সফিপুর হতে ওই এলাকার যোগাযোগ একপ্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। সড়কের ওই অংশ মেরামত না করার ফলে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। 

ওই এলাকার বাসিন্দা ডা. নজরুল ইসলাম এবং এ কে এম শিশির বলেন, সড়কের নওপাইকা বিলের ওপর আধা কিলোমিটার সড়কে সংস্কারকাজ না করায় গত দুই বছর ধরে কাদা থাকায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে মানুষকে প্রায় ১৫-২০ কিলোমিটার পথ ঘুরে উপজেলা সড়কে যেতে হচ্ছে। বিষয়টি এর আগে অনেকবার উচ্চ পর্যায়ের জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। 

কালিয়াকৈর উপজেলা প্রকৌশলী অধিদপ্তরের প্রকৌশলী বিপ্লব পাল বলেন, ডলি এন্টারপ্রাইজ ওই সড়কের বাকি কাজটুকু করার কথা ছিল। কিন্তু ওই প্রতিষ্ঠানের মালিক নাসির উদ্দিনকে বার বার তাগাদা দেওয়ার পরও সড়কের সংস্কার কাজ হয়নি। তাই তার ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করা হয়েছে। শিগগিরইই কাজ করার জন্য নতুন ঠিকাদার নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে। যথাসময়ে কাজ না করার অপরাধে ডলি এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হবে।



সাতদিনের সেরা