kalerkantho

শুক্রবার । ২০ চৈত্র ১৪২৬। ৩ এপ্রিল ২০২০। ৮ শাবান ১৪৪১

পরনে বোরকা, পায়ে নূপুর বস্তাবন্দি লাশ: মেয়েটির পরিচয় মিলেছে

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর    

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৩:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরনে বোরকা, পায়ে নূপুর বস্তাবন্দি লাশ: মেয়েটির পরিচয় মিলেছে

রংপুরের বদরগঞ্জ সীমান্তের রংপুর সদরের মমিনপুর এলাকায় তিস্তা ক্যানেলের পানিতে ভাসছিল ভারী এক বস্তা। স্থানীয়রা একটু পরখ করে বুঝতে পারেন ওটাতে লাশ আছে। পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। সেখান থেকে বেরিয়ে আসে এক তরুণীর লাশ। আজ সকালের ঘটনা। দুপুর নাগাদ মেয়েটির বিস্তারিত পরিচয় মিলেছে।

বোরকা, দুই পায়ে নূপুর পরা মেয়েটির নাম রুমাইয়া আকতার রুমি। তিনি রংপুরের বদরগঞ্জ পৌর শহরের মুন্সিপাড়ার বদরুজ্জামান ও রফিকা বেগম দম্পতির মেয়ে। দিনাজপুরের ফুলবাড়ি উপজেলার ফুলবাড়ি ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে রংপুরের উদ্দেশে বের হয়েছিলেন রুমি।
 
আজ রবিবার সকালে তার বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় চারপাশে শত শত উৎসুক জনতা ভিড় করে। 

লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ ও স্থানীয়রাও প্রাথমিকভাবে ধারণা করেছিলেন মেয়েটি শিক্ষার্থী। তার ভ্যানিটি ব্যাগের ভেতর থেকে একটি কাগজ মেলে। তখন তার নাম সুমি আকতার (২১) বলে মনে করেন সবাই। সবাই ভাবছিলেন দুর্বৃত্তরা রাতের কোনো এক সময় তাকে হত্যা করে লাশ পানিতে ফেলে রেখে যায়। সকালে স্থানীয়রা ইউরিয়ার বস্তাবন্দি অবস্থা লাশটি দেখে পুলিশে খবর দেয়। মেয়েটির পরনে ছিল বোরকা ও টাইটস পায়জামা। পাশে ভ্যানিটি ব্যাগটি পড়েছিল। দুই পায়ে ছিল রূপার তৈরি নূপুর। 

সদর থানার ওসি এসএম সাজেদুর রহমান বলেন, প্রাথমিকভাবে হত্যা বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। লাশটি দেখার জন্য সেখানে ভিড় জমায় হাজার হাজার মানুষ।  

পুলিশ আরো জানায়, মেয়েটির নাক দিয়ে রক্ত বের হওয়ার দাগ রয়েছে। গালে আঙ্গুলের আঁচড়ের চিহ্ন ছিল। তার গায়ের রঙ ফর্সা। লাশটি রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর অনেক তথ্যই বেরিয়ে আসবে।

খবর পেয়ে সদর উপজেলার মমিনপুর ইউনিয়ের চেয়ারম্যান সুলতানা আক্তার ঘটনাস্থলে যান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা