kalerkantho

সোমবার । ২৮ নভেম্বর ২০২২ । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মহালয়ার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মহালয়ার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে মহালয়ার মাধ্যমে গতকাল দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু। ছবি : কালের কণ্ঠ

যথাযথ মর্যাদায় গতকাল মহালয়া উদযাপনের মধ্য দিয়ে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। গতকাল ভোরে চণ্ডিপাঠের মাধ্যমে দেবী দুর্গাকে মর্ত্যে নেমে আসার আমন্ত্রণ জানানো হয়। আগামী ১ অক্টোবর দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই উৎসব।

বিজ্ঞাপন

দুর্গাপূজার প্রস্তুতি পর্ব বা মহালয়ার প্রথম প্রহরে শেষ হয় পিতৃপক্ষের, আর শুরু হয় দেবীপক্ষের। একই সঙ্গে দুর্গাপূজার মূল অংশের প্রস্তুতি পর্ব হয়। এ উপলক্ষে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন মন্দির ও পূজামণ্ডপে ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিল। চণ্ডিপাঠ ছাড়াও মঙ্গলঘট স্থাপন ও শঙ্খ বাজিয়ে দেবীকে মর্ত্যে আহবান জানান ভক্তরা।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলেন, ভোর ৬টায় রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরের কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপে চণ্ডিপাঠ করে দেবীকে আহবান জানানো হয়। ১১টা পর্যন্ত বিশেষ পূজা হয়। সকালে মহালয়ার মূল আচার-অনুষ্ঠান হিসেবে ঘট স্থাপন করে ফুল, তুলসী ও বেলপাতা দিয়ে পূজা করা হয়।

রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠ মন্দিরেও ছিল অনুরূপ আনুষ্ঠানিকতা। সেখানে মিশনের অধ্যক্ষ চণ্ডিপাঠ ছাড়াও আবাহন সংগীত পরিবেশন করেন। গুলশান-বনানী সর্বজনীন পূজা উদযাপন পরিষদ বনানী পূজামণ্ডপে চণ্ডিপাঠ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ ছাড়া স্বামীবাগের লোকনাথ মন্দির, রমনা কালী মন্দির ও মা আনন্দময়ী আশ্রম, সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির, মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিল।

শান্তিপূর্ণভাবে উৎসব পালনের আহবান

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা শুরু হতে যাচ্ছে। এই শারদীয় উৎসব শান্তিপূর্ণভাবে পালনের আহবান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে সম্প্রীতি বাংলাদেশ।

গতকাল রবিবার এক বিবৃতিতে সম্প্রীতি বাংলাদেশ জানায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ, যাতে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবাই নিজ নিজ ধর্ম নির্বিঘ্নে পালন করতে পারে।



সাতদিনের সেরা