kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা করে পরিচয় পাল্টে আত্মগোপন

২১ বছর পর র‌্যাবের হাতে ধরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



২১ বছর আগে স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গত শনিবার রাতে রাজধানী ঢাকার বংশাল থেকে দণ্ডিত আলমকে (৪৫) গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি মানিকগঞ্জের সিংগাইরে ২০০১ সালের আলোচিত আম্বিয়া বেগম হত্যা মামলার আসামি।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আলম তাঁর মা-বাবার নাম পরিবর্তন করে ভিন্ন ঠিকানায় আত্মগোপনে ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি জাতীয় পরিচয়পত্রে নিজের নাম ঠিক রেখে মায়ের নাম আলেয়া বেগমের স্থলে জাহানুর বেগম ও বাবার নাম রইস উদ্দিনের স্থলে মো. ইয়াসিন ব্যবহার করেন। ঠিকানা দেন কাজী আলাউদ্দিন লেন, বংশাল, ঢাকা।

গতকাল রবিবার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৪-এর অধিনায়ক (সিও) ডিআইজি মোজাম্মেল হক বলেন, সিংগাইরের আলমের সঙ্গে একই থানার আটিপাড়া গ্রামের মকবুল হোসেনের মেয়ে আম্বিয়া বেগমের বিয়ে হয় ২০০১ সালের জুন মাসে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুক চেয়ে প্রায়ই আম্বিয়াকে মারধর করতেন আলম। দাবীকৃত ৫০ হাজার টাকা আম্বিয়ার পরিবার দিতে পারেনি। এরপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন বাড়তে থাকে। বাধ্য হয়ে মকবুল ধার করে জামাতা আলমকে ১০ হাজার টাকা দেন। কিন্তু যৌতুকের বাকি টাকা পেতে নির্যাতন বাড়িয়ে দেন আলম। মারধর করে আম্বিয়াকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেন অভিযুক্তরা। টাকা ছাড়া ফিরে এলে হত্যার হুমকিও দেন আলম।

২০০১ সালের ৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১১টার দিকে আম্বিয়ার বাবার বাড়িতে এসে আম্বিয়াকে ঘরের বাইরে ডেকে চড়-থাপ্পড়, কিল-ঘুষি মারতে থাকেন আলম। এরপর পূর্বপরিকল্পিতভাবে সঙ্গে আনা পেট্রল ঢেলে আম্বিয়ার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন। গুরুতর অগ্নিদগ্ধ আম্বিয়াকে প্রথমে সিংগাইরের সেবা ক্লিনিক ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে এক দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

 



সাতদিনের সেরা