kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১০ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৮ সফর ১৪৪৪

যৌন নিপীড়নের শিকার ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যৌন নিপীড়নের শিকার ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ

প্রাইভেট পড়ার টাকা শোধ করতে না পারায় সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে মো. মঞ্জুরুল আলম হানিফ নামে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ঘটনার পর থেকে ওই ছাত্রী মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এ কারণে ২৫ দিন ধরে সে বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না।

এদিকে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির আহ্বায়ক ও রামনা ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম জমাদ্দার ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ওই ছাত্রীর পরিবারকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা জানান, দুই মাস ধরে আর্থিক সমস্যার কারণে প্রতি মাসের পাওনা টাকা দেওয়া সম্ভব হয়নি। এ দুর্বলতাকে পুঁজি করে ওই শিক্ষক পড়া শেষে সহপাঠীরা চলে গেলে তাঁর মেয়ের শ্লীলতাহানি করেন। বিষয়টি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম জমাদ্দারকে জানানো হলে তিনি ভয়ভীতি প্রদর্শন করে একটি কাগজে জোরপূর্বক তাঁর স্বাক্ষর রাখেন। তিনি আরো জানান, ঘটনাটি চেপে যেতে এক আত্মীয়ের কাছে ৩০ হাজার টাকা দেন ওই শিক্ষক, যদিও তা হাতে পাননি তিনি।

তিনি জানান, মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তিনি এত দিন বিষয়টি কাউকে জানাননি। তবে বর্তমানে তাঁর মেয়ের ওপর ঘটে যাওয়া বর্বরতা এলাকায় সবার মুখে মুখে থাকায় তিন এই ঘটনার বিচার চান।

ঘটনাটি জানতে একাধিকবার অভিযুক্ত মঞ্জুরুল আলমের মোবাইল ফোনে কল করলে তিনি তা কেটে দেন। আর নজরুল ইসলাম জমাদ্দারের মোবাইলে কল করা হলে তিনি কথা বলেননি।

এ বিষয়ে রামনা শের-ই-বাংলা সমবায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসাইন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বিদ্যালয়ে ছাত্রীর পরিবার অভিযোগ দেয়নি। আমরা লোকমুখে ওই শিক্ষকের বিষয়ে জানতে পেরে আপাতত তাঁকে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান থেকে বিরত রেখেছি। ’

 



সাতদিনের সেরা