kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী

বাংলাদেশের সঙ্গে সশস্ত্র বাহিনী পর্যায়ে সহযোগিতা বাড়ছে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৩ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশের সঙ্গে সশস্ত্র বাহিনী পর্যায়ে সহযোগিতা বাড়ছে

নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনে গতকাল সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বিবেক রাম চৌধুরী, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিং, বাংলাদেশে ভারতের সাবেক হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ, ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরানসহ অন্য অতিথিরা। ছবি : সংগ্রহ

বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সশস্ত্র বাহিনী পর্যায়ে সহযোগিতা বাড়ছে বলে জানিয়েছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। গতকাল সোমবার নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার সময় তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে ভারতের চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বিবেক রাম চৌধুরী ও নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিংও উপস্থিত ছিলেন। এই প্রথমবারের মতো ভারতের কোনো প্রতিরক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশ হাইকমিশনে যান।

বিজ্ঞাপন

ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিরক্ষা সংলাপ, স্টাফ পর্যায়ে আলোচনা, যৌথ প্রশিক্ষণ, অনুশীলন ও উচ্চ পর্যায়ে সফর বিনিময়ের মতো বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা ক্রমে বাড়ছে। এতে আমি আনন্দিত। বাংলাদেশের তিন বাহিনীর প্রধানরা এ বছর ভারত সফর করেছেন। ভারতের সেনা ও বিমানবাহিনী প্রধানরা এ বছর বাংলাদেশ সফর করেন। প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম কিনতে ভারত বাংলাদেশকে ৫০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দিয়েছে। ’

রাজনাথ সিং বলেন, আজকের গর্বিত ও পেশাদার বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক মূল্যবোধের কাছে ঋণী। মুক্তিযুদ্ধের পরীক্ষা ও সংগ্রামের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী গড়ে উঠেছে। আজ জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিক অংশগ্রহণ এবং পেশাদারি ও অঙ্গীকারের বৈশ্বিকভাবে তাদের সম্মানের আসনে থাকা কোনো কাকতালীয় ঘটনা নয়।

রাজনাথ সিং চলতি বছরকে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বছর হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘এ বছর আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্বের ৫০ বছর এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালন করছি। ’

অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও স্বাধীনতা সংগ্রামে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। পরে হাইকমিশনের আয়োজনে হাইকমিশনের প্রতিরক্ষাবিষয়ক উপদেষ্টা মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদের সূচনা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আলোচনা শুরু হয়।



সাতদিনের সেরা