kalerkantho

রবিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৮ নভেম্বর ২০২১। ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাংলার মানুষ সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করবে

হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন, সম্প্রীতি সমাবেশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বাংলার মানুষ সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করবে

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার আন্দোলনে নেমেছেন পঞ্চগড় সদর উপজেলার আমলাহার গ্রামের বাসিন্দা এবং দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম শান্তি। গতকাল পঞ্চগড় শহরে। ছবি : কালের কণ্ঠ

সম্প্রীতির বাংলাদেশে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সবাই মিলেমিশে বসবাস করছে। কিন্তু দেশে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টা চলছে। এ সম্প্রীতি বিনষ্টে আন্তর্জাতিক চক্রও কাজ করতে পারে। বাংলার মানুষ সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করবে। দেশের কয়েকটি এলাকায় মন্দির, পূজামণ্ডপ এবং হিন্দুদের বাড়িঘর ও দোকানপাটে হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন, সম্প্রীতি সমাবেশ ইত্যাদি কর্মসূচিতে এসব কথা বলেন বক্তারা। তাঁরা সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ও নৈরাজ্য বন্ধ, এর সঙ্গে জড়িত ও মদদদাতাদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিরও দাবি জানান। গতকাল বৃহস্পতিবার বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে জেলা-উপজেলায় এসব কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

নড়াইলে মানববন্ধনে হিন্দু নেতারা বলেন, ২০০১ সালে যে নির্যাতন হয়েছিল তার দায়ভার বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের। এর পর থেকে যত সংখ্যালঘু নির্যাতন হয়েছে, তার জন্য সরলীকরণ করে শুধু জামায়াতকে দোষারোপ করলে হবে না; সরকারের উচিত সব ঘটনার বিচার করা।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’-এর ব্যানারে সকালে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচিতে উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, ‘সাম্প্রদায়িকতার বীজ আমাদের মধ্যেই আছে। নিজেদের জীবনযাপনের মধ্যে অসাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মনিরপেক্ষতার চর্চা করার মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতা থেকে বের হতে হবে। আর তাই নিজেদের বাড়িতে, মননে ও পাঠ্য বইয়ে অসাম্প্রদায়িকতার চর্চা করতে হবে।’ এর আগে একই দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম এমপি বলেছেন, ‘স্বাধীনতার শত্রু একটি দল এখনো সজাগ। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করে সরকার এবং দেশের ক্ষতি করতে তারা সব সময় তৎপর।’ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গতকাল সম্প্রীতিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

১৯৭১ সালের হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর পরাজিত দোসররা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়নকে সহ্য করতে পারে না। তাই সেই অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের জানমাল, বাড়িঘর, মণ্ডপ ও মন্দিরে হামলা চালিয়েছে। কিন্তু বাংলার মানুষ বঙ্গবন্ধুকন্যার সফল নেতৃত্বে দেশকে যেমন এগিয়ে নিয়েছে, তেমনি সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করবে। বিকেলে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সামনে ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ কর্মসূচিতে বক্তারা এসব কথা বলেন। তাঁরা নেতাকর্মী ও জনগণকে উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তির ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সতর্ক থাকতে এবং তাদের প্রতিহত করার আহ্বান জানান। এর আগে শহরের শেখ রাসেল কমপ্লেক্সের সামনে থেকে বিশাল মিছিল বের করা হয়।

খুলনা নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে বিকেলে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন বাম গণতান্ত্রিক জোট খুলনা জেলা শাখার নেতারা। অন্যদিকে ‘সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ স্লোগানে খুলনায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে ‘শান্তি ও সম্প্রীতির র্যালি’ বের করে আওয়ামী যুবলীগ খুলনা মহানগর শাখা।

বাগেরহাট প্রেস ক্লাবের সামনে সকালে মানববন্ধনে বিভিন্ন সংগঠনের নারী-পুরুষ ও সাংবাদিকরা অংশ নেন। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সহযোগিতায় বাগেরহাট জেলা হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।

নাটোর প্রেস ক্লাবের সামনে দুপুরে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদসহ হিন্দু সম্প্রদায়ের নানা সংগঠনের উদ্যোগে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শোভাযাত্রা বের করা হয়। অন্যদিকে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শোভাযাত্রা বের করা হয়। এতে বীর মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সব ধর্মের প্রতিনিধি, ছাত্র-শিক্ষকসহ সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন। ‘দেশের মানুষের মাঝে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রয়েছে। দেশব্যাপী এ সম্প্রীতি বিনষ্টে আন্তর্জাতিক চক্রও কাজ করতে পারে। আমাদের সচেতন হতে হবে। যার যার ধর্ম সে পালন করবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের ছাড় দেওয়া হবে না।’ লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানায় আয়োজিত সম্প্রীতি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পুলিশ সুপার ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান এসব কথা বলেন।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে নড়াইলে সকালে মানববন্ধনে নড়াইল প্রেস ক্লাব, মূর্ছনা, হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম, স্বাবলম্বী, ছন্দায়নসহ বিভিন্ন সংগঠন অংশ নেয়।

ঠাকুরগাঁও পৌর শহরের চৌরাস্তায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা জাসদের সভাপতি রাজিউর রহমান, জেলা জেএসডি ও প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, সিপিবির সহসাধারণ সম্পাদক আবু সায়েম, ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন শান্তি, উদীচীর সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক রিজু প্রমুখ।

পঞ্চগড়ে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন শুরু করেছেন সাইফুল ইসলাম শান্তি নামের এক তরুণ। মাথায় ‘অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চাই’ লেখা ক্যাপ, সামনে ও পেছনে দুটি ব্যানার আর হ্যান্ডমাইক নিয়ে জেলা শহরের চৌরঙ্গী মোড় থেকে সচেতনতামূলক প্রচার শুরু করেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্র।

[প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার কালের কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা।]



সাতদিনের সেরা