kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

মুশতাককে কারাগারে হত্যা করা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুশতাককে কারাগারে হত্যা করা হয়েছে

লেখক মুশতাক আহমেদ সরকারের নির্মম হত্যার শিকার হয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একই সঙ্গে কারাবন্দি কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের মুক্তি দাবি করেছেন তিনি।

গতকাল শুক্রবার বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, বর্তমান কর্তৃত্ববাদী সরকার নিজেদের অপকর্ম ও ভয়াবহ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের সমালোচনা বরদাশত করছে না। যারা স্বাধীনভাবে গণমাধ্যমে নিজের মত প্রকাশের চেষ্টা করছে, তাদের জীবনে নেমে আসছে ভয়ংকর পরিণতি। হয় গুমের শিকার হতে হচ্ছে, নয়তো সরকারি হেফাজতে প্রাণ দিতে হচ্ছে। সর্বশেষ নির্মম শিকার হলেন মুশতাক আহমেদ। মূলত মুশতাককে কারাগারে অবর্ণনীয় নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, মুশতাক লুটপাটকারী, কালোবাজারি, সন্ত্রাসী কিংবা ডাকাত ছিলেন না। তিনি ছিলেন ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজের মেধাবী ছাত্র। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চিন্তার স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে গিয়ে তাঁকে অকালে জীবন দিতে হলো। মুশতাকের এই নির্ভীক আত্মদানের মধ্য দিয়ে দেশের তরুণসমাজ জেগে উঠবে এবং দেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা, নাগরিক স্বাধীনতাসহ সুশাসন ও আইনের শাসন ফিরে আসবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজ মানুষের জান-মালের কোনো নিরাপত্তা নেই। জাতির ওপর ঘোর দুর্দিন নেমে এসেছে। দেশে নব্য বাকশালী শাসন জারি রাখা হয়েছে, যাতে কেউ টুঁ শব্দ করতে না পারে। মানুষকে নিঃশব্দ করতেই গুম, খুন, ক্রসফায়ার, পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুকে রাষ্ট্রীয় জীবনের অনুষঙ্গ করা হয়েছে।

ফখরুল বলেন, নজিরবিহীন অপশাসন ও কুকীর্তি নিয়ে দেশে-বিদেশে সমালোচনার যে ঝড় বইছে তা থেকে জনদৃষ্টি ভিন্নদিকে সরাতেই জাতীয়তাবাদী শক্তিসহ বিবেকবান, স্বাধীনচেতা অনলাইন ব্লগার ও লেখকদের দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সরকার। তবে এই দুরাচারের পরিণতি হবে ভয়াবহ। ফখরুল আরো বলেন, কারাগারে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। স্বজনহারা পরিবারের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ ও বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

মন্তব্য