kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

লাইসেন্স বাতিল

বিতর্কিত আ. লীগ নেতা মাসুমের অস্ত্র জমা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাওয়ার পর থানায় দুটি অস্ত্র জমা দিয়েছেন চট্টগ্রামের আলোচিত ও বিতর্কিত আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুম। গতকাল শনিবার দুপুরে তিনি খুলশী থানায় গিয়ে একটি শটগান ও একটি পিস্তল জমা দেন।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের একসময়ের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী দিদারুল আলম মাসুম এখন লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ২০১৩ সালে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সময় প্রকাশ্যে গুলি চালিয়ে দেশব্যাপী তুমুল সমালোচনার জন্ম দিয়েছিলেন পুলিশের তৎকালীন তালিকাভুক্ত এই সন্ত্রাসী। পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগে পদ মিললেও বিতর্ক তাঁকে কখনোই পিছু ছাড়েনি।

বহুল আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত হত্যাকাণ্ডের ‘নির্দেশদাতা’ হিসেবে দিদারুল আলম মাসুমের নাম আদালতে দেওয়া এক আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে উঠে আসার পর নতুন করে বির্তক তৈরি হয় চট্টগ্রামে। এরই মধ্যে মাসুমের অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিলের জন্য আবেদন করেন লালখান বাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর এফ কবির মানিক। অবশ্য মানিকের সঙ্গে মাসুমের আগে থেকেই বিরোধ রয়েছে।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মানিক তাঁর আবেদনে নিজের ও স্থানীয়দের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে বলে উল্লেখ করেছিলেন। এর সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সময় প্রকাশ্যে গুলি চালানোর সময় ধারণ করা স্থিরচিত্র যুক্ত করে দেন।

তদন্তের পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মাসুমের দুটি অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল করে। বিষয়টি চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে খুলশী থানায় পৌঁছে। এর পরই মাসুম দুটি অস্ত্র থানায় জমা দেন।

খুলশী থানার ওসি প্রণব চৌধুরী বলেন, ‘দুটি অস্ত্র ও গুলি জমার বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসককে প্রতিবেদন পাঠানো হবে।’

অস্ত্র জমা দেওয়ার আগে দিদারুল আলম মাসুম দাবি করেন, ‘আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লালখান ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দেওয়ার পরই বর্তমান কাউন্সিলর পেছনে লেগেছেন।’ 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা