kalerkantho

বুধবার । ২৯ জানুয়ারি ২০২০। ১৫ মাঘ ১৪২৬। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ

ছয় ঘাটের তিনটি ও পাঁচ ফেরি বন্ধ, বাড়ছে দুর্ভোগ

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি সংকট দিন দিন বাড়ছে। পাশাপাশি দৌলতদিয়ায় ছয়টি ফেরিঘাটের তিনটিই বন্ধ থাকায় স্বাভাবিক পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। ফলে ঘাটে ফেরির নাগাল পেতে দীর্ঘ সময় আটকে পড়ে থাকছে শত শত গাড়ি।

ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাস, পণ্যবাহী ট্রাকসহ শত শত গাড়ি গতকাল বৃহস্পতিবারও দৌলতদিয়া ঘাটে আটকে পড়ে। ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের ইউনিয়ন বোর্ড এলাকা পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়কে যানজট সৃষ্টি হয়। আর আটকে পড়া বাসের যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হয়।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচল করা বেশির ভাগ ফেরি বহু বছরের পুরনো। যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ফেরিগুলো ঘন ঘন বিকল হয়ে পড়ছে। বহরে থাকা ১২টি রো রো (বড়) ফেরির পাঁচটিই বিকল হয়ে আছে। এর মধ্যে আমানত শাহ নামের ফেরিটি বিকল হয়ে পড়ায় তা পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রাখা হয়। তিন দিন পর গতকাল সকালে মেরামতকাজের জন্য ফেরিটি পাঠানো হয় নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে। বিকল হওয়া অন্য চারটি বড় ফেরির মধ্যে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন ১০ দিন, কেরামত আলী এক মাস, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান দুই মাস ও বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ছয় মাস ধরে মেরামতকাজের জন্য নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে পড়ে আছে।

এদিকে গতকাল সকালে স্বর্ণচাঁপা নামের অন্য একটি ফেরি দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ থেকে প্রত্যাহার করে পটুয়াখালীর বদনাতলীতে পাঠানো হয়। পাঁচটি রো রো ফেরি বিকল থাকার পরও স্বর্ণচাঁপা নামের ফেরিটি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় ব্যস্ততম এই নৌপথে সংকট আরো বেড়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা