kalerkantho

তরুণরা বোঝা নয়, সম্পদ

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জনসংখ্যা একটি দেশের অন্যতম মূল উপাদান। জনমানবহীন কোনো দেশের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না। একটি দেশ কিভাবে উন্নয়নশীল দেশ থেকে ধীরে ধীরে উন্নত দেশে রূপান্তরিত হবে, তা নির্ভর করে ওই দেশের মানুষের মেধা ও কার্যাবলির ওপর। প্রতিনিয়ত দেশকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়েছে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায়; এতে তরুণদেরও বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। তারুণ্যের শক্তিতে বায়ান্নর রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে মাতৃভাষা বাংলা অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। তরুণরা দেশের সম্পদ। তাদের সঠিকভাবে কাজে লাগাতে হবে। চাকরিপ্রার্থী তরুণ যুবকের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। চাহিদা ও পছন্দমতো চাকরি না পেয়ে তরুণরা হতাশ হয়। দুষতে থাকে নিজেকে, কখনো বা নিজের ভাগ্যকে, এমনকি রাষ্ট্রকেও। অনেকেরই পড়ালেখার মূল উদ্দেশ্য থাকে চাকরি। গতানুগতিক ধারার পড়ালেখার পেছনে সময় ব্যয় করায় চাকরি মূল লক্ষ্যে পরিণত হয়েছে। গবেষণা ও কর্মমুখী পড়ালেখা কম হচ্ছে। সব জায়গায় পদ সীমিত। পরিবারের চাওয়া ও নিজের ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে মানসিক যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে অনেকে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। মাদকের জালে আটকা পড়ে। বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত হয়ে পরিবার, সমাজ, এমনকি দেশের ক্ষতি করতেও দ্বিধা করে না। তরুণ জনবলের এরূপ অবস্থা দেশের জন্য উদ্বেগের। এ জন্য তাদের জীবনমুখী শিক্ষা ও তথ্য-প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। জীবনমুখী শিক্ষার মাধ্যমে স্বনির্ভর হওয়ার দীক্ষা দেওয়াও প্রয়োজন। দেশকে এগিয়ে নিতে পরিবারের পরোক্ষ ভূমিকা ও সরকারকে ভূমিকা পালন করতে হবে। তরুণদেরও প্রমাণ করতে হবে, তারা দেশের বোঝা নয়, সম্পদ। এ বিষয়ে সরকারি উদ্যোগ জরুরি।

আল মাহমুদ, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ, সাতক্ষীরা।

মন্তব্য