kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

বিকেলে থানায় অভিযোগ, রাতে ধর্ষণের শিকার

নরসিংদী প্রতিনিধি   

১ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিকেলে থানায় অভিযোগ, রাতে ধর্ষণের শিকার

নরসিংদীতে বিকেলে থানায় একটি পরিবারের বিরুদ্ধে মারধর ও যৌন হয়রানির লিখিত অভিযোগ করেন এক গৃহবধূ। এর পর রাতে তিনি সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার চরাঞ্চলে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূকে গত বুধবার নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় বুধবার রাতে ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে নারী নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেছেন। এ মামলায় পুলিশ বাদল মিয়া নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূর স্বামী দিনমজুর। তবে কখনো কখনো নদীতে মাছ ধরেন। ওই গৃহবধূ জানান, গত মঙ্গলবার বিকেলে তাঁর স্বামী বাড়ির বাইরে ছিলেন। ওই সময় বাদল মিয়ার পরিবারের দুই নারী সদস্য এক বালতি পচা মাছ এনে তাঁদের ঘরের সামনে ফেলে যান। সেগুলো সরানোর কথা বললে তাঁরা ওই গৃহবধূকে গালাগাল করেন এবং চুল ধরে মাটিতে ফেলে দেন। এক পর্যায়ে তাঁদের হয়ে বাদল এসে তাঁকে মারধর ও যৌন হয়রানি করেন। সেই সঙ্গে শিশুসন্তানকে পানিতে ফেলে দেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যান। খবর পেয়ে তাঁর স্বামী এসে তাঁকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করান।

ওই গৃহবধূ আরো বলেন, এ ঘটনায় সন্ধ্যার পর তাঁরা নরসিংদী মডেল থানায় যান মামলা করতে। বাদলসহ তাঁর পরিবারের পাঁচজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়ে বাড়ি ফেরার পর তাঁর স্বামী মাছ ধরতে নদীতে চলে যান। তিনি দুই বছর বয়সী সন্তানকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন।

তিনি জানান, থানায় মামলা করতে গেছেন জানতে পেরে রাত ২টার দিকে বাদল আরো একজনকে সঙ্গে নিয়ে তাঁদের ঘরের টিন ভেঙে ভেতরে ঢোকেন। এরপর তাঁকে মারধর করে দুজন পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। যাওয়ার আগে বলে যান যে এ ঘটনা কাউকে বললে তাঁর ছেলেকে মেরে ফেলবেন।

ভুক্তভোগী গৃহবধূর স্বামী জানান, ধর্ষণের ঘটনায় দুজন জড়িত। তাঁদের একজন বাদল মিয়া (৫০)। তিনি আগে মাদকের কারবার করতেন। কয়েকটি মামলায় আসামি হওয়ার পর মাদক কারবার ছেড়ে দিলেও এলাকায় মাদকসেবী হিসেবে পরিচিত। অন্যজনকে চিনতে পারেননি তাঁর স্ত্রী।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. লোপা চৌধুরী জানান, ওই গৃহবধূর চিকিৎসা চলছে। আলামত সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে।

নরসিংদী মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার বলেন, ‘মঙ্গলবার শ্লীলতাহানি ও মারধরের বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছিল। তবে এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই যে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে, তা আমরা নিশ্চিত নই। ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাদল মিয়াকে বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ’

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম। এর আগে তিনি ওই গৃহবধূকে দেখতে হাসপাতালে গিয়ে তাঁর চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ফারিয়া আফরোজ, সদর মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার, পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ওসি আবুল বাশার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

 



সাতদিনের সেরা