kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বাউলশিল্পীকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে মাথা ন্যাড়া

তিন মাতবর গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাউলশিল্পীকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে মাথা ন্যাড়া

বগুড়ার শিবগঞ্জে মেহেদী হাসান (১৬) নামের এক বাউলশিল্পীকে মারধর করে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার অভিযোগে এক স্কুল শিক্ষকসহ তিন গ্রাম্য মাতবরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ উপজেলার জুড়ি মাঝপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃত তিন মাতবর হলেন শিবগঞ্জ উপজেলার গুজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও জুড়ি মাঝপাড়ার বাসিন্দা মেজবাউল ইসলাম (৫২), একই গ্রামের শফিউল ইসলাম খোকন (৫৫) ও তারেক রহমান (২০)। ঘটনার শিকার বাউলশিল্পী মেহেদী হাসান জুড়ি মাঝপাড়ার বেল্লাল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, মেহেদী হাসান গুজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে আর্থিক অনটনের কারণে আর পড়াশোনা করতে পারেনি। এরপর পার্শ্ববর্তী ধাওয়াগীর গ্রামের মতিন বাউলের সঙ্গে পরিচয় হলে সে তার সঙ্গে চলাফেরা শুরু করে। মেহেদী হাসান কয়েক বছর ধরে মতিন বাউলের সঙ্গে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাউলগান গেয়ে উপার্জিত টাকায় জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। মেহেদী হাসান সব সময় সাদা লুঙ্গি, সাদা ফতুয়া ও সাদা গামছা ব্যবহার করত। পাশাপাশি বাউলরীতি অনুযায়ী তার মাথায় বাবরি (লম্বা) চুল। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিরা মেহেদী হাসানের পোশাক এবং মাথার চুল নিয়ে বিভিন্ন সময় অশালীন মন্তব্য ও কটাক্ষ করতেন। এসবের প্রতিবাদ করায় ওই তিনজনসহ পাড়ার আরো কয়েকজন গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে মেহেদীর বাড়িতে যান। তাঁরা মেহেদীকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে জোর করে তার মাথা ন্যাড়া করে দেন। সে সময় বাধা দিতে গেলে তাকে মারধরও করা হয়। মাতবররা ওই সময় তাকে বাউল গান ছেড়ে দিতে বলেন এবং মাথার চুল আবার বড় করলে তাকে গ্রামছাড়া করার হুমকি দেন। ঘটনার পর থেকে লজ্জা ও ভয়ে বাড়ির বাইরে যায়নি মেহেদী।

শিবগঞ্জ থানার ওসি মঙ্গলবার রাতে মোবাইল ফোনে বাউল শিল্পীর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার বিষয়টি জানতে পারেন। এরপর তাত্ক্ষণিক তিনি মেহেদীকে পুলিশ হেফাজতে নেন, সেই সঙ্গে অভিযান চালিয়ে ওই ঘটনায় জড়িত তিনজনকে আটক করেন। পরে আটক তিনজনসহ পাঁচজনের নাম উল্লেখসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মেহেদী হাসান বাদী হয়ে রাতেই থানায় মামলা দায়ের করে। শিবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত অমানবিক। অসহায় ওই বাউল শিল্পীর পরবর্তী নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।



সাতদিনের সেরা