kalerkantho

শনিবার । ৩ আশ্বিন ১৪২৮। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১০ সফর ১৪৪৩

শপথ রবিবার

প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন ড. শামসুল আলম

বাহরাম খান   

১৬ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন ড. শামসুল আলম

মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী হচ্ছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ড. শামসুল আলম। বর্তমানে তিনি সিনিয়র সচিব হিসেবে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগে কর্মরত আছেন। সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক সূত্র কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আগামী রবিবার বিকেলে বঙ্গভবনে তাঁর শপথ অনুষ্ঠান আয়োজনের কাজ চলছে। তাঁকে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর দপ্তর দেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

নিয়ম অনুযায়ী মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী নিয়োগ হওয়ার পর সরকারপ্রধান সংশ্লিষ্ট মন্ত্রিপরিষদ সদস্যের দপ্তর বণ্টন করেন। দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার জন্যই তাঁকে মন্ত্রিসভায় নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে শামসুল আলমকে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগের ফাইল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে গেছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে গতকাল রাত সাড়ে ১১টার দিকে শামসুল আলম কালের কণ্ঠকে জানান, তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে এখনো কোনো খবর পাননি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘শুনেছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে সামারি (সারসংক্ষেপ) যাওয়ার কথা। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তা গিয়েছে কি না আমি জানি না। আপনার কাছ থেকেই প্রথম শুনলাম।’

বর্তমান মন্ত্রিসভা গঠন হওয়ার পর একাধিকবার ছোটখাটো পরিবর্তন হয়েছে। প্রতিবারই বড় পরিবর্তনের কথা চাউর হলেও তা হয়নি। এবারও একজন প্রতিমন্ত্রী নিয়োগ হচ্ছেন। আর কারো দপ্তর বদল বা যোগ-বিয়োগের কথা জানা যায়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বেশ কিছুদিন আগে থেকেই একটি পরিবর্তনের ইঙ্গিত সরকারপ্রধানের পক্ষ থেকে দেওয়া ছিল। এর মধ্যে শামসুল আলম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে যোগ হচ্ছেন, এটা প্রায় নিশ্চিত ছিল। সেই সঙ্গে আরো কেউ যোগ হতে পারেন বা কারো দপ্তর বদল হতে পারে—এমন গুঞ্জনও সচিবালয়ে ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত শামসুল আলমই যোগ হচ্ছেন বলে জানা গেছে।

শামসুল আলম বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা ও গবেষণায় যুক্ত ছিলেন। এ ছাড়া ২০০২ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থায় পূর্ণকালীন চাকরিতে যুক্ত ছিলেন। ২০০৯ সালে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব মর্যাদা) হিসেবে নিয়োগ পান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টানা তিন মেয়াদের সরকারের প্রথম থেকে ভিশনারি সব পদক্ষেপের সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত আছেন ড. আলম। বাংলাদেশের প্রথম দীর্ঘমেয়াদি প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ‘রূপকল্প ২০১০-২০২১’ এবং শতবর্ষী বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০-সহ একাধিক পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণীত হয়েছে তাঁর হাত ধরে।

 

 



সাতদিনের সেরা