kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

শান্তি সূচকে ৮ ধাপ পেছাল বাংলাদেশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শান্তি সূচকে ৮ ধাপ পেছাল বাংলাদেশ

বৈশ্বিক শান্তি সূচকে (জিপিআই) এবার ৮ ধাপ পিছিয়েছে বাংলাদেশ। ১৬৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১০১তম অবস্থানে রয়েছে। গত বছর বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৯৩তম। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থা ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিস (আইইপি) এ সূচক তৈরি করেছে। গতকাল বুধবার সংস্থাটি ২০১৯ সালের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এবারের সূচকে শান্তি ও স্থিতিশীলতায় সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছে আইসল্যান্ড। এর পরে আছে নিউজিল্যান্ড, পর্তুগাল, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, কানাডা, সিঙ্গাপুর, স্লোভেনিয়া, জাপান ও চেক প্রজাতন্ত্র। আর শান্তি সূচকে সবচেয়ে নিচের অবস্থানে আছে আফগানিস্তান। সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে থাকা দশ দেশের বাকি ৯টি হলো সিরিয়া, দক্ষিণ সুদান, ইয়েমেন, ইরাক, সোমালিয়া, মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, লিবিয়া, ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো ও রাশিয়া।

দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে থাকলেও ভুটান, শ্রীলঙ্কা ও নেপালের চেয়ে পিছিয়ে আছে। এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে এবার শীর্ষে অবস্থান করছে ভুটান। সূচকে তাদের অবস্থান ১৫তম।

জিপিআই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৈশ্বিকভাবে সীমিত আকারে শান্তি বেড়েছে। দেশগুলোর অর্থনীতির ওপর সহিংসতা কী ধরনের প্রভাব ফেলছে তা সূচক গণনায় বিবেচনা করা হয়েছে। ২০১৮ সালে সংঘাত-সহিংসতার কারণে বিশ্ব অর্থনীতির ক্ষতির পরিমাণ ছিল ১৪ দশমিক ১ ট্রিলিয়ন ডলার। এই অঙ্ক বিশ্বের মোট উৎপাদনের ১১.২ শতাংশ। সূচকে বিশ্বের ৮৬টি দেশের উন্নতি হলেও ৭৬টি দেশের অবনতি হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ২০১৮ সালে বাংলাদেশসহ ৯টি দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতা মারাত্মক ব্যাহত হয়েছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে ভবিষ্যতে এ দেশের এক কোটি ৮০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বাংলাদেশ ১৬ শতাংশ ভূমি হারানোর শঙ্কায় আছে।

জলবায়ু পরিবর্তন আগামী দিনে বিশ্বশান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকিস্বরূপ বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়, উষ্ণায়নের কারণে বিশ্বের প্রায় ১০০ কোটি মানুষের জীবন উচ্চ ঝুঁকিতে আছে। এরই মধ্যে তাদের ৪০ শতাংশ লড়াই ও সংঘাতে জড়িয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।

আইইপির চেয়ারম্যান স্টিভ কিলেলিয়া বলেন, বৈশ্বিক শান্তিতে জলবায়ু পবির্তন বড় ধরনের অন্তরায় হতে চলেছে। কোন দেশগুলো উচ্চ ঝুঁকিতে আছে, কী ধরনের ঝুঁকিতে আছে এবং কী ধরনের প্রভাব হতে পারে—এসবে নজর দিলে বিষয়টি আরো পরিষ্কার হবে। সূত্র : জিপিআই, রয়টার্স।

 

মন্তব্য