kalerkantho

সোমবার । ২৮ নভেম্বর ২০২২ । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

নবী-রাসুলদের প্রধান চার কাজ

ধারাবাহিক তাফসির

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহান আল্লাহ বলেন, ‘আপনার আগে মানুষের মধ্যে পুরুষদেরই পাঠিয়েছিলাম, আমি তাদের কাছে ওহি পাঠিয়েছি, তোমরা যদি না জানো তাহলে জ্ঞানীদের জিজ্ঞাসা করো। আমি তাদের এমন দেহবিশিষ্ট করিনি যে তারা আহার্য গ্রহণ করত না, তারা চিরস্থায়ীও ছিল না। ’ (সুরা : আম্বিয়া, আয়াত : ৭-৮)

তাফসির : উল্লিখিত আয়াতে নবী নিয়ে কাফিরদের ভুল ধারণার জবাব দেওয়া হয়েছে। তাদের ধারণা ছিল যে পূর্ববর্তী নবী-রাসুলরা ছিলেন ফেরেশতা।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু কোরআনের ভাষ্য মতে পৃথিবীতে কেবল মানুষকে নবী-রাসুল হিসেবে পাঠানো হয়েছে। কেননা রিসালাত ও নবুয়তের মূল উদ্দেশ্য মানবজাতিকে হেদায়াত তথা আল্লাহর পথের দিশা দেওয়া। সমাজের সব শ্রেণিকে দাওয়াত দেওয়া, অবিশ্বাসীদের প্রশ্নের জবাব দেওয়া, তাদের সঙ্গে বিতর্ক করা, সব ধরনের প্রয়োজনে সাড়া দেওয়া নবুয়ত ও রিসালতের অন্যতম দায়িত্ব। তাই মানুষের মধ্যে কেবল পুরুষদের নবী-রাসুলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘আপনার আগে জনপদের পুরুষদেরই কেবল আমি নবী হিসেবে পাঠিয়েছি, তাদের কাছে আমি ওহি পাঠাতাম। ’

(সুরা : ইউসুফ, আয়াত : ১০৯)

পৃথিবীতে আল্লাহ তাআলা অসংখ্য নবী-রাসুল প্রেরণ করেছেন। তাঁদের মধ্যে ২৫ জনের নাম পবিত্র কোরআনে উল্লেখ আছে। নাম জানা ও অজানা সব নবী ও রাসুলকে সত্য বলে বিশ্বাস করা সব মুসলিমের ঈমানের অন্যতম অনুষঙ্গ। প্রথম মানুষ আদম (আ.)-এর মাধ্যমে পৃথিবীতে নবী আগমনের ধারাক্রম শুরু হয় এবং মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর মাধ্যমে তা শেষ হয়।

পবিত্র কোরআনে নবী-রাসুলদের (আ.) মৌলিক চারটি কাজের কথা বলা হয়েছে। আল্লাহ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে একজন রাসুল প্রেরণ করেছেন, যিনি তাদেরকে তাঁর আয়াতগুলো পড়ে শোনান, তাদেরকে পরিশুদ্ধ করেন এবং কিতাব ও হিকমত শিক্ষা দেন। অথচ এর আগে তারা সুস্পষ্ট গোমরাহিতে নিমজ্জিত ছিল। ’ (সুরা : জুমা, আয়াত : ২)

নবী-রাসুলদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য তাঁরা মানুষ। তাই সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে সর্বোত্তম পদ্ধতিতে আল্লাহর দ্বিনের প্রচার করা যাবে। আর মানুষের পক্ষে তাদের মধ্য থেকে মনোনীত ব্যক্তিকে অনুসরণ করা সহজ। অন্যত্র ইরশাদ হয়েছে, ‘আপনি বলুন, আমি মানুষের মধ্যে নতুন কোনো নবী নই, আমি জানি না আমার ও তোমাদের ব্যাপারে (পরকালে) কী করা হবে, আমার প্রতি যা ওহি করা হয় আমি কেবল তাই অনুসরণ করি, আমি কেবল একজন সতর্ককারী। ’ (সুরা : আহকাফ, আয়াত : ৯)

অন্য আয়াতে বলা হয়েছে, ‘আমি সুসংবাদদাতা ও সাবধানকারী রাসুল প্রেরণ করেছি, যাতে রাসুল আগমনের পর আল্লাহর বিরুদ্ধে মানুষের কোনো অভিযোগ না থাকে। আল্লাহ পরাক্রমশালী ও প্রজ্ঞাময়। ’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ১৬৫)

গ্রন্থনায় : মাওলানা হেদায়াতুল্লাহ



সাতদিনের সেরা