kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৮। ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৩ সফর ১৪৪৩

কাজি অফিস

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল   

৪ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কাজি অফিস

কাজি অফিসে কাবিননামায় স্বাক্ষর করছেন এক কনে

[অষ্টম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের নবম অধ্যায়ে কাজি অফিসের উল্লেখ আছে]

কাজি অফিস এমন একটি অফিস, সেখানে বিবাহ সম্পর্কীয় বিভিন্ন ধরনের সেবা প্রদান করা হয়। কাজি অফিসে সাধারণত বিবাহ রেজিস্ট্রেশন, তালাক রেজিস্ট্রেশন, কাবিননামা, বিবাহ সনদ, তালাকনামা, হারিয়ে যাওয়া কাবিননামা প্রস্তুত, কোর্ট ম্যারেজ সার্টিফিকেট সরবরাহ প্রভৃতি কাজ হয়ে থাকে। যিনি এসব কাজ সম্পাদন করেন তাকে কাজি বলা হয়। কাজি সাহেব বিয়ে রেজিস্ট্রি করে পাত্র-পাত্রীর মধ্যে বৈবাহিক সম্পর্ক গড়ে দেন। কাজি অফিস বাংলাদেশ আইন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত প্রতিষ্ঠান।

কাজি অফিসে যে কেউ গেলেই বিয়ে করতে পারবে না। আইনি কিছু নিয়ম-কানুন আছে। মুসলিম বিবাহ আইন অনুসারে মেয়ের বয়স ন্যূনতম ১৮ ও ছেলের বয়স ২১ বছর হলে কাজি অফিসে সাক্ষীর উপস্থিতিতে তাঁদের বিয়ের কাজ সম্পাদন করতে পারবেন। বিয়ের সময় পাত্র-পাত্রী উভয়ের বয়স প্রমাণের জন্য জন্মনিবন্ধন সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি জমা দিতে হয়। যেকোনো পক্ষের দুজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিকে সাক্ষী এবং একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিকে মেয়ের পক্ষ থেকে উকিল হিসেবে বিবাহ রেজিস্ট্রেশন ফরমে তাঁদের নাম, ঠিকানা উল্লেখপূর্বক স্বাক্ষর করতে হয়। এ ছাড়া বিয়ের ক্ষেত্রে যে বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ সেই দেনমোহর নির্ধারণে কাজি অফিসের কোনো ভূমিকা নেই। এ ক্ষেত্রে ছেলেপক্ষের আর্থিক অবস্থা ও মেয়েপক্ষের সম্মতিতেই সাধারণত দেনমোহর ধার্য করা হয়। সাধারণত এক লাখ টাকা কাবিনের বিয়ের রেজিস্ট্রেশনের জন্য দিতে হয় এক হাজার ২৫০ টাকা। কাজি অফিসে বিয়ে করার আগে নোটারি পাবলিকের নিকট এফিডেভিট করে নিতে হয়।

ঢাকাসহ দেশের সব বিভাগীয় শহরের প্রতিটি ওয়ার্ডে এবং গ্রামে প্রতিটি ইউনিয়নে কাজি অফিস রয়েছে। মুসলমানদের জন্য কাজি অফিসে গিয়ে বিবাহ রেজিস্ট্রেশন না করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ১৯৭৪ সালের মুসলিম বিবাহ ও তালাক (রেজিস্ট্রেশন) আইনে (সংশোধিত) বলা হয়েছে, যেসব বিয়ে নিকাহ রেজিস্ট্রার কর্তৃক সম্পাদিত হয়নি, সেসব বিয়ে যে বা যাঁরা করেছেন, তিনি বা তাঁরা রেজিস্ট্রেশন করার উদ্দেশে উক্ত বিয়ের খবর নিকাহ রেজিস্ট্রারের নিকট দেবেন। যদি কেউ এই নিয়ম পালন না করেন তবে দুই বছরের কারাদণ্ড বা তিন হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

 



সাতদিনের সেরা