kalerkantho

রবিবার । ২৬ বৈশাখ ১৪২৮। ৯ মে ২০২১। ২৬ রমজান ১৪৪২

অন্ননালি

[সপ্তম শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের পঞ্চম অধ্যায়ে অন্ননালির উল্লেখ আছে]

১১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অন্ননালি

অন্ননালি (Esophagus) গলবিল থেকে পাকস্থলী অবধি সংযোগকারী পেশিবহুল নালি। মানুষের অন্ননালির দৈর্ঘ্য হচ্ছে ১৮-২৫ সেন্টিমিটার। একে খাদ্যনালিও বলা হয়। এই নালির ভেতর দিয়ে খাবার মুখ থেকে গলবিল হয়ে পাকস্থলী পর্যন্ত পেরিস্ট্যালসিসের মাধ্যমে অতিক্রম করে। পেরিস্ট্যালসিস হলো এমন একপ্রকার শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া, যার ফলে অন্ননালির গাত্রের পেশি পর্যায়ক্রমিক সংকোচন ও প্রসারণের ফলে খাদ্যদ্রব্য সামনের দিকে অর্থাৎ পাকস্থলীর দিকে অগ্রসর হয়। আমরা মুখ দিয়ে যে খাবারই খাই না কেন, তা একই প্রক্রিয়ায় গলবিল থেকে পাকস্থলীতে পৌঁছে যায়।

অন্ননালি ও পাকস্থলীর সংযোগস্থলে একটি স্ফিংক্টার রয়েছে। স্ফিংক্টার হলো একধরনের পেশীয় বেড়ি, অনেকটা গেটের মতো। এই স্ফিংক্টারকে বলে কার্ডিয়াক স্ফিংক্টার। অন্ননালি থেকে খাদ্যবস্তু যখন পাকস্থলীতে পৌঁছে তখন কার্ডিয়াক স্ফিংক্টার খাদ্যবস্তুকে পুনরায় অন্ননালিতে আসতে ও পাকস্থলী থেকে বের হতে বাধা দেয়। খাদ্যবস্তু হজম এবং তা থেকে শক্তি আহরণ করা শেষ হলে পাকিস্থলীর অন্য একটি স্ফিংক্টার দিয়ে খাবারের পরিত্যক্ত বর্জ্য আকারে বের হয়ে আসে। পাকস্থলীর এই স্ফিংক্টারকে বলে পাইলোরিক স্ফিংক্টার।

অন্ননালি আমাদের দেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এই নালিতে বিভিন্ন কারণে প্রদাহ সৃষ্টি ও জ্বালা হতে পারে। সাধারণত পেটের এসিড, ড্রাগের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে অন্ননালির প্রদাহ হয়। অন্ননালির প্রদাহের কারণে বুকে ব্যথা, অম্বল, কাশি, বমি বমি ভাব, ক্ষুধামান্দ্য, ঢোঁক গিলতে অসুবিধা, গিলতে গিয়ে ব্যথা হওয়া ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। পাশাপাশি আলসার হয় এবং খাদ্যনালি সংকীর্ণ হয়ে পড়ে, যা একটি গুরুতর স্বাস্থ্যসমস্যা। আমাদের দেশে আশঙ্কাজনকভাবে অন্ননালির ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) তথ্য বলছে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে ক্যান্সারে আক্রান্তের প্রায় ১৪ শতাংশই অন্ননালির ক্যান্সারের রোগী। অন্ননালির ক্যান্সারে আক্রান্তের হার বাড়ার পেছনে খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন, দূষিত ও ভেজাল খাদ্য গ্রহণই বেশি দায়ী বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

  ►  ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল



সাতদিনের সেরা