kalerkantho

জানা-অজানা

জোনাকি পোকা

) [ষষ্ঠ শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের নবম অধ্যায়ে ‘জোনাকি পোকা’র কথা উল্লেখ আছে]

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল   

৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জোনাকি পোকা

রাতের অন্ধকারে গাছগাছালি, লতাপাতা, ঝোপঝাড় বা পুকুরপারে পৃথিবীর বুকে তারার মতো জ্বলতে থাকা ছোট্ট পোকাটির নাম জোনাকি পোকা (Firefly)। এরা এক ধরনের পাখাওয়ালা গুবরে পোকা। জৈব রাসায়নিক ব্যবস্থায় নিজের শরীর থেকে আলো উৎপন্ন করে।

জোনাকি পোকার দেহ থেকে আলো বিচ্ছুরণের মূল মাধ্যম হলো লুসিফারিন (Luciferin) নামক একটি রাসায়নিক পদার্থ। এদের দেহেই এই কেমিক্যালটি উৎপাদন হয়, যা বাতাসের অক্সিজেনের সঙ্গে মিশে আলো তৈরি করে।

মেয়ে জোনাকিদের আকর্ষণ করার নিমিত্তেই রাতের বেলায় আলো জ্বালিয়ে থাকে পুরুষ জোনাকি। আগ্রহী মেয়ে জোনাকিও আলোর সংকেতে তার ইতিবাচক উত্তর জানিয়ে দেয়।

শহরের আলোয় এই সুন্দর পোকাটি নজরে না এলেও গ্রামে রাতের বেলা অসংখ্য জোনাকি পোকা দেখা যায়। মনে হয় রাতের আকাশের তারা মাঠের ওপর নেমে এসেছে। এরা কোল্ড লাইট বা নীলাভ আলো উৎপন্ন করে কোনো আল্ট্রাভায়োলেট বা ইনফ্রারেড তরঙ্গ ছাড়া। এই আলোর রং সবুজ বা লাল হয়। আলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য হলো ৫১০ থেকে ৬৭০ ন্যানোমিটার। আমাদের দেশে শুধু সবুজ আলোর জোনাকি পোকা দেখা যায়; কিন্তু অন্য অনেক দেশে লাল আলো বিচ্ছুরণকারী জোনাকি পোকারও দেখা মেলে।

আর্থ্রোপোডা পর্ব, ল্যামপিরিডি পরিবারের এই পোকাদের জীবনকাল শুধু এক থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। পৃথিবীতে এখন পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার প্রজাতির জোনাকি পোকা পাওয়া গেছে। তাদের ছানা বা কীটগুলো থেকেও আলো নির্গত হয়। এদের গ্লোওয়ার্ম বলে।     

 

 

 

মন্তব্য