kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

আবার সাইবার হামলা

প্রযুক্তির নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রযুক্তি তথা তথ্য-প্রযুক্তির প্রসার যত বাড়ছে, ততই বাড়ছে সাইবার ক্রাইম বা তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর অপরাধ। বাংলাদেশ সরকারের কম্পিউটার ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম বা সার্ট গত বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, হাফনিয়াম নামের একটি হ্যাকার গ্রুপ বাংলাদেশ ব্যাংকসহ দেশের দুই শতাধিক প্রতিষ্ঠানে সাইবার হামলা চালিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে। এই হামলার ফলে প্রতিষ্ঠানগুলোর তথ্য ঝুঁকিতে রয়েছে।

বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে সবচেয়ে বড় ধরনের অপরাধের ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি। যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে আট কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই অর্থ চুরিতে উত্তর কোরিয়ার একটি চক্র জড়িত ছিল বলে এফবিআইয়ের তদন্তে বেরিয়ে আসে। এ ধরনের ঘটনার অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের জন্য ছিল এটিই প্রথম। গত বছর আগস্টের শেষ দিকে বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোর ওপর নতুন করে সাইবার হামলার আশঙ্কায় সতর্কতা জারি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। সতর্কতার অংশ হিসেবে তখন অনেক ব্যাংক অনলাইন ব্যাংকিংসেবা সীমিত করে। গত বছরের নভেম্বরেও বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোতে ফের সাইবার হামলার আশঙ্কায় সতর্কতা জারি করে সরকার।

আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে গ্রাহকরা প্রযুক্তিনির্ভর সেবায় এখন অনেকটাই অভ্যস্ত। ব্যাংকগুলোও ডিজিটাল মাধ্যমে সেবা সম্প্রসারণে জোর দিচ্ছে। কিন্তু ডিজিটাল মাধ্যমে সেবা সম্প্রসারণে সাইবার নিরাপত্তা যতটা নিশ্ছিদ্র করার দরকার, সেটা করা হয় না বলে অভিযোগ আছে। অনেক ব্যাংকের পর্ষদই আইটি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখায় না বলে শুনতে পাওয়া যায়। সাইবার নিরাপত্তা জোরদারে বাংলাদেশ ব্যাংকের যেসব নির্দেশনা ছিল, সেগুলো মানেনি অনেক ব্যাংক। এতে সাইবার হামলা ঠেকাতে মাঝেমধ্যেই ব্যাংকগুলোকে সেবা বন্ধ রাখার মতো সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানে হামলা ঠেকানোর মতো নিরাপত্তাবলয় নিশ্চিত করতে হবে। আইটি খাতে বিনিয়োগ বাড়ানো, দক্ষ জনবল নিয়োগ ও কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যথাবিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে যেকোনো সময় বড় ধরনের অঘটন ঘটে যেতে পারে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

মন্তব্য