kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৪ জুন ২০২০। ১১ শাওয়াল ১৪৪১

আপনার শিশু

শিশুর টিফিনে নুডলস

শিশুর টিফিনে চাই বৈচিত্র্য। পুষ্টিকর ও মজাদার টিফিন বানাতে পারেন নুডলস দিয়ে। পরামর্শ দিয়েছেন বারডেম জেনারেল হাসপাতালের পুষ্টি বিভাগের সাবেক প্রধান আখতারুন নাহার আলো। লিখেছেন আতিফ আতাউর

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিশুর টিফিনে নুডলস

শিশুরা টিফিন খেতে চায় না। যা-ই দেওয়া হয় না কেন স্কুল থেকে ফেরত নিয়ে আসে। নয়তো খেতে ভুলে যায় বা ইচ্ছেই করে না। সন্তানদের নিয়ে মায়েদের নিত্যদিনের অভিযোগ এটি। তবে মজাদার আর আকষর্ণীয় টিফিন বানিয়ে শিশুর টিফিন-ভীতি কমিয়ে আনা যায়। সন্তানের স্কুলে প্রতিদিনই একই ধরনের টিফিন দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। বদলে একেক দিন একেক ধরনের টিফিন দিন। সবচেয়ে ভালো হয় সন্তান স্কুলে কী খেতে চায় সেটা জেনে সেই মতো টিফিন বানিয়ে দেওয়া। এখন সব বয়সী শিশুর কাছে প্রিয় খাবার নুডলস। এটা এতটাই জনপ্রিয় যে বিভিন্ন কম্পানি এখন ইনস্ট্যান্ট নুডলসও বানিয়ে বাজারে ছাড়ছে। এগুলো রান্না করতে বাড়তি কোনো ঝামেলাও পোহাতে হয় না। ঝটপট তৈরি করে পরিবেশন করা যায়।

অনেক মায়েরা হয়তো মনে করেন নুডলস খেলে বোধ হয় শিশুদের খিদে পুরোপুরি মেটে না। এই ধারণা ঠিক নয়। নুডলসেও ভাতের মতো শক্তি পাওয়া যায়। ভাত বা রুটির বিকল্প হিসেবে নুডলস খাওয়া যেতে পারে। সাধারণত আটা, ময়দা ও চাল এমন বিভিন্ন উপাদান দিয়ে নুডলস তৈরি হয়ে থাকে। আটার নুডলসে ফাইবার ও প্রোটিন বেশি পরিমাণে থাকে। দিনে হালকা নাশতা হিসেবে কিংবা মূল খাবারে থাকতে পারে নুডলস। কেউ যদি অন্যান্য খাবারের পরিবর্তে তিনবেলা নুডলসও খায় তাতেও কিন্তু কোনো সমস্যা নেই। নুডলসে আরো নানা উপাদান থাকে, যেগুলো আমাদের শরীরের জন্য উপকারী।

সন্তানকে টিফিনমুখী করতে একেক দিন একেক রেসিপির খাবার বানিয়ে দিন। একদিন চিংড়ি, আরেক দিন মুরগির মাংস, অন্যদিন গরুর কলিজা, ডিম, বিভিন্ন ধরনের সবজি দিয়ে নুডলস বানিয়ে দিলে তারা খেয়ে মজা পাবে। এতে করে টিফিনের প্রতি ওদের উত্সাহ বাড়বে। দরকার হলে শিশুকে সঙ্গে নিয়েই ওর মর্জিমতো নুডলস বানিয়ে দিন। এটা করলে টিফিনের প্রতি শিশুর আগ্রহ বাড়বে। খেতে উত্সাহী হবে। একদিন একটু ভিন্নভাবে নুডলস রান্না করে পরিমাণটা বাড়িয়ে দিন। ওর বন্ধুদের সঙ্গে ভাগ করে খেতে বলুন। খেয়ে কোন বন্ধু কেমন মজা পেল সেটা খাতায় লিখে আনতে বলুন। এটা ওর কাছে একধরনের মজার খেলা মনে হবে। খেলাচ্ছলেও সন্তান টিফিন খেতে উত্সাহী হবে। আরো মজাদার করে নুডলস রান্না করে দিতে নিজে থেকেই বায়না করবে।

অনেকেই নুডলস রান্না করার সময় স্বাদ বাড়াতে টেস্টিং সল্ট ব্যবহার করেন। এটা করা থেকে বিরত থাকুন। পরিবর্তে চিংড়ি, গরুর কলিজা, বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি যোগ করুন। এমনিতেই স্বাদ বাড়বে। শিশুর বিকেলের নাশতায়ও নুডলস রাখা যেতে পারে। নুডলস রান্নায় সমপরিমাণ মাংস, সবজি ও স্নেহজাতীয় খাবার রাখতে পারেন। এতে শরীর সঠিক মাত্রায় পুষ্টি পাবে। শিশুর বিকেলের নাশতায় সিদ্ধ মুরগির মাংস ও সবজি দিয়ে স্যুপ নুডলস কিংবা টমেটো চিকেন নুডলস বেশ ভালো উপকার দেবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা