kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

কৌশলে পরিবর্তনের আভাস কাবরেরার

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২৮ মার্চ, ২০২২ ১৮:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কৌশলে পরিবর্তনের আভাস কাবরেরার

গত সপ্তাহে মালদ্বীপের বিপক্ষে ৪-৪-২ ফর্মেশনে খেলে হারের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু এই ফর্মেশনে মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে না খেলার ইঙ্গিত দিলেন বাংলাদেশ কোচ হাভিয়ের কাবরেরা। কেনোনা মালদ্বীপের থেকে টেকনিক্যালি এত উন্নত নয় মঙ্গোলিয়া। হাভিয়ের কাবরেরা মনে করেন, মঙ্গোলিয়া সোজা সাপ্টা ফুটবল খেলতে পছন্দ করে।

বিজ্ঞাপন

আজ আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে হাভিয়ের কাবরেরা বলেন,'দুটা ম্যাচের পরিকল্পনা ও মনোভাব ভিন্ন রকম হবে। মালদ্বীপ এমন একটা দল, যারা টেকনিক্যালি মেধাবী, তারা বিল্ড-আপের সময় সম্ভবত বেশি ঝুঁকি নেয়। আমার মনে হয়েছে মঙ্গোলিয়া প্রাণ-প্রাচুর ভরপুর দল। মালদ্বীপের মতো কৌশলী নয়, সম্ভবত সোজা সাপ্টা খেলে। তবে নিজেদের ম্যাচের পরিকল্পনা নিয়েই আমাদের মনোযোগী হতে হবে। কিভাবে আমরা কৌশলগুলো রপ্ত করব, মাঠে প্রয়োগ করব, সেদিকে প্রতিপক্ষের চেয়ে বেশি মনোযোগ দিতে হবে। '

মালদ্বীপের কাছে হারায় এই ম্যাচে জয় চায় বাংলাদেশের ফুটবলাররা। সিলেটে তিন দিনের অনুশীলনে তাই রিকভারির দিকেই বেশি মনোযোগ দিয়েছে বাংলাদেশ। কাবরেরা আরও বলেন,'মালদ্বীপ থেকে ফেরার পর আমরা রিকভারির দিকে গুরুত্ব দিয়েছি। একই সাথে ভাবছি নিজের পরিকল্পনার সাথে খেলোয়াড়দের কিভাবে খাপ খাওয়ানো যায়। টেকনিক্যাল স্টাফদের সঙ্গেও গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়েছে। সিলেটে এসে বিকেএসপিতে প্রথম প্র্যাকটিস সেশন খুব ভালো ছিল, খেলোয়াড়রা খুব সতেজ ছিল। গতকাল প্রথমবার এ মাঠে (সিলেট জেলা স্টেডিয়াম) অনুশীলনের সুযোগ পেয়েছি। যেটা খেলোয়াড়দের উন্নতিতে অনেক কাজে দিয়েছে। মাঠ বেশ ভালো; ভালো ফুটবল খেলার জন্য যেটা গুরুত্বপূর্ণ। '

মালদ্বীপ ম্যাচে পরিকল্পনা গুলো বাস্তবায়ন করতে পারেনি ফুটবলাররা। প্রথম গোল হজমের পর খেলা এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল জানালেন কাবরেরা,'যদি ম্যাচের কথা ধরা হয়, আমাদের কতগুলো ইতিবাচক দিক ছিল, যেগুলো আমাদের পরিকল্পনার সাথে মিলে যায়। রক্ষণ ভালো ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে বিল্ড-আপ ফুটবল খেলতে পেরেছি। কিছু ভালো আক্রমণ করতে পেরেছি, বাক-বদলের মুহূর্ত ছিল, যখন আসলে আমরা গোল খেয়েছি, তখন থেকে আমাদের খেলা এলোমেলো হয়ে গিযেছিল। '

'এখানকার ট্রেনিং সেশন এগুলো নিয়ে আমরা বেশি কাজ করেছি। প্রথমার্ধে আমরা একটা গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলাম, সুযোগটা কাজে লাগানো গেলে, সেটা হয়ত ম্যাচের গতিপথ পাল্টে দিতে পারত। স্কোরিংয়ের ক্ষেত্রে আমরা সুযোগ কাজে লাগানোর পথেই আছি, কিন্তু শেষ পর্যন্ত ফিনিশিং দিতে পারছি না। এটা নিয়ে কাজ করছি। আগের ম্যাচের মতো ৪-৪-২ এর বদলে এবার নতুন কিছু দেখতে পারবেন। মালদ্বীপে আমরা ওটা করেছি যাতে মালদ্বীপের বিল্ড-আপ ফুটবল খেলতে পারি। '



সাতদিনের সেরা