kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

সোনারগাঁয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের পাথর খালাস কার্যক্রমের উদ্বোধন

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ১৮:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সোনারগাঁয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের পাথর খালাস কার্যক্রমের উদ্বোধন

‘দেশ ও মানুষের জন্য’ শ্লোগান নিয়ে ১৯৮৭ সাল থেকে পথচলা বসুন্ধরা গ্রুপের বাণিজ্য উন্নয়নে সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে অভ্যন্তরীণ নৌপথ ব্যবহার করে প্রথমবারের মতো ভুটান থেকে পাথরবাহী একটি ভারতীয় জাহাজ আসামের ধুব্রি থেকে যাত্রা করে বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে এসে পৌঁছেছে। ঐতিহাসিক এ উদ্যোগকে স্মরণীয় করে রাখার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা ঘাটে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ফিতা কেটে জাহাজে আনা পাথর খালাস কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফওয়ান সোবহান ও বসুন্ধরা গ্রুপের ডিরেক্টর ইয়াশা সোবহান।

উদ্বোধনী অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বি আই ডব্লিউ টি এ) চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুল ইসলাম, ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ, ভুটানের রাষ্ট্রদূত সোনম টি. রাগবি। অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. মহিদুল ইসলাম, কাস্টমস হাউসের (এন বি আর, পানগাও) অতিরিক্ত কমিশনার সৈয়দ আতিকুর রহমানসহ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ভারতীয় দূতাবাস, ভুটান দূতাবাস ও বসুন্ধরা গ্রুপের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ।

অনুষ্ঠানে আগত অতিথিরা জানান, পরিবহনের এই মাধ্যমটি খরচ কমানোর পাশাপাশি অর্থনৈতিক সহযোগিতার এবং তিনটি বন্ধুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে জড়িত উপ-আঞ্চলিক সীমান্ত বাণিজ্যর একটি চমৎকার উদাহরণ হয়ে থাকবে। এখন পর্যন্ত ভুটান স্থলপথ ব্যবহার করে বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ পাথর রপ্তানি করে আসছে। জাহাজটি ১০০০ মেট্রিক টন পরিমাণ পাথর পরিবহন করেছে, যা স্থলপথে পরিবহন করতে ৫০ টিরও বেশি ট্রাক প্রয়োজন হতো। 

এই উদ্যোগটি ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভুটান সফর ও ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরের ফলাফল। যেখানে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের স্বার্থে অভ্যন্তরীণ নৌপথ ব্যবহারের উদ্দেশ্যে একটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করা হয়। 

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে বেশ কয়েকটি উদ্যোগ ও সহযোগিতার কারণে গত কয়েক বছরে বাণিজ্য উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৮ সালে দুই দেশের মধ্যে মোট ৯৪ দশমিক ১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের ব্যবসা হয়েছে। যা আগের বছরের তুলনায় ৬৭ দশমিক ৪ শতাংশ বেশি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা